Today 27 Jun 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

কাব্যগল্প: আমাকে এক কাপ চা খাওয়াবেন?

লিখেছেন: এস কে দোয়েল | তারিখ: ২৩/০৬/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 499বার পড়া হয়েছে।

ছোট্ট একটা চায়ের হোটেল,

১০-১৫ টি বেঞ্চ নিয়ে টিনের ছাঁপড়ার বেশ বড়ই ঘরটি,

ক্যাশ টেবিলে বসে আছে ১৯-২১ বয়সের কুমারী একটা মেয়ে,

বেশ সুন্দর দেখতে;গোলগাল মুখে শ্রীতে হাসির অপূর্ব আকর্ষণ,

হাসির মাঝে আছে ফুল ফোঁটার পাপড়ী মেলানো অপরুপ শোভা,

চোখ পড়লে ফিরানোই মুশকিল হয়ে যায়;

পরনে কালোর ভিতর ফুটিফুটি সাদা বৃত্তের ফুল,

সাদা স্যালোয়ার,দুহাতে চারটি বালা,কানে ছোট ছোট দুল,

নাক ফুটো,নাকফুল পরলে মারাত্নক লাগতো; হয়তো বিয়েই করেনি-

উত্তপ্ত ফাল্গুনের রোদ্রজ্জল দুপুর;তীর্যক সূর্যের কিরণ ছড়ানো আলোক রশ্মি,

প্রকৃতির বুকে ঝড়ছে যেন চৈত্রের সূর্যের অগ্নি কিরণ বৃষ্টি!

 

ছোট্ট চায়ের হোটেল;

সাত-আট বছরের কিশোরী স্নিগ্ধা টেবিল মুছে পানি এনে সাজায়,

কাচের গ্লাসে স্বচ্ছ মিষ্টা ঠান্ডা পানি,বেঞ্চ ভরা যুবকের দল,

বৃদ্ধও আছে,হাতের আঙুলের ফাঁকে জ্বলতে থাকে বিড়ি-সিগারেটের ধুয়াচ্ছন্ন আগুন,

কিশোরী স্নিগ্ধা হেকে যায়,ভাই কার কি চাই?

কিছু উন্মাদ যুবক অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে যন্ত্রের মত,

যৌবনা কুমারী বামপাশের ওড়নায় ঢাকনাহীন খাঁড়া স্তনের দিকে,

ডানপাশের ঢাকা;একপাশে খোলাই রাখে,নইলে কাষ্টমার জোটা খুবই কষ্টের ব্যাপার;

কেউ কিছু বলেনা;শুধু চোখ তুলে কয়েক পলক তাকিয়ে তৃপ্তি নিয়ে ফিরে যায়,

বুড়োরাও তাকায়,এটার দিকে তাকালে নাকি বৃদ্ধের ইন্দ্রেও যৌবন জেগে উঠে,

কামিনী শরম পায় না; অভ্যস্ত হয়ে গেছে,মাঝে মাঝে ধর্মের কথা মনে পড়ে,

বাড়ীর নিজ ঘরে আয়নায় সামনে নগ্ন বুক বের করে মনে মনে বির বির করে বলে,

হায়রে নারীর কোমল বুক! এটাই কি পুরুষদের কাছে সবচে বেশী আকর্ষণ!!

 

তীর্ষক সূর্য কিরনে উত্তপ্ত দুপুর;

উসকো খুসকো চুলে কাঁধে ঝুলানো ব্যাগওয়ালা এক পান্থ পথিক,

হোটেলে এসে জানালার পাশে খালি বেঞ্চটায় উদাস ভঙি নিয়েই বসে,

ক্লান্ত শরীর,তৃষ্ণার্তে শুকিয়ে গেছে গলা,

গ্লাসের জল ঢকঢক করে মুখে ঢেলে ঢোক ঢোকে গিলে খায়,

শব্দের ভিতর ফুটে উঠে আমি তৃষ্ণার্ত পথিক,

অদ্ভূত দৃষ্টি নিয়ে তাকায় কামিনী তার চেয়ারে বসা থেকেই,

এই অদ্ভূত মানুষটি দেখতে কৌতুহলে শরীর ঝাকিয়ে যায় তার,

পান্থ পথিক,হাতে ক্যামেরা,ব্যাগের পকেট থেকে মাথা বের করে তাকিয়ে আছে,

অদ্যকালের দৈনিক দুটি পত্রিকা,একটি ডায়েরীর মুখও দেখা যায়,

ক্লান্ত ভরা চোখে পান্থ পথিক কিশোরী স্নিগ্ধাকে ডেকে বলে-

আমাকে এক কাপ খাওয়াবেন?

