Today 08 Apr 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

একটু সাবধান থাকবেন

লিখেছেন: আনোয়ার জাহান ঐরি | তারিখ: ২৩/০৪/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 788বার পড়া হয়েছে।

index

গরমের শুরুতে একধরনের মুখের রোগ হয়। অ্যাপথাস আলসার নামের এ রোগ সাধারণত গাল বা ঠোঁটে হয়। তবে এটি নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। গুরুতর মনে হলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।
অ্যাপথাস আলসার হওয়ার কারণ—
. অসাবধানতাবশত মুখের ভেতরে (বিশেষত গালের নরম অংশে) কামড় লাগলে।
. খাবার খেতে গিয়ে ধারালো কোনো খাবারের কণার ধাক্কা লেগে।
. শরীরে ভিটামিন ‘সি’ ও ‘বি’-এর অভাব হলে। মুখের ভেতরের চামড়া দুর্বল হয়ে ধাক্কা বা জোরে আঘাত লেগে কেটে যেতে পারে।
. ধূমপায়ী ও মাদকদ্রব্য খায়, এমন ব্যক্তিদের পুরো শরীরের অঙ্গ দুর্বল হয়ে যায়। গালের ভেতরের নরম অংশগুলো প্রায়ই উঠে যায়।
. অসাবধানতাবশত খুব গরম খাবার খেয়েও গালের চামড়া উঠে ঘা হতে পারে।
. দীর্ঘদিন জ্বর হওয়ার পরে অনেকেরই ঠোঁটের কোণে ঘা, গালে বা মুখের নরম তালুতে অ্যাপথাস আলসার হয়।
. অতিরিক্ত ডায়রিয়া হলে পানিশূন্যতা হয়। পানিশূন্যতার কারণেও অনেকের অ্যাপথাস আলসার হতে পারে।
. অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, বিষণ্নতায় এই ঘা হয়।

অ্যাপথাস আলসারের লক্ষণগুলো
. গালের ভেতরে বা নরম তালুতে ছোট্ট গোল অংশে চামড়া উঠে যায়। এই ছোট্ট গোল অংশটিতে প্রচণ্ড ব্যথা ও জ্বালাপোড়া থাকে। চুলকানির সঙ্গে ব্যথা হতে পারে।
. ছোট্ট গোলাকার অংশে পুঁজ জমে অনেক ব্যথা হয়।
. পুঁজ বেশি জমে গেলে দুই সপ্তাহের মতো স্থায়ী হতে পারে।

কীভাবে প্রতিকার করবেন
. যেকোনো মাউথ ওয়াশ দিয়ে মুখের আক্রান্ত স্থানে ভালোভাবে কুলি করতে হবে। মাউথ ওয়াশ না থাকলে খাবার লবণ হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে গড়গড়া করতে হবে দিনে তিন-চারবার। অনেক সময় গলা বা টনসিলের ইনফেকশন থেকেও অ্যাপথাস আলসার হয়। তাই ভালোভাবে গড়গড়া করলে মুখসহ গলার রোগজীবাণুও মারা যাবে।
. যেকোনো রকমের নেশাজাতীয় দ্রব্য (চুন, সুপারি, জর্দা, তামাকপাতা, বিড়ি, হুঁকা, সিগারেট, মাদকদ্রব্য) বাদ দিতে হবে।
. একই ব্রাশ এক বছরের বেশি ব্যবহার করবেন না। কিছুদিন পরপর ব্রাশ হালকা লবণ মেশানো গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন, এতে রোগজীবাণু মরবে।
. বাঁকা দাঁতবিশিষ্ট ব্যক্তিদের সমস্যা হয় বেশি। তাই বাঁকা দাঁতের ব্যক্তিরা সাবধানতার সঙ্গে খাবার চিবিয়ে খান।
. যেকোনো মৌসুমের ভিটামিন ‘বি’ ও ‘সি’ সমৃদ্ধ খাবার (যেমন: সবুজ, হলুদ রঙের টাটকা শাকসবজি, টক ফল, তবে তেঁতুল নয়। তেঁতুলে মুখের চামড়া আরও বেশি উঠে যাবে। লালচে গমের আটা, লালচে মোটা চাল—এগুলোতে ভিটামিন ‘বি’ থাকে) খেতে হবে।
. করলার তরকারি, তেতো মেথির শাক, মেথির গুঁড়া, চিরতার রস খেলে এর জীবাণু দ্রুত মরে।
. ঘায়ে বেশি ব্যথা হলে প্যারাসিটামল ভরা পেটে অর্ধেক বা একটি খেতে পারেন।
. ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকলেও যেকোনো স্থানে ঘা হয়। তাই নিয়মিত ডায়াবেটিস মাপুন।
. কিডনির জটিলতায় ভুগছেন, এমন ব্যক্তিরা অ্যাপথাস আলসার হলে চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত ব্যথা কমানোর ওষুধ খাবেন না।

৭৮৪ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ৫৪ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৭-০২ ১১:৫৫:৩৪ মিনিটে
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব উপকারী তথ্য।
    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।
    শুভেচ্ছা জানবেন।

  2. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক উপকারী তথ্য ভাই
    আপনাকে সহস্র ধন্যবাদ
    সুন্দর পোষ্ট
    ,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,নাইস

  3. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক ধন্যবাদ সময়োপযোগী উপকারী তথ্য পোস্ট করার জন্য ।
    আশা করি অনেকেই পোস্টটি পড়ে সচেতন হবেন ।

  4. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল কথা
    ভাল পোষ্ট

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top