Today 21 Jul 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

এতটা সময় কোথায় পাব?

লিখেছেন: আলমগীর কবির | তারিখ: ১৬/০৭/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 825বার পড়া হয়েছে।

(এক)
এতটা সময় কোথায় পাব যে তোমাকে আরও দেব?
পরমায়ুর অনেকটা সময় তোমাকে সমর্পণ করেছি,
তোমার কৃষ্ণকেশ ফুলেল শোভায় শোভিত করবে বলে,
তুমি শোভিত করনি তব কেশকে,
পদদলিত করেছো স্ব-কেশের কৃষ্ণশোভাকে।
তুমি দাও আমার সে সময়কে,
ওর হাতে ধরিয়ে দেব কবিগুরুর শেষের কবিতাকে।
যে কবিতার শেষ নেই শুধু আছে শুরু।

(দুই)
এতটা সময় কোথায় পাব যে তোমাকে আরও দেব?
পরমায়ুর অনেক খন্ড, খন্ড খন্ড করে তোমায় দিয়েছি,
যে খন্ডগুলো অখন্ড হয়ে তোমার গলায় শোভা পাবে বলে,
তুমি শোভিত করনি তাকে করেছো কক্ষচ্যুত;
তার অসমান্য অখন্ডতাকে।
তুমি দাও আমার সে সময়কে,
ওর হাতে আমি তুলে দেব বিদ্রোহী কবির আগুনকে
যে আগুনে দগ্ধ হবে অসময়ের তুচ্ছতা।

(তিন)
এতটা সময় কোথায় পাব যে তোমাকে আরও দেব?
সময়ের হাত ধরে অনেকটা সময় তোমাকে দিয়েছি;
তোমার সময়ের কিছুটা সময় সুন্দর সময় পাবে বলে।
আমার সে সময়ের সাথে তুমি তোমার অসময়কে দিয়েছে।
তুমি ফিরিয়ে দাও আমার সে সময়কে!
আমি ওর হাতে অসময়ে চলে যাওয়া অসমাপ্ত কবিতা তুলে দেব।
তাতে সময় পাবে সমাপ্ত কবিতার অসমাপ্ত জীবন,

(চার)
এতটা সময় কোথায় পাব যে তোমাকে আরও দেব?
পরিপাটি করে গুছিয়ে অনেকটা সময় তোমাকে দিয়েছি।
ইচ্ছে মত তাকে তুমি বন্ধু বানাবে বলে,
ইচ্ছে মত তাকে তুমি মন পবনের মনন বানাবে বলে,
তোমার অলঙ্কারের অহঙ্কার বানাবে বলে।

তুমি তাকে বন্ধু বানাওনি, ঠেলে দিয়েছো বন্ধুর পথে,
তাকে তুমি মনন বানাওনি, মনোনিত করেছো অমনোনিত খেরো খাতায়;
তাকে তুমি অলঙ্কার বানাওনি, বানিয়েছো অহঙ্কারের অলঙ্কার।
তুমি বরং সে সময়কে ফিরিয়ে দাও
ওর হাতে আমি তুলে দেব লাল আর সবুজের জ্বলন্ত শিখা।
দিগন্ত হতে দিগন্ত সে শিখা সূর্যরে করবে সাথী।

(শেষ)
তুমি তোমায় সময়কে জিজ্ঞেস কর
কি পেয়েছে আমার সময় থেকে?
কি দিয়েছে আমার সময়কে?
সেখানে পাবে তুমি
তোমার সময়ের পাওয়া না পাওয়ার অংক ।
আমার সময়ের দেওয়া না দেওয়ার প্রাপ্তি ।

আলমগীর কবির
দর্শনা
রতা ১১ টা ৪৭ মিনিট

৮১৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি আলমগীর কবির , জন্ম 1979 সালের 25 জানুয়ারী , গ্রাম-চাঁদপুর, ডাক-কন্যাদহ, হরিণাকুন্ডু, ঝিনাইদহ। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে হিসাব বিজ্ঞানে এমকম করার পর একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম-এ এমবিএ করি। বর্তমানে একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করি, প্রতিষ্ঠানের নাম ওয়েভ ফাউন্ডেশন। যখন কলেজে পড়তাম তখন থেকেই লেখালেখির খুব ইচ্ছা ছিল কিন্তু আত্ম বিশ্বাসের অভাবে হয়ে উঠেনি। রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের ছোট গল্প এবং হুমায়ুন আহম্মেদ, সুনীল গঙ্গোপধ্যায়, মানিক বন্দোপধ্যায় সহ বেশ কিছু লেখাকের উপন্যাস পড়তে খুব ভাল লাগে। আগে কবিতা পড়তে ভাল লাগত না তবে এখন ভাল লাগে।
সর্বমোট পোস্ট: ৬১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৪১ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৭-২৭ ০৯:৩৯:৩৮ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    এতটা সময় কোথায় পাব যে তোমাকে আরও দেব?
    পরমায়ুর অনেকটা সময় তোমাকে সমর্পণ করেছি,
    তোমার কৃষ্ণকেশ ফুলেল শোভায় শোভিত করবে বলে,
    তুমি শোভিত করনি তব কেশকে,

    চমৎকার কিছু কবিতা লিখলেন আলমগীর ভাই। অনেক ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা রইল।

  2. আলমগীর কবির মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ আরজু আবারও সামর্থে্যর সমর্থন যোগানোর জন্য।

  3. হামি্দ মন্তব্যে বলেছেন:

    চমৎকার কিছু কবিতা। অনেক ধন্যবাদ ………………..

  4. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    অনবদ্য কবিতা গুচ্ছ ।
    বেশ ভালই লাগল

  5. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    সুলিখিত কবিতাটি একটু বড় হলেও পড়গতে ভাল লেগেছে।
    সাইটে সচরাচর একটু পরিমান সাইজ কবিতা হলে ভাল হয়।
    আপনার প্রকাশ ভঙ্গি বেশ সাবলীল। ভাল লাগে।
    ।াভনন্দন ও শুভেচ্ছা রইল।

  6. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    পড়ে ভাল লাগলো

    বেশ ছৎসকার লিখনী

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top