Today 23 Jan 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

আশরাফুল ‘ইউ আর দ্যা গ্রেট’- তবু সততাই হোক অবলম্বন।

লিখেছেন: শওকত আলী বেনু | তারিখ: ২৫/০৬/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 325বার পড়া হয়েছে।

মোহাম্মদ আশরাফুল

প্রয়াত সাহিত্যিক ও কবি উপাধ্যক্ষ মহিউদ্দিন আহম্মেদ প্রায়শই সভা সেমিনারে একটি কথা বলে বেড়াতেন বেশ আগ্রহ সহকারে। তিনি বলতেন “অফিসারের অবিচারে ছেয়ে গেল দেশটা, যা ছিল অবশিষ্ট  কালো বাজারিতে শেষটা”।কথাটা কী ওনার, নাকি অন্য কারো লেখার অংশবিশেষ তা আমার জানার সুযোগ হয়নি কখনো।তবে,আশির দশকে এই রসিক কবি ও সাহিত্যিকের  উচ্চারিত বচনটি খুব উপভোগ করতাম সেই সময়।তখন  ঘুষ আর দুর্নীতির ক্ষেত্রটা এতো ব্যাপক ছিলনা। অর্থাৎ শুধু সরকারী কর্মকর্তা আর ব্যবসায়ীদের মধ্যেই সীমিত ছিল ঘুষ নামক এই জঞ্জালটি।তাই হয়তো এই শিক্ষানুরাগী সাহিত্যিক সরকারী কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের প্রতি ক্ষুব্দ হয়েই সভা-সেমিনারে কথাগুলো বলে বেড়াতেন।

সাহিত্যিক ও কবি  উপাধ্যক্ষ মহিউদ্দিন আহম্মেদ এখন প্রয়াত।সর্বশেষ নব্বই দশকের গোড়াতেই ওনার সাথে শেষ দেখা।তিনি হয়তো আর কখনোই জানবেন না  সরকারী কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ী ছাড়াও ঘুষ আর দুর্নীতির সীমান্ত এখন কতো বেশি উন্মুক্ত! তিনি বেঁচে থাকলে জুয়ার ফাঁদে ধরা দেওয়া বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেট আইকন আশরাফুলের কৃতকর্মের  জন্যে কী বলতেন? তার উত্তর আমার জানা নেই।তবে গোটা জাতিকেই যে আশরাফুল নাড়িয়ে দিয়েছে তা অনুধাবন করতে কষ্ট হয়নি।

তার কারণ কি? কারণ, আশরাফুল একজন সেলিব্রেটি – ক্রিকেট আইকন।হাতে রয়েছে বিশ্ব কাপানো ব্যাটিং জাদু।দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্ব জোড়া তার খ্যাতি। রয়েছে অগনিত ভক্তবৃন্দ।দ্বিতীয়ত: আশরাফুল যে কর্মটি করেছেন তা একটি অপরাধ এবং বলা যায় অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনের একটি গোপন ফন্দি।তৃতীয়ত: নিজের কৃতকর্মের দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন অকপটে এবং জাতি ও বক্তদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন করজোরে।চতুর্থত: তিনি ভক্তবৃন্দের হৃদয়কে ক্ষত-বিক্ষত করেছেন প্রচন্ড ভাবে।

যাইহোক, সর্বশেষ খবর বিপিএলে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে আট বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন টেস্ট ক্রিকেটে সর্বকনিষ্ঠ এই সেঞ্চুরিয়ান।দ্বিতীয় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া সব ধরনের ক্রিকেটেই এই শাস্তি পেলেন আশরাফুল। তাঁর বিরুদ্ধে আনা চারটি অভিযোগের চারটিই প্রমাণিত হয়েছে বলে রায় দিয়েছেন বিসিবির ট্রাইব্যুনাল। প্রতিটির কারণেই তাঁকে আট বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। একটি অভিযোগে ১০ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে ঢাকা  গ্ল্যাডিয়েটরসের এই ক্রিকেটারকে।

আশরাফুল ক্রিকেটে আর ‘ফুল’ হয়ে ফুটবে কী না জানিনা । তবে বিস্ময়করভাবে  আবির্ভূত এই ক্রিকেটার অগণিত ভক্তদের ফুল (বোকা ) বানিয়ে  নিজেই ঝরা ফুলের ন্যায় দ্রুত ঝরে গেলেন !

