Today 14 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

একই বৃন্তে দুটি ফুল

লিখেছেন: আরজু মূন জারিন | তারিখ: ২২/০৯/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 823বার পড়া হয়েছে।

বোন্ সুরাইয়া র জন্য আমি একদিন আপনার প্রবন্দ্বে বলেছিলাম (এক কাপল এর ছবি তে ) ওটা হয়েগেছে আসলে ভ্যালেনটাইন  ছবি  আপনার ছবি কিন্তু আমি বেশ পছন্দ করেছি
আসলে এইভাবে কেন ভাবব আমরা ?

বছরের প্রতিদিন হতে পারে ভালবাসা প্রকাশ এর দিন
আমার একই বৃন্তে দুটি ফুল এই লিখা আপনার জন্য

—————————————————————————————————————————————-

১৪ ই  ফেব্রুয়ারী   ভ্যালেনটাইন দিবস …ভ্যালেনটাইন  দিবস  প্রসঙ্গ  তার  সাথে  আনুষঙ্গিক  আরো  কিছু  প্রসঙ্গ

 

আজকে  একুশ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ..গল্পের সার্থে  আমি  ঘড়ির  কাটাকে  নিয়ে  যাচ্ছি    সামনের  দিকে ….ঘড়ির  কাটাকে  নিতে  নিতে  এসে  থামলাম আমি  আজ  ১৪ ই  ফেব্রুয়ারী  রাত  ১০ :৩০ আমাদের  গল্প  স্টার্ট  এখানে  থেকে ।

 

স্ত্রী  প্রজাপতি আজকে  সেজেছে  খুবই  সুন্দর  করে

পড়েছে    তার স্বামীর  দেওব্য়া  সবচেয়ে  প্রিয়  নিল  সিল্ক  শাড়ি । তার  সাথে  চুলের  বিনুনিতে  দিয়েছে  ফুল ।  সেজেছে  সে  বিকাল  ৫  টায়

কথা  ছিল  তারা  আজ  একসঙ্গে  যাবে  খেতে ।তার  পর  স্বামী প্রজাপতি তাকে  নিয়ে  যাবে বড় শপিং মল এ. তাই  বেচারী  সেজে  বসে  আছে  সে  বিকাল  থেকে । এতক্ষণে  তার  সাজ  হয়ে  গেছে  মলিন .

চোখের  কাজল  মুছে  গেছে  চোখের  পানিতে।

অনেকবার  ফোন  করেছে কিন্তু  তার  স্বামীকে  পায়নি ।

এবার আমরা  দেখি স্বামী  প্রজাপতি  এর  সারাদিন  কেমন  কাটল ? সকাল এ  কাজে  যোগ দেওয়ার  পর  বেচারার  হয়ে  গেল  তুমুল   ঝগড়া  কথাকাটি  তার  শেফ  এর  সাথে ।

একবার  ভাবলো  সে  যা  ছেড়ে  দেই  জব তারপর  আবার  সে  মনের  আর  দেহের  ক্লান্তি  মুছে  হলো  প্রাকটিক্যাল ।

আমাকে  দিতে  হবে  হাউস  রেন্ট কিনতে  হবে  আমার  বাচার  ফুড ,পাঠাতে  হবে  টাকা  দেশে  মা  বোন  এর  জন্য ।

আমার  চামড়া  তা  না  হয়  করে  ফেললাম  একটু  গন্ডার  এর  মত ।

সব  কথা  সোনার  দরকার  কি  আমার , এই  মুহুর্তে  দরকার  আমার  টাকা . উত্তেজনায়  এসব   কথা  চিন্তা  করতে  করতে  বেচারা  ফেলল  হাতটা কেটে ।

যথারীতি  তাকে  নেওয়া  হলো  হাসপাতাল  এ  ৩  ঘন্টা  সিলাই  এর  পরে  আরো  ৪  ঘন্টা  সে  কাজ  করলো  কাটা  হাত  নিয়ে  সে  ভুলে  গেল  স্ত্রী  কে  দেওয়া  প্রতিশ্রুতি  দেওয়ার  কথা  যে  আজকে  বাহিরে বেরনোর কথা ।

