Today 31 Mar 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

এবার পরীক্ষায় নকল ধরবে ড্রোন!

লিখেছেন: অনিরুদ্ধ বুলবুল | তারিখ: ১০/০৬/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 698বার পড়া হয়েছে।

Drone

ড্রোনের ব্যবহার যে কত রকমের হতে পারে সেটা এবার বোঝা যাবে। চীনে পরীক্ষায় নকল বন্ধ করতে ব্যবহার করা হবে ড্রোন। চীনের ন্যাশনাল কলেজ এন্ট্রান্স পরীক্ষায় নকল ঠেকাতে ব্যবহার করা হবে এই প্রযুক্তি। চীনা ভাষায় এই পরীক্ষাকে বলা হয়ে ‘গাওকাও’। পৃথিবীর অন্যতম কঠিন এবং প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা বলা হয় এটিকে।

চীনের হেনান প্রদেশের লুইয়াং শহরে দুই দিনব্যাপী এই পরীক্ষায় ব্যবহার করা হবে ড্রোন। আর এই পরীক্ষায় অংশ নেবে প্রায় এক কোটি শিক্ষার্থী। তারা কেউ যেন পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন না করতে পারে সেটা নিশ্চিত করবে ড্রোন।

চীনে এ ধরনের পরীক্ষাগুলো অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক হয়। ২০১৪ সালে পরীক্ষায় পাস করতে না পেরে চীনে ৭৯ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রবেশিকা পরীক্ষা হিসেবে এ পরীক্ষাগুলো নেওয়া হয়। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পায় শিক্ষার্থীরা।

আর সে কারণেই এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য নানা রকম প্রতারণার আশ্রয় নেয় শিক্ষার্থীরা। পরীক্ষায় নকল করতে ক্যামেরার সাথে সংযুক্ত চশমা, কলমের সাথে সংযুক্ত এয়ার ফোন, মোবাইল ফোন লুকানোর জন্য বিশেষ টি-শার্ট ব্যবহারের নজিরও রয়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট ম্যাশেবল জানিয়েছে, এসব উন্নত প্রযুক্তির নকল ঠেকাতে লুইয়াংয়ের রেডিও কর্তৃপক্ষ বিশেষ ড্রোন তৈরি করেছে। এসব ড্রোন এক হাজার ৬৪০ ফিট উপর থেকে পরীক্ষার্থীদের ওপর নজর রাখবে। ৩১০ মাইল দূর থেকে ছবি পাঠাতে পারবে এসব ড্রোন।

ড্রোনে যদি কোনো শিক্ষার্থীকে অসদুপায় অবলম্বন করতে দেখা যায় তাহলে তাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। বিচারে দোষী প্রমাণিত হলে সাজা ভোগ করতে হবে। নকল করলে পরের তিন বছর আর এই পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না নকলবাজ শিক্ষার্থীরা।

 

তথ্যসূত্রঃ  http://www.now-bd.com/2015/06/06/408632.htm

৭০০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
কৈফিয়ত - তোমরা যে যা-ই ব'ল না বন্ধু; এ যেন এক - 'দায়মুক্তির অভিনব কৌশল'! যেন-বা এক শুদ্ধি অভিযান - 'উকুন মেরেই জঙ্গল সাফ'!! প্রতিঘাতের অগ্নি-শলাকা হৃদয় পাশরে দলে - শুক্তি নিকেশে মুক্তো গড়ায় ঝিনুকের দেহ গলে!! মন মুকুরের নিঃসীম তিমিরে প্রতিবিম্ব সম - মেলে যাই কটু জীর্ণ-প্রলেপ ধূলি-কণা-কাদা যত। রসনা যার ঘর্ষনে মাজা সুর তায় অসুরের দানব মানবে শুনেছ কি কভু খেলে হোলি সমীরে? কাব্য করি না বড়, নিরেট গদ্যও জানিনে যে, উষ্ণ কুসুমে ছেয়ে নিয়ো তায় - যদি বা লাগে বাজে। ব্যঙ্গ করো না বন্ধু আমারে অচ্ছুত কিছু নই, সীমানা পেরিয়ে গেলে জানি; পাবে না তো আর থৈ। যৌবন যার মৌ-বন জুড়ে ঝরা পাতা গান গায় নব্য কুঁড়ির কুসুম অধরে বোলতা-বিছুটি হুল ফুটায়!! ভাল নই, তবু বিশ্বাসী - ভালবাসার চাষবাসে, জীবন মরুতে ফুটে না কো ফুল কোন অশ্রুবারীর সিঞ্চনে। প্রাণের দায়ে এঁকে যাই কিছু নিষ্ঠুর পদাবলী: দোহাই লাগে, এ দায় যে গো; শুধুই আমার, কেউ না যেন দুঃখ পায়।
সর্বমোট পোস্ট: ১৪৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪২২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৫-০২-১৪ ০২:৫৯:৫৩ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    গাওকাও ………..ইজ নাইস পদ্ধতি

    আপনার ভাবনা বেশ

    ভালো লাগলো কবি

  2. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    ঠিক বলেছেন –
    থামাতে নকলের ‘হাউকাউ’
    পদ্ধতি চাই ‘গাউকাউ’।

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর কার্যকরী পদ্ধতি

    এরার যে কত বুদ্ধি বাপ্রে

    শেয়ারের জন্য ধন্যবাদ

  4. সুমন সাহা মন্তব্যে বলেছেন:

    বাহ্! দারুণ বুদ্ধি ফেঁদেছে।

    যেহেতু অনেক দামী একটা জিনিস এক্ষেত্রে কাজে লাগাচ্ছে, সুতরাং ধরা খেলে মাশুলও বেশি দিতে হবে।

    শেযার করার জন্য ধন্যবাদ আপনাকে। জানা হলো।

    শুভ সকাল সুপ্রিয়।

    শুভেচ্ছা জানবেন।

    ভালো থাকবেন। সবসময়।

  5. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    বেশ কার্যকরী একটি পদ্ধতি ! আমাদের দেশে সবার আগে প্রয়োজন ছিল ! 😛
    ছাত্র-ছাত্রীদেরকে এসব কাজে আজকাল কিনা কিছু শিক্ষকও সহায়তা করছে ! :(
    ভাবতেই কষ্ট লাগে ! দেশের শিক্ষাব্যবস্থা দিনে দিনে কোথায় যাচ্ছে ?

    খুব সুন্দর বিষয়টি শেযার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

    • অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

      ভাবনা নেই – চায়না যখন প্রযুক্তি কাজে লাগিয়েছে,
      লাগসই মনে হলে আমাদের দেশে খুব দ্রুতই এসে যাবে।
      সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ কবি। ভাল থাকুন।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top