জ্বি,শুধু চা খাবেন,আর কিছু না?

কি কি আছে?

সিংগারা,সমুচা,পরোটা-পুরি,কেক,ঠান্ডা পেপসির সাথে বগুড়ার দই,

ভাতও আছে,কোনটা খাবেন বলুন?

হোটেলটা তোমাদের?

জ্বি,কেন?

মনে হচ্ছে তোমাদের,আচ্ছা আমাকে এক কাপ চা-ই দাও,

আচ্ছা বলে স্নিগ্ধা চা বানাতে যায়,

পান্থ পথিক চোখ তুলে তাকায় বাইরের আকাশের দিকে,

একঝাক সাদা পায়রা-বক কোথাও উড়তে উড়তে সাদা মেঘের সাথে মিশে যাচ্ছে

 

এক কাপ চা! এই যে ছোট্ট একটা হোটেল;

এখানে এসে কেউ কেউ ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটিয়ে দেয় চায়ের চুমুকে,

আড্ডা,গল্প,রাজনীতির হরেক রকম বিষয়ের প্রতি মগ্ন হয় মানুষ,

এক কাপ ছাড়া বন্ধুত্বের আপ্যায়ন হয়না,

আত্নীয়ের সমাদর হয় না,

বন্ধুদের সাথে গল্প রসাত্নক হয় না,

এই এক কাপ চায়ের বিনিময়েই বিক্রি হয়ে যায় কেউ কেউ,

বিক্রি করে নিজের মনুষ্যত্বকে,

অথচ এক কাপ চায়ের বেশী মূল্য নয়,

কি জাদু আছে এই এক কাপ চায়ের ভিতর!

কেউ ঈমান বিক্রি করে লিপ্ত হয় অনৈতিক কাজে,

বন্ধুর প্রতি বন্ধুর গীবত!

অথচ মানুষ কি জানে এই এক কাপ চায়ের মত মানব জীবনটাও,

প্রতিটি চুমুকের সাথে সাথে ফুরিয়ে যাচ্ছে এক একটি মুহুর্ত-দিন-মাস-বছর,

অত:পর একদিন শুন্যকাপের মতো অকেজো হয়ে পড়ে জীবনটাও,

এমন একটি শিক্ষা এক কাপ চায়ের ভিতর,

যা মানুষ কি কখনো ভেবে দেখেছে?

এই যে ভাই আপনার চা ঠান্ডা হয়ে গেল বলে কামিনী কুমারী,

ওহ্ হ্যা,আরেক কাপ দিবেন?

আচ্ছা আপনি কে বলুন তো,আপনাকে আমার ভাল লেগেছে,

এরকম হাজারো কাপের পর কাপ চা দিব আপনাকে,

দয়া করে এক আমার এ পেয়ালায় আপনার একটু ভালবাসা দিবেন?

১৪.০৩.২০১২

 

৪৯৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
এস.কে.দোয়েল সম্পাদক ও প্রকাশক আলোর ভূবন সাহিত্য ম্যাগাজিন এবং জাতীয় পত্রিকার ফিচার ও কলাম লেখক। তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড়।
সর্বমোট পোস্ট: ১৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৬-১৮ ১৮:১২:২৬ মিনিটে
Visit এস কে দোয়েল Website.
banner

২ টি মন্তব্য

  1. জসীম উদ্দীন মুহম্মদ মন্তব্যে বলেছেন:

    বেশ জমিয়েছেন প্রিয় কবি —- !

  2. সাখাওয়াৎ আলম চৌধুরী মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার সুন্দর কবিতা টিতে প্রাচ্যের কিছুটা আভাস পেলাম। যা খুবই বিমোহিত করেছে আমাকে।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top