Today 06 Aug 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

গল্পকবিতা : বেনসন প্যাকেটটা খোলা হয়নি এখনো

লিখেছেন: এস কে দোয়েল | তারিখ: ১৩/০৭/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1005বার পড়া হয়েছে।

বেনসন প্যাকেটটা খোলা হয়নি এখনো কবির
নন স্পট এ প্যাকেটটি এখনি খোলার প্রয়োজন কবির।
মাথাটা ভীষণ ধরেছে আজ,চোখ দুটো হয়েছে রক্তিম বর্ণ
একটি কবিতা লেখার জন্য, না অন্য কোন কারণে?
কবি বেনসন প্যাকেটটা হাতে নিয়ে বসে আছে ঘন সন্ধ্যার-
নদী মহানন্দার তীরে?

এই সেই মহানন্দা তীর ঘেসে দাঁড়িয়ে আছে ডাকবাংলো
বয়ে এসেছে মহানন্দা হিমালয়ের বুক চিরে,
নিবির শান্ত স্রোত মিষ্টান্ন পানি, চকচকে বালির ঝিলিক
রোদ্রের কিরণে ঝিরঝির বালি হয়ে উঠে এক একটি মুক্তদানা
রাতে চাঁদের জোছনায় মহানন্দা অপূর্ণায় সাজে মাধুরী বনলতায়
জোছনা আর জলের মিতালীতে হেসে উঠে আসমান-জমিন।

তীরে দাঁড়িয়ে থাকা তেতুলিয়া ডাকবাংলো
উত্তরে পর্বতচূড়া হিমালয়ের পাদদেশে দার্জিলিংয়ের অপরুপ শোভা
রাতে মিটিমিটি জ্বলে দার্জিলিংয়ের বুকে ইলেক্ট্রনিক ব্লাব,
দেখে মনে হবে রাতের আকাশে উড়ছে দার্জিলিংয়ের বুকে উড়ন্ত যান।
শিশির ঝরা ভোরে হিমালয়ের বুকে আরেক সৌন্দর্যের বিলাস
কাঞ্চনজঙা হাতছানি দিয়ে ডাকে রুপের পসরা ছড়িয়ে।

কবি বেনসন প্যাকেটটা পকেট থেকে বের করে ডান হাতে রাখে
খুলে সিগারেটটা ধরানোর জন্য মনটা কেমন অস্থির হয়ে উঠছে,
প্যাকেটটা কিনে দিয়েছিল টি.এ.রিভার গত চারদিন হলো
আজ পঞ্চম দিন, এই পাঁচ সংখ্যা প্রাইম বলে খুব প্রিয় কবির।
আজই খুলতে হবে বেনসন প্যাকেটটি, নইলে সংখ্যা—
কবি আর ভাবতে পারছে না; তবু ভাবছে রিভার আজ তেতুলিয়ায় নেই,
ঢাকায় বৈশাখের নববর্ষ কাটাতে চলে গেছে ও,
থাকলে হয়তো ফোন করে জানতে চাইতো-বার্ড তুমি কোথায়?
কি করছ এখন, কোথায় আছ বল?
এই প্রশ্নগুলো আজ করবেনা সে,কারণ ঢাকায় শুরু হয়েছে কালবৈশাখী ঝড়!
প্রচন্ড ঝাঞায় ঢাকা নাকি কাঁপতে শুরু করেছে,
এমনিতেই ঢাকা পৃথিবীর সবচেয়ে বিপদজনক শহর,
যেকোন সময় শক্তিশালী ভূ-কম্পনে ধ্বংস হতে পারে শহরটি!

টি এ রিভার হলো হুমায়ুন আহমেদের রুপার মত,
কবির চোখে কলকাতার অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিকের মত
অবিকল চালচলনে কোয়েল মল্লিকের আচরন,
আর কথাবার্তায় রুপার মত মায়াবী স্বভাবের,
কবির কাছে এই দুই চরিত্র খুব অদ্ভূতই লাগে।
রিভার খুব ভীতু স্বভাবের মেয়ে,
ওর ভয় আকাশের বজ্রপাত, বাতাসের তীব্র গর্জন
এ দুটোর ভয়ে ও খুব শঙ্কিত থাকে,
মেঘের গর্জন শুরু হলে ওর আত্নায় পানি থাকে না,
কিন্তু আজ! ঢাকায় যে কালবৈশাখী ঝড় হয়েছে!
কবি ঘামচে, আর মহানন্দার জলের দিকে দৃষ্টি রাখছে।
আজ মহানন্দার জলে চাঁদের জোছনা নাই কেন?

