Today 24 Sep 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

কভেন্ট্রি ভ্রমন: কন্যার সাথে কিছুক্ষণ (পর্ব-২)

লিখেছেন: শওকত আলী বেনু | তারিখ: ০৫/০৪/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 456বার পড়া হয়েছে।

ঘন্টা খানিকের মধ্যেই পাতালরেল দিয়ে পৌঁছে গেলাম সেন্ট্রাল লন্ডনের ইউষ্টন স্টেশন।এখানে এর আগেও এসেছি। তবে আজ বাড়তি আনন্দটা ঝেঁকে বসছে কন্যা সাথে থাকায়।ইউষ্টন সেন্ট্রাল লন্ডনের ব্যস্ততম রেলওয়ে স্টেশনগুলোর একটি।এইটি যুক্তরাজ্যের ষষ্ঠ ব্যস্ততম এবং একই সাথে লন্ডনের প্রথম ইন্টারসিটি রেলস্টেশন যার যাত্রা শুরু হয় ১৮৩৭ সালের ২০ জুলাই। আঠারোটি প্লাটফর্ম নিয়ে গঠিত এই ব্যস্ততম স্টেশনটি দিয়ে ২০১৩-১৪ বছরে যাত্রী উঠানামা করেছে প্রায় ৪০ দশমিক ৪৬ মিলিয়ন। লন্ডন থেকে ওয়েস্ট মিডল্যান্ডস, নর্থ-ওয়েস্ট এবং নর্থ ওয়েলস যাত্রার প্রধান ‘গেইটওয়ে’ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে গুরুত্বপূর্ণ এই স্টেশনটি।

হাতে আমাদের এখনও প্রচুর সময় রয়েছে। কভেন্ট্রিতে যাওয়ার নির্ধারিত ট্রেন ধরতে এখনও প্রায় চল্লিশ মিনিট বাকি।কন্যার আগ্রহে তাই কিছুক্ষণ ঘুরে নিলাম স্টেশন থেকে বেরিয়ে আশপাশ এলাকায়।স্টেশনের মেইন গেইট থেকে তোলা এই ছবিটি রবার্ট স্টিফেনসন এর ভাস্কর্য (১৮০৩-১৮৫৯) যিনি একজন বিশ্বখ্যাত ইংরেজ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার যার পিতা ছিলেন জর্জ স্টিফেনসন বাষ্পচালিত রেলইঞ্জিন আবিষ্কারক। ভাস্কর্যটির পাশেই দেখা মিললো একদল এশিয়ান পর্যটক।এরা গাইড নিয়ে ঘুরছে।

অপেক্ষার পালা শেষ। যথাসময়ে ট্রেনও এসে গেল।আট নম্বর প্লাটফর্মে যেতে হবে আমাদের। ট্রেনটি যাবে বার্মিংহাম নিউ স্ট্রিট।আমাদের গন্তব্য মাঝপথে কভেন্ট্রি স্টেশন।দুইদিন পূর্বেই টিকিট কেটে রাখা হয়েছিল। সুবিধা মতো দুটো সীট নিয়ে বসে গেলাম বাবা-মেয়ে।শহর ছেড়ে রেলগাড়ি চলছে এখন মুক্ত বিহঙ্গের মতো। ঝিক ঝিক ছন্দবদ্ধ আওয়াজে। কিছুক্ষণের মধ্যেই দেখা গেল ঠমক মারা আকাশে সাদা-কালো মেঘের ফাঁকে স্বর্ণালী রোদের এক অদ্ভূত মিলন খেলা।এই যেন শ্বাশত বাংলার শরতের স্বচ্ছ নীল আকাশ। মনের অজান্তেই কবিগুরুর এই গানটি বারবার দোল খাচ্ছে-

‘আজ ধানের ক্ষেতে রৌদ্রছায়ায় লুকোচুরি খেলা রে ভাই, লুকোচুরি খেলা।
নীল আকাশে কে ভাসালে সাদা মেঘের ভেলা রে ভাই– লুকোচুরি খেলা’॥