যে কথাটি না বললেই নয় তা হলো অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনের গোপন ফন্দির খবর প্রকাশ পাওয়া আমাদের সমাজে নতুন কিছু নয়।এ নিয়ে লেখালেখিও কম হয়নি। রাজনৈতিক রাঘববোয়াল ও সরকারের মন্ত্রীদেরও এই তালিকায় নামের কমতি নেই।অনেক আমলারাও ছিলেন এবং রয়েছেন।পদ্মা সেতুর গোপন ফন্দির খবর কে না জানে? আর ব্যাঙ্কিং খাতের অর্থ কেলেঙ্কারী।এই সব কিছুই তো দুর্নীতি।অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনের কারসাজি।সাবেক রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ‘কালা বিলাই’ এর নামডাক কারো অজানা নয়।আর ওটা তো কোনো গোপন ফন্দি ছিলনা।এক্কেবারে এপিএস এর মাধ্যমে  টাকার বস্তা সহ হাতে নাতে ধরা! 

বলতে দ্বিধা নেই, এতো সব কেলেঙ্কারির মাঝেও ক্রিকেট তারকা আশরাফুলের ঘটনাটা যেন একটু ভিন্ন মাত্রায় রূপ নিয়েছিল।ক্রিকেটে ম্যাচ পাতানো বা স্পট ফিক্সিংয়ে আশরাফুলের দেয়া বক্তব্যই এর অন্যতম কারণ।তিনি নিজেই খুব স্পষ্ট করে দোষ স্বীকার করে নিয়েছিলেন।বলে দিয়েছেন স্পট ফিক্সিংয়ের গোপন কথা। সহজ সরল ভাবে জাতির কাছে ও তার অগনিত ভক্তদের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন।এই জঘন্য কর্মটি করা ঠিক হয়নি, এমন বক্তব্যও তিনি দিতে দ্বিধা বোধ করেননি। কারণ অপরাধ করে আশরাফুল অনুতপ্ত ছিলেন ।

আশরাফুলের এই সহজ সরল  স্বীকারোক্তি অবিশ্বাস্য  মনে হয়েছিল সেই সময় অনেকের কাছে।বিশেষকরে তার ভক্তদের কাছে।এমন কর্ম আশরাফুল করতে পারে কি? ক্রিকেটের ‘লিটল বয়’ এই প্রিয় নায়কের এমন কৃতকর্ম ভক্তরা কেউই মেনে নিতে পারনেনি। ফেইসবুক সহ সামাজিক নেটওয়ার্ক গুলোয় পাঠকদের মতামতই এর প্রমান বহন করছে।শুধু দেশেই নয়, প্রবাসেও তাঁর অগনিত বক্তদের মাঝে ছিল একই আলোচনা।

সামাজিক নেটওয়ার্ক গুলোয় স্পষ্টতই দুইটি মতামত লক্ষ্য করা গিয়েছে।কেউ বলছে অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।অন্যায় অন্যায়-ই।অপরাধ করেছে, এর শাস্তি হতেই হবে।এই শাস্তি ভবিষ্যতের জন্যে অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।ভবিষ্যতে আর কেউ অন্যায় করার সাহস পাবেনা। আবার কেউ কেউ বলেছে ভিন্ন কথা।নিজের দোষ স্বীকার করে আশরাফুল মহত্বের পরিচয় দিয়েছেন।বিচারের পূর্বেই তিনি দায় স্বীকার করে নিয়েছেন।অন্তত শাস্তির পরিমান কিছুটা হলেও কম হওয়া উচিত।এই সব কিছুই বলা হয়েছিল ক্রিকেট ও আশরাফুলের প্রতি ভক্তদের গভীর ভালবাসার তাগিদ থেকেই।

সব জল্পনা-কল্পনা শেষে মাননীয় বিচারক আশরাফুলকে শাস্তি দিয়েছেন।কারণ তিনি অপরাধ করেছেন। অপরাধী শাস্তি পাবে এটাই স্বাভাবিক।হয়তো আমার মতো অনেকেই চায়। কিন্তু বিচারের আগেই আশরাফুল ভুল স্বীকার করে নেয়ার  সাহসিকতা দেখিয়েছেন ।আশরাফুল যে কাজটি করেছেন তা একটি সভ্য সমাজের রীতিনীতি অনুসরণ করেছেন।ভুল স্বীকার করে মহত্বের পরিচয় দিয়েছেন।বিবেকের তাড়নায় তিনি ঘুমড়ে মরছেন।তাই  তিনি দায় স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছিলেন।প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিংটন সহ পৃথিবীর অনেক রাষ্ট্র নায়করাই ভুল স্বীকার করে আজো  জনগনের ভালবাসা ও শ্রদ্বা নিয়ে বেঁচে আছেন।যা করতে পারেননি আমাদের আবুল হোসেন ও সুরঞ্জিত বাবুরা।আবুল ও বাবুদের কর্মের খেসারত বয়ে বেড়াচ্ছে গোটা জাতি। তবু, আবুল আর বাবুদের কোনো দুঃখ বোধ নেই!  যন্ত্রণা নেই।নেই কোনো দায় স্বীকার করে নেয়ার মানসিকতা।

