Today 09 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

আবার তোরা বাঙালী হ !

লিখেছেন: টি. আই. সরকার (তৌহিদ) | তারিখ: ১৪/০৪/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 776বার পড়া হয়েছে।

আবার এলো ১লা বৈশাখ ! আবার নিশ্চয় আনন্দে মাতবে বাঙালী !

কিন্তু… বৈশাখের উদযাপন দেখে যে কারো মনেই প্রশ্ন জাগতে পারে-
“আমরা কি শুধু এক দিনের বাঙালী ? কিংবা আমরা কি শুধু ইলিশ-পান্তায় ডুবে থাকার মতো একটি প্রহরের বাঙালী ?”

যদি তাই না হবে- তবে কেন এই অতি উৎসাহী বাঙালী ভাব ?

বাঙালী হওয়ার জন্য চাই মনে-প্রাণে বাঙালী হওয়া ! চাই বাঙালী সংস্কৃতি বুকে ধারণ করা, মনে লালন করা আর কাজে পালন করা !

কিন্তু আমরা বাঙালী হই স্বার্থবাদী উপলক্ষ নিয়ে ! অর্থাৎ আমরা নিজেদের সুযোগ-সন্ধানী বাঙালী ভাবতেই বোধ হয় বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি ! আর তাই, যখন বাঙালী বলে নিজেকে মেলে ধরলে একটু আনন্দ-গানে মেতে থাকা যাবে তখন আমরা বাঙালী হই ! আর যখন বাঙালী বলে পরিচয় দিলে নিজের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ হবে তখন আমরা মোটেই বাঙালী না ! অনেকটা সারা বছর ফরজ নামাজ আদায় না করে ঈদের নামাজে শরীক হতে সবার আগে নতুন জামা পড়ে ঈদগাহে যাওয়ার অতি উৎসাহী মানুষের মতো !

এই যে এতো বাঙালী উৎসব উৎসব ভাব তাতেও কি কালকের উৎসবটা শুধুই বাঙালী সংস্কৃতির আওতায় থাকবে ? নিশ্চিত করেই বলা যায়, থাকবে না !

সকালে পান্তা খেয়েই হয়তো কারো মুখ থেকে বের হবে-“আচ্ছি টেস্ট হে ইয়ার” কিংবা “What a taste of পান্তা-ইলিশ” জাতীয় বিভিন্ন ধরণের বাক্য !

না, আমি অন্য ভাষা বলা বা শিখার বিরোধী নই কিংবা আমি এটাকে অসমর্থনও করি না ! কিন্তু, আমার প্রশ্ন হচ্ছে- বছরের ৩৬৪ দিন যে আমরা কিংবা যে সমাজ অন্য দেশ কিংবা সংস্কৃতিকে আঁকড়ে পড়ে থাকি, তাদের কাছেই ১ দিনে ঐ সংস্কৃতি কেন এতো অপ্রিয় লাগে ? আর ১ দিনেই যেন দেশের প্রতি ভালোবাসা উপচে পড়ে আমাদের ! ৩৬৪ দিনের ভিন্নদেশ আর সংস্কৃতির প্রীতির কাছে ১ দিনের স্বদেশপ্রীতি যে মনে খুব একটা দাগ কাটতে পারবে না সেটা তো নির্দ্বিধায়ই বলে দেয়া যায় ! অবশ্য এই স্বদেশপ্রেম যদি লোক দেখানো না হয়ে সত্যিই মন থেকে দেশের সংস্কৃতির প্রতি ভালোবাসা হতো তবে এই সংস্কৃতির জন্য আমার কিংবা আমাদের প্রাণ তো সবসময়ই এমন অনুভূতি অনুভব করতো ! তাই না ?