রাত  ৯ :৩০  মনে  পড়ল  আহারে  আমার  বৌটা  ঘরে অপেক্ষা  করে  আছে ।

পড়ি  মড়ি করে  বাসায়  আসলো  দেখল  ঘরে  সব  বাতি  নিভানো ।

স্ত্রী  বিছানার  এককোনায়  শুয়ে  ফুলে  ফুলে  কাদছে ।

স্বামী বেচারা  ভীষণ  ক্লান্ত  তার  নাই  কোনো  এনার্জি  ঐমুহুর্তে  কোনো  কথা  বলার ।

কিন্তু  প্রজাপতি  বৌটাত কাদছে কি  আর  করে  বেচারা ধরল  গান

 

কেন  আকাশ  এত  নীল ?বল  তুই  কেন  আকাশ  এত  নীল

কাদতে  কাদতে  বউ  বলতেছে  কেন ?

তোর্  নীল  শারিটা পড়েছে

আচল   দিয়ে  ডেকেছে ।

কেন  ফুলের  এত  রূপ ?

কেন  ফুলের  এত  সুবাস ?

তোর্  রূপ  চুরি  সে  করেছে ।

তোর্  সুবাস  চুরি  সে  করেছে ।

স্ত্রী  ও  গাচ্ছে …হায় হায়  হায় .তোর্  কথার  জাদুতে  আমি  মেনেছি  যে  হার

তোর্  চাপাবাজিতে  আমি  মেনেছি  যে  হার ( প্রবাল  চৌধুরী   ও উমা  ইসলাম ..এর .একটা গান  আমার  ছোটবেলার  সোনা  একটা  বিখ্যাত গান )

আরে  ও আমার  রাজা  তোর্  এই  চাপাবাজিতে  মেনে  যাইরে হার ।

তো  স্বামী  প্রজাপতি  ওই  রাতে  স্ত্রী  কে  সে  সুধু  সং  গিফট  করলো ।

অন্য  কিছু  আর  দিতে  পারেনি ।

স্ত্রী  প্রথমে  ঝগড়াঝাটি  করলো  মন  খারাপ  ও  করলো বলল  তুমি  তো  আগে  আমার  জন্য  সামান্য  কিছু  কিনে  লুকিয়ে  রাখতে  তারপর  আমাকে  চমক   দিতে ।

আমি  তো  কিনে  দিব  সবসময় ।

কিন্তু  ভ্যালেনটাইন  ডে টা  নিয়ে  তুমি  এরকম   কর কেন  বলত . তুমি  কি  জানো এটার  ইতিহাস??

ভ্যালেনটাইন ডে নিয়ে অনেক কথা ই প্রচলিত আছে  তবে  সবচেয়ে  মডার্ন  যে  ভ্যালেনটাইন  কনসেপ্ট  বা   ফ্যাক্ট  এখন  বেশি  সবাই  মনে  করে .

.সেটা  হছে  ফাদার  ভ্যালেনটাইন  নাম এ  একজন  পাদ্রী  ছিলেন  তত্কালীন  রোম  সমাজে .

তার  নাম এ  অভিযোগ   ছিল  সে  সময়ের  অল্প  বয়সী   তরুণ  তরুণী  প্রেমে   পরত  একে  অপরের  প্রতি  আসক্ত  হত  তিনি  তাদের  গোপনে  দেখা  করার  সুযোগ  করে  দিতেন …সর্বপরি  চার্চ  এ  নিয়ে  নিজের  দায়িত্বে  তাদের  গোপনে  বিয়ে  পরিয়ে  দিতেন  তত্কালীন  অভিভাবক  সমাজ  তার  এই  কর্মকান্ডকে  পছন্দ  করতে  পারেননি  . ..তারা  যথাসময়ে  রাজার    কাছে  বিচার  নিয়ে  আসল  ফাদার   ভ্যালেনটাইন  আমাদের  সন্তানদেরকে  বিপথে  নিয়ে  যাছে

.যথাসময়ে  প্রসিকিউশন  তাকে  দোষী  সাব্যস্ত  করা  হলো ..এবং  তার   মৃত্যুদন্ড  দেওয়া   হলো  ১৪  থ  ফেব্রুয়ারী  তারপর  থেকে  ওয়ার্ল্ড  এর  সব  ভালোবাসাবাসি মানুষ  এই দিনটাকে  তারা  মনে  করা  সুরু  করলো  ভালবাসা  দিবস  বা  ভ্যালেনটাইন  ডে …বাস্তবে  এটা  হছে  শোক   দিবস  একজনের  ডেথ অন্নিভের্সারী …বুজেছ তুমি