এই ক্রিকেট লিটল বয় থেকে সমাজ শিক্ষা নিতে পারে।শিক্ষা নিতে পারে আবুল ও বাবুরাও।আবুল ও বাবুরা দায় স্বীকার করে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে পরবেন কী? যেই মহৎ কাজটি করতে পেরেছেন এই তরুণ ক্রিকেটার।

সত্যিই আশরাফুল ‘ইউ আর দ্যা গ্রেট’। তোমার সাহস এবং সততাই যেন হোক তোমার অবলম্বন।

 

৩৭৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
লেখালেখি করি।সংবাদিকতা ছেড়েছি আড়াই যুগ আগে।তারপর সরকারী চাকর! চলে যায় এক যুগ।টের পাইনি কী ভাবে কেটেছে।ভালই কাটছিল।দেশ বিদেশও অনেক ঘুরাফেরা হলো। জুটল একটি বৃত্তি। উচ্চ শিক্ষার আশায় দেশের বাইরে।শেষে আর বাড়ি ফিরা হয়নি। সেই থেকেই লন্ডন শহরে।সরকারের চাকর হওয়াতে লেখালেখির ছেদ ঘটে অনেক আগেই।বাইরে চলে আসায় ছন্দ পতন আরো বৃদ্বি পায়।ঝুমুরের নৃত্য তালে ডঙ্কা বাজলেও ময়ূর পেখম ধরেনি।বরফের দেশে সবই জমাট বেঁধে মস্ত আস্তরণ পরে।বছর খানেক হলো আস্তরণের ফাঁকে ফাঁকে কচি কাঁচা ঘাসেরা লুকোচুরি খেলছে।মাঝে মধ্যে ফিরে যেতে চাই পিছনের সময় গুলোতে।আর হয়ে উঠে না। লেখালেখির মধ্যে রাজনৈতিক লেখাই বেশি।ছড়া, কবিতা এক সময় হতো।সম্প্রতি প্রিয় ডট কম/বেঙ্গলিনিউস২৪ ডট কম/ আমাদেরসময় ডট কম সহ আরো কয়েকটি অনলাইন নিউস পোর্টালে লেখালেখি হয়।অনেক ভ্রমন করেছি।ভালো লাগে সৎ মানুষের সংস্পর্শ।কবিতা পড়তে। খারাপ লাগে কারো কুটচাল। যেমনটা থাকে ষ্টার জলসার বাংলা সিরিয়ালে। লেখাপড়া সংবাদিকতায়।সাথে আছে মুদ্রণ ও প্রকাশনায় পোস্ট গ্রাজুয়েশন।
সর্বমোট পোস্ট: ২০৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৫১৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-১৭ ০৯:২৪:৩১ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    আচ্ছা আমি দেখছি বেনু ভাই। টিভি তে একটা অনুষ্ঠানে আশরাফুল কে নিয়ে ভিডিও সহ দেখাল। সে টাকা নিয়ে ম্যাচ এ খেলেনি। একি সত্য ?

    • শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

      আমার ঠিক জানা নেই। ..তবে বিপিএলে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ আশরাফুল নিজেই স্বীকার করেছে ….

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    সত্যিই আশরাফুল ‘ইউ আর দ্যা গ্রেট’। তোমার সাহস এবং সততাই যেন হোক তোমার অবলম্বন। আমি ও এইভাবে বলতে চাই।

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    এমন আরো কত নজীর আছে। তবে শাস্তিটা বেশি হয়ে গেল

  4. শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

    tai naki ..

  5. সাখাওয়াৎ আলম চৌধুরী মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার সাথে সম্পূর্ণ একমত। কবে যে আমাদের সবার শুভবুদ্ধির উদয় হবে?

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top