কিন্তু করে কি ? মনে হয় করে না ! তার মানে কি এই নয় যে, প্রাশ্চাত্যের শেখানো বুলিতেই আমাদের এই বর্ষবরণ ? হয়তো তাই, হয়তো না ! কিন্তু আমাদের বর্ষবরণের এই আমেজ কিন্তু আরো ১০ বছর আগেও এতোটা বিস্তৃত ছিল না ! ছিল না এতোটা জমকালোও ! ইংরেজি নতুন বছর উদযাপন দেখে দেখেই যেন বেড়েছে বর্ষবরণের উন্মাদনা ! অর্থাৎ এটাও গড়ে ওঠেছে অন্য কোন সংস্কৃতির আদলে !
না, অন্য সংস্কৃতির আদলে গড়ে ওঠায় আমার কোন আপত্তি নেই ! কিন্তু খুব খারাপ লাগে তখনই যখন দেখি- হিন্দি সিনেমাকে হুবহু নকল বাংলা সিনেমা বানানোর সেই প্রয়াস এই বর্ষবরণেও ! যেখানে নিজস্বতা বা স্বকীয়তা বলতে কিছুই নেই !

অন্যদিকে, উৎসব হলেই যেন আমাদের আর মন মানে না ! ইংরেজি নববর্ষ কি বাংলা নববর্ষ কোনটার আনন্দই আমরা ছাড়তে রাজি নই ! যারা এই নতুন বছরের প্রথম দিনে বাংলা সংস্কৃতির দোহাই দিয়ে রাস্তায় নামবে তাদের মধ্যেই অনেককে খুঁজে পাওয়া যাবে যারা- বাংলাদেশ আর ভারতের খেলায় ভারতকে কিংবা বাংলাদেশ-পাকিস্তান খেলায় পাকিস্তানকে সমর্থন দেয় ! অথচ তারাই মাঠে সবচেয়ে দেশপ্রেমী আর দেশীয় সংস্কৃতিপ্রেমী হিসেবে আখ্যা পেয়ে যাবে ! প্রতিনিয়ত, আমরা ভালো সাজার অভিনয়টুকু যতটা ভালো করে করতে পারছি, তার কিছুটাও যদি আমরা সত্যিকারের দেশপ্রেমী হতে পারতাম, তাহলে এই বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে অন্যরকম গর্ব করার মতোই একটা দেশ হতে পারতো !

আসুন, এক দিনের পান্তা-ইলিশের বাঙালী না হয়ে ৩৬৫ দিনই মনে-প্রাণে বাঙালী হই ! বিশ্বের বুকে বাঙালীর ইতিহাসের যে শৌর্য-বীর্য আর প্রশংসিত অধ্যায় রয়েছে, প্রত্যেকেই তেমন একজন গর্বিত বাঙালী হওয়ার চেষ্টা করি ! ভালবাসি এই দেশ, দেশের মানুষ আর দেশীয় সংস্কৃতিকে !