ঠিক  আছে  বুজলাম  এত  ইতিহাস  ঘাটার  দরকার   কি  সোনামনি

তুমি  আর  আমি  এই দিনে দুজন  দুজনের  জন্য  সামান্য  কিছু  করে  আনন্দ কিনে

হ্যাপি  হওয়া  বা  হ্যাপি  করার  চেষ্টা  করলে …এটাতে  দোষ কি কোনো দোষ নাই

যাও . আজকে থেকে  সুধু  লাভ আর   লাভ

এখন  থেকে   সুধু  লাভ  এর সাকোতে  হাটবো.

ভ্যালেনটাইন  ডে  র  আলোকে  চলব

অবশেষে এই কবিতা স্বামী ও স্ত্রী প্রজাপতি আর সুরাইয়ার জন্য

ভালবাসা দিবস কে নিয়ে আমি

ভালবাসা দিবস কে নিয়ে আমি
ভালবাসা দিবস
আমি
কোনো ফ্রেম এ নির্দিষ্ট
করতে চাইনা আবদ্দ

আমি ভালবাসি ক্ষণ
প্রতি মুহূর্ত
ভালবাসি রাত্রি
দিন
প্রতি দিন

ভালবাসি যা সুন্দর যত নির্মল

আমি ভালবাসি প্রকৃতি
ভালবাসি আকাশ
ভালবাসি বাতাস
আমি ভালবাসি প্রগতি
ভালবাসি আমার প্রানের প্রনতি

৮৯১ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
নিজের সম্পর্কে কিছু বলতে বললে সবসময় বিব্রত বোধ করি। ঠিক কতটুকু বললে শোভন হবে তা বুঝতে পারিনা । আমার স্বভাব চরিত্র নিয়ে বলা যায়। আমি খুব আশাবাদী একজন মানুষ জীবন, সমাজ পরিবার সম্পর্কে। কখনো হাল ছেড়ে দেইনা। কোনো কাজ শুরু করলে শত বাধা বিঘ্ন আসলেও তা থেকে বিচ্যুত হইনা। ফলাফল পসিটিভ অথবা নেগেটিভ যাই হোক শেষ পর্যন্ত কোন কাজ এ টিকে থাকি। জীবন দর্শন" যতক্ষণ শ্বাস ততক্ষণ আশ " লিখালিখির মূল উদ্দেশ্যে অন্যকে ভাল জীবনের সন্ধান পেতে সাহায্য করা। মানুষ যেন ভাবে তার জীবন সম্পর্কে ,তার কতটুকু করনীয় , সমাজ পরিবারে তার দায়বদ্ধতা নিয়ে। মানুষের মনে তৈরী করতে চাই সচেতনার বোধ ,মূল্যবোধ আধ্যাতিকতার বোধ। লিখালিখি দিয়ে সমাজে বিপ্লব ঘটাতে চাই। আমি লিখি এ যেমন এখন আমার কাছে অবাস্তব ,আপনজনের কাছে ও তাই। দুবছর হলো লিখালিখি করছি। মূলত জব ছেড়ে যখন ঘরে বসতে বাধ্য হলাম তখন সময় কাটানোর উপকরণ হিসাবে লিখালিখি শুরু। তবে আজ লিখালিখি মনের প্রানের আত্মার খোরাকের মত হয়ে গিয়েছে। নিজে ভালবাসি যেমন লিখতে তেমনি অন্যের লিখা পড়ি সমান ভালবাসায়। শিক্ষাগত যোগ্যতা :রসায়নে স্নাতকোত্তর। বাসস্থান :টরন্টো ,কানাডা।
সর্বমোট পোস্ট: ২২৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৬৮৩ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-০৫ ০১:২০:৩৫ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালবাসা নিয়ে ভালবেসে ভালই লিখেছেন
    ভালো লাগলো ।

  2. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    ভ্যালেন্টাইন দিবসের ব্যাখ্যা থেকে প্রেমের প্রগতি–ভাল লেগেছে গল্প।

  3. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ
    ভালো লাগলো আমার ও
    আপনাদের মতবাদ

  4. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর হয়েছে ।
    অনেক অনেক ভাল লাগল ।

  5. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালই লিখেছেন।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top