নিচের ছবিটি ট্রেন থেকে তোলা একটি বিস্তীর্ণ খোলা সবুজ মাঠের।

না, সবুজ ধান খেতের সমারোহ নেই এইখানে।রয়েছে রাস্তার দুই পার্শ্বে বিস্তীর্ণ খোলা সবুজ মাঠ আর দূরে সারিবাঁধা ঝাউবনের আস্তানা।কিছুদিন পরেই এই সবুজ মাঠগুলো ভরে উঠবে সর্ষে ফুলের হলুদ হাঁসি আর মৌমাছির চিরাচরিত গুঞ্জনে। কখনও কখনও চোঁখে পড়ছে ভেড়ার পাল সাথে ঘোটক-ঘোটকীর দল। ঘন্টা খানিকের মধ্যেই আমরা পৌঁছে গেলাম কভেন্ট্রি স্টেশনে।

আমাদেরকে আগেই নির্দেশনা দেয়া ছিল কভেন্ট্রি স্টেশনে থাকবে সবুজ উনিফর্মে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি যারা দিকনির্দেশনা দিবে। সামনে কিছুটা এগোতেই চোঁখে পড়লো চটপটে দুই তরুণী সবুজ উনিফর্মে দাঁড়িয়ে আছে ভিড়ের মাঝে সরু পথটির কোল ঘেঁষে। দেখে মনে হলো আমরাই ওদের টার্গেট। হলোও তাই। চটপট ভঙ্গিমায় চমত্কার অভ্যর্থনা। ওরাই আমাদেরকে দেখিয়ে দিল স্টেশনের গেটে ইউনিভার্সিটির গাড়ি অপেক্ষা করছে ওটা দিয়েই যেন আমরা চলে যাই ক্যাম্পাসে। আমাদের মতো আরো কয়েক জনকে পেলাম একই গাড়িতে।

ক্রমশ….

 

 

৪৪৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
লেখালেখি করি।সংবাদিকতা ছেড়েছি আড়াই যুগ আগে।তারপর সরকারী চাকর! চলে যায় এক যুগ।টের পাইনি কী ভাবে কেটেছে।ভালই কাটছিল।দেশ বিদেশও অনেক ঘুরাফেরা হলো। জুটল একটি বৃত্তি। উচ্চ শিক্ষার আশায় দেশের বাইরে।শেষে আর বাড়ি ফিরা হয়নি। সেই থেকেই লন্ডন শহরে।সরকারের চাকর হওয়াতে লেখালেখির ছেদ ঘটে অনেক আগেই।বাইরে চলে আসায় ছন্দ পতন আরো বৃদ্বি পায়।ঝুমুরের নৃত্য তালে ডঙ্কা বাজলেও ময়ূর পেখম ধরেনি।বরফের দেশে সবই জমাট বেঁধে মস্ত আস্তরণ পরে।বছর খানেক হলো আস্তরণের ফাঁকে ফাঁকে কচি কাঁচা ঘাসেরা লুকোচুরি খেলছে।মাঝে মধ্যে ফিরে যেতে চাই পিছনের সময় গুলোতে।আর হয়ে উঠে না। লেখালেখির মধ্যে রাজনৈতিক লেখাই বেশি।ছড়া, কবিতা এক সময় হতো।সম্প্রতি প্রিয় ডট কম/বেঙ্গলিনিউস২৪ ডট কম/ আমাদেরসময় ডট কম সহ আরো কয়েকটি অনলাইন নিউস পোর্টালে লেখালেখি হয়।অনেক ভ্রমন করেছি।ভালো লাগে সৎ মানুষের সংস্পর্শ।কবিতা পড়তে। খারাপ লাগে কারো কুটচাল। যেমনটা থাকে ষ্টার জলসার বাংলা সিরিয়ালে। লেখাপড়া সংবাদিকতায়।সাথে আছে মুদ্রণ ও প্রকাশনায় পোস্ট গ্রাজুয়েশন।
সর্বমোট পোস্ট: ২০৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৫১৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-১৭ ০৯:২৪:৩১ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    ধারাবাহিক ভ্রমণ কথা ভাল লাগছে ! বাকি পর্বের অপেক্ষায়…
    লিখতে থাকুন……

  2. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    তৌহিদ ভাইয়ের সাথে একমত পোষণ করলাম
    বেশ ভাল চিন্তা ভাবনার লিখনী
    সুন্দর ভ্রমণ

  3. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর বর্ণনাঘন ভ্রমনবৃত্তান্ত সেই সাথে সুন্দর ছবিতে পোস্টটি বেশ মনোগ্রাহী হয়েছে।
    কবিকে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাই।

  4. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    উফ অসম্ভব সুন্দর লেখা আর ছবি

  5. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর লেখা আর ছবি

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top