৭৬৪ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
কবিতার প্রতি ভালোলাগা থেকেই আমার লিখার হাতেখড়ি । কবিতার ছন্দ আমাকে ভীষণ টানে । আর তাই কবিতা পড়া কিংবা লিখায় ছন্দ খুঁজে ফিরি প্রতিনিয়ত । সে কারণেই কি না আহসান হাবীব, জীবনানন্দ কিংবা জসীম উদ্দিনের মতো কবিদের লিখা আমাকে একটু বেশিই টানে ! বিরহের কবিতাও ভীষণ ভালো লাগে । লিখাটা অবশ্য আমার শখের একটা অংশ । লিখায় আমি যে খুব একটা পারদর্শী নই সেটা কেউ সরাসরি না বললেও বুঝতে পারি । তাছাড়া আমার শব্দভাণ্ডার কতটা সীমিত তা আমার লিখা পড়লে যে কেউ বুঝতে পারবেন । তবুও নিজের মনের ক্ষুধা নিবারণ করতে লিখে যাই । লিখতে ভালো লাগে । খুব কঠিন করে লিখতে পারিনা । অবশ্য সেরকম চেষ্টাও যে খুব একটা করা হয় তেমনটাও নয় ! অনলাইন ব্লগে লিখায় হাতেখড়ি এই (২০১৫ সাল) ফেব্রুয়ারিতে, নক্ষত্র ব্লগে । (২০১৫ সাল) মার্চে যুক্ত হলাম চলন্তিকায় । অবশ্য ফেসবুকে বছর দুয়েক আগে থেকেই মাঝে-মধ্যে লিখা হয়েছে । বলতে পারেন নগণ্য এক লেখক আমি- যে কি না শুধু নিজের মনের আনন্দের জন্যই লিখে । আর তাই এখনো (০৮-০৩-২০১৫) পর্যন্ত কোন প্রিন্ট মিডিয়াতে আমার লিখা জমা দেইনি কিংবা দেবার চেষ্টাও করিনি । স্বাভাবিকভাবেই, আমার কোন লিখা কোন প্রিন্ট মিডিয়াতে আজ পর্যন্ত ছাপার অক্ষরে মুদ্রিত হবার সুযোগ পায়নি । ইদানিং অবশ্য এ (প্রিন্ট মিডিয়া) ব্যাপারে একটু আগ্রহ জন্মেছে । সম্ভবত নবম শ্রেনিতে প্রথম কবিতা লিখি । এক বড় ভাই দেখে বলল, "তুমি তো খুব ভালো লিখ । তোমার কবিতাটা দিও ! আমি কম্পিউটারে কম্পোজ করে দেব ।" ছাপার অক্ষরে লিখা হবে আমার কবিতা... ভাবতেই আনন্দ লাগছিল ! সেই থেকে মূলত কাগজ-কলমের সাথে যোগাযোগ । নিয়মিত লিখা হয়নি কখনোই । তবে মাঝে-মধ্যে কিছু ভাবনা মনে এমনভাবে উথালপাতাল শুরু করে যে না লিখা পর্যন্ত মনে শান্তি আসে না । না চাইলেও তাই মাঝে মাঝে লিখতেই হয় । ইদানিং অবশ্য কিছুটা সময় দিচ্ছি এক্ষেত্রে । তবুও সেটা মনের ভাবকে গুছিয়ে তোলার জন্য যথেষ্ট নয় । লিখার ব্যাপারে কবি নজরুলের একটি কথা ভীষণ প্রিয় আমার -"বনের পাখির মতো স্বভাব আমার- কারো ভালো লাগলেও গাই, না লাগলেও গাই !" কবিতা লিখার পাশাপাশি খেলাধুলা করা, খেলা দেখা, পত্রিকা পড়া, টিভি দেখা এমনকি ছোটদের সাথে সময় কাটানোও আমার অন্যতম শখ । তবে সবচেয়ে বড় শখ ভ্রমণ । প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের খুব সাধারণ এক পরিবারের ছেলে আমি । ব্যক্তি হিসেবেও খুব সাধারণ । হিসাববিজ্ঞানে মাস্টার্স (২০১২) শেষ করে ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানে কাজ করছি । জীবনে তেমন কোন উচ্চাশা নেই । সবাইকে নিয়ে একটু ভালো থাকা... এই তো চাওয়া !
সর্বমোট পোস্ট: ১১৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১৯০০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৫-০৩-০৮ ০৩:০৩:৫৯ মিনিটে
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    ঠিকই বলেছেন ক্ববি – একদিনের জন্য ‘দিবসীয় প্রেম’-এ আমাদের জুড়ি নেই।
    বিশেষত ধর্ম এবং সংস্কৃতি নিয়েই এই বাড়াবাড়িটা বেশি হয়। এর প্রতিযোগীতা ক্রমে বেড়েই চলেছে।
    শিক্ষা সংস্কৃতিতে যতই উন্নতি হোক না কেন আর কখনো এই প্রতিযোগীতা কমবে বলে মনে হয় না।
    কবিকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাই।

    • টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

      হুম ! আমারও মনে হয় কমবে না ! অসাধারণ মতামতের মাধ্যমে আমার লিখায় আর মনোভাবের প্রতি সমর্থন জানানোর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় কবি । ভালো থাকুন সবসময়…

  2. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    দারুন ভাবনার

  3. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ সবুজ ভাই ।
    শুভ হোক নববর্ষ !

  4. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    হুম ! আপনার অনুভূতি জানতে পেরে আমারও খুব ভালো লাগলো ।
    ভালো থাকুন সবুজ ভাই ।

  5. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগলো সুন্দর লিখনী

    শুভ কামনা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top