এই সেই মহানন্দা।পাশেই ভারতের তারকাটা বেড়া,
সবুজ চা-বাগান।নদীর তীর ঘেসে ভারতের-
সারি সারি ল্যাপস্টের রাঙানো বাতি,
সারারাত সোনালী উজ্জ্বল আলোয় নদী মহানন্দাকে রাঙায়ে রাখে,
দেখে মনে হবে এ নদীর বুকে কোন আধুনিক শহর গড়ে উঠেছে।
শেষ বিকেলের হেলে পড়া সূর্যাস্তের অপরুপ মাধুর্য,
সেন্টমাটির্নে সমুদ্র সৈকতের সূর্যাস্তের মতই মনে হবে যেন পর্যটকদের কাছে।

নি:সঙ্গ কবি বসে আছে মহানন্দার তীরে,
ভারতের ল্যাম্পস্ট বাতিগুলো মহানন্দার জলে ঢেউয়ের সাথে নাচছে
উড়ছে জোনাকিরা, ডাকছে ঝিঝি পোকা, বইছে শীতল হাওয়া,
আজ ফুলের সুবাস নেই, প্রকৃতি তাই নিরানন্দ,
আকাশের বুকে তারা আছে, আলোও আছে,
তবু সে আলো পৃথিবীর বুকে নেমে আসছে না;
আকাশের চাঁদ থাকলে মহানন্দা জোছনার শাড়ী পড়তো,
দখিনা বাতাসে দেহ-শরীর জুড়িয়ে পরশ দিয়ে যেত
ক্লান্ত অবসাদগ্রস্ত কবির মনটা বেনসন থেকে বিরত রাখত!

কবি ভাবল এই বিষন্নতা মুহুর্তে বেনসন প্যাকেটটা খুলবে,
যদিও রিভার বেনসন খেতে ১৪৪ধারা নিষিদ্ধ জারি করেছে,
কিন্তু রিভার তো আজ নেই, ও তো ঢাকায়!
বেনসন প্যাকেটটা আসলে কিনে দিতে চায়নি রিভার,
কিন্ত সেদিন যে কি মনে হল আমার?
রাগত স্বরে বললাম- আমি এখন বেনসন সিগারেট টানব!
তুমি তো কখনো এসব খাওনা, হঠাৎ আ–?রিভার অবাক হয়ে বলছিল?
আমি বলছি বেনসন টানব আমার ভীষণ এটা টানতে ইচ্ছে করছে
তুমি এনে দাও, নইলে সরে যাও,
রিভারের সেদিন ছিল প্রিয় সূর্যাস্তের বিকেল।
এই আনন্দময় মুহুর্ত বার্ড (কবি) কি না ভাব শুরু করে দিল।
তবু রাগ হয়নি রিভারের, বার্ডকে বসিয়ে রেখে,
নিজেই নিয়ে এলো বেনসন প্যাকেটটি কিনে,
কাছে এসে হাসি মুখে বলল-এই নাও বেনসন প্যাকেট!
সেদিন আর টানা হয়নি, খোলাও হয়নি প্যাকেটটি।

কবি বেনসন প্যাকেটটি খুলতে উদ্ধত হল,
পকেট থেকে ম্যাচটা বের হতে চাইছে না সহজে,
দক্ষিণা-কোণে মেঘের আনাগোনা আর বাতাসের ঝাপটার আওয়াজ
পাশেই ভারতে হয়তো কালবৈশাখী ঝড়টা শুরু হয়ে গেছে,
এখন আর জোনাকিরা নেই, নেই আকাশের নক্ষত্ররাজির মিটিমিটি বাতি,
ক্ষণে ক্ষণে দমকা বাতাস বইতে শুরু করেছে,
মোবাইলটা বেজে উঠল ঠিক এই মুহুর্তে,
রিভারের কলার পিকচার ছবি,
ভেসে উঠছে এই অন্ধকারে মোবাইল আইকনে।
তাহলে কি ঢাকায় ঝড় থেমে গেছে!
হাতের অনামিকা আঙুলের চাপে রিসিভ হয়েছে কলটি,
ওপাশ থেকে রিভার বলছে-হ্যালো বার্ড, কথা বলছ না কেন?
কবি কথা বলে না, রিভার বলে যাচ্ছে হ্যালো বার্ড–হ্যালো–
কবি বাসার দিকে দ্রুত ছুটতে থাকে বাতাসের তোড়ে,
বেনসন প্যাকেটটা খোলা হল না আজও—-।

[বেনসন প্যাকেটটা দেওয়ার সময় রিভারের মুখে একটা দুষ্টমী হাসি ছিল। আসলে প্যাকেটটাতে সিগারেট ছিল, না অন্য কিছু?]

৯৯৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
এস.কে.দোয়েল সম্পাদক ও প্রকাশক আলোর ভূবন সাহিত্য ম্যাগাজিন এবং জাতীয় পত্রিকার ফিচার ও কলাম লেখক। তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড়।
সর্বমোট পোস্ট: ১৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৬-১৮ ১৮:১২:২৬ মিনিটে
Visit এস কে দোয়েল Website.
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    Porhlam
    bhabnar bistar
    suvechha
    bhalo thakben

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    বেনসন প্যাকেটটা খোলা হয়নি এখনো কবির
    নন স্পট এ প্যাকেটটি এখনি খোলার প্রয়োজন কবির।
    মাথাটা ভীষণ ধরেছে আজ,চোখ দুটো হয়েছে রক্তিম বর্ণ
    একটি কবিতা লেখার জন্য, না অন্য কোন কারণে?

    চমৎকার কবিতা টি লিখেছেন দোয়েল। ..শুভেচ্ছা রইল অনেক।

  3. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    চমৎকার

    তবে ধুমপান স্থাস্থের জন্য ক্ষতিকর

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top