Today 18 Nov 2017
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

চলন্তিকায় শততম পোস্ট এবং আমার কিছু ভাবনা

লিখেছেন: শওকত আলী বেনু | তারিখ: ২২/১০/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 507বার পড়া হয়েছে।

চলন্তিকায় আজ আমার এক বছর চার মাস পাঁচ দিন। এই সময়গুলোর মধ্যে নিরানব্বই টি পোস্ট দেয়া হয়েছে। আজকের এই লেখাটি দিয়েই একশ’টি পোস্টের সংখ্যায় পৌঁছে যাবে। কালের পরিক্রমায় শততম সংখ্যাটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করলেও ব্লগের লেখালেখিতে শততম পোস্টের আদৌ কোনো গুরুত্ব আছে কিনা আমার জানা নেই। আর চলন্তিকায় এই কয়দিনের যাত্রায় একশটি পোস্ট খুব একটা আহামরি কিছুই নয়। এই সময়ের মধ্যে দু’শ পোস্টিংও দেয়ার সুযোগ ছিল। তবু মনের ভিতর কেমন যেন একটা অনুভূতি কাজ করছে আজ। শততম পোস্টের সেই ভাবনা থেকেই মনের অগোছালো ও বিক্ষিপ্ত চিন্তাগুলো দিয়ে শততম পোস্টের পূর্ণতা করছি এই লেখাটির মাধ্যমে।

প্রবাসে এসে বাঙালি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবনের ছন্দপতনে হিমশীতল ভূখণ্ডে সব কিছুই যেন বরফের মত জমাটবেঁধে মস্ত আস্তরণ পড়েছিল দীর্ঘদিন ধরে।বছর দুই হল ওই আস্তরণের ফাঁকে ফাঁকে কচিকাঁচা ঘাসেরা লুকোচুরি খেলতে শুরু করে। শুরুটা হয় অনলাইন নিউজপোর্টাল প্রিয় ডটকম, আমাদেরসময় ডটকম ও বেঙ্গলিনিউস২৪ ডটকম-এ মূলত রাজনৈতিক বিশ্লেষণধর্মী লেখালেখির মাধ্যমে।আর হালে ব্লগিং অভিজ্ঞতার প্রথম ছোঁয়া লাগে চলন্তিকা ডটকম দিয়ে বছর খানেক পূর্বে। সেই থেকেই আমার ব্লগিংএ পথ চলা। এখন অবশ্য আরোকিছু ব্লগে ভিন্নধর্মী লেখালেখির মাধ্যমে বাংলা ব্লগের প্রসারতায় নিজকে অনেকটা জড়িয়ে ফেলেছি। সম্প্রতি অনলাইন নিউজপোর্টাল বহুমাত্রিক.কম-এর ইউকে এডিটর হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি।

চলন্তিকার প্রথম খোঁজ পাই আমাদেরসময় ডট কম-এ আমার লেখা প্রকাশের মন্তব্য কলামে চলন্তিকা থেকে লেখা দেয়ার আহবানের একটি প্রচারনামূলক লিঙ্কের মাধ্যমে। সূত্রের লিংক ধরে ঢুকে যাই চলন্তিকায়। খুঁজে পাই চলন্তিকা ডট কম। সেই থেকেই বাংলাব্লগ জগতে চলন্তিকার মাধ্যমে ব্লগিংএ আমার প্রথম যাত্রা শুরু।
আমি নিবন্ধন করেছি ২০১৩-০৬-১৭ ০৯:২৪:৩১ মিনিটে।

শুরুতে চলন্তিকা কেমন ছিল আমার জানা নেই। তবে গত এক বছর ৪ মাসের যাত্রায় যা দেখিছি তা নিয়ে কিছুটা বলতেই পারি। এই বছরের শুরুতে টেকনিক্যাল ইমপ্রুভমেন্ট করতে গিয়ে চলন্তিকা বেশ কিছুদিন বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে এগুচ্ছিল।ওই সময়টাতে আমার মতো অনেকেই ভাঁটার টানে হারিয়ে না গেলেও নিঁখুত প্রেমের টানে আবারও ঠাঁই করে নিয়েছে চলন্তিকায়। যদিও অনেকেই অন্যত্র ব্লগিং পরকীয়ায় মেতে আছে।আমিও।

শুরুতেই চলন্তিকা একটি সাহিত্য-সংস্কৃতি বিষয়ক বাংলাব্লগ বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে। রাজনীতি ছাড়া যে কোনো ক্যাটাগরির লেখাই চলন্তিকা ব্লগে দেয়ার সুযোগ রয়েছে। চলন্তিকার একটি বড় শর্ত হলো ‘এখানে যে কোন অরাজনৈতিক লেখা প্রকাশ করা যাবে’। তাঁর মানে দাঁড়ায় কোনো রাজনৈতিক লেখা চলন্তিকায় দেয়া যাবেনা। লেখার ক্যাটাগরিতে ‘রাজনীতি’ শব্দটি না থাকলেও বিবিধ ক্যাটাগরিতে আমি দুই একটা রাজনৈতিক লেখা পোস্টিং দিয়ে দেখেছি। রাজনৈতিক লেখা চলন্তিকার পাঠকরা খুব একটা আগ্রহ সহকারে গ্রহণ করতে চায়না। তাই বলছি মোটা দাগে চলন্তিকা একটি সাহিত্য-সংস্কৃতি বিষয়ক ব্লগ। আর চলন্তিকার অধিকাংশ ব্লগাররাই কবিতা-ছড়া, ছোট গল্প, বড় গল্প ( পিশাচ কাহিনী, কল্প কাহিনী, ভুতের গল্প) সহ কিছু সামাজিক কৌতুকপূর্ণ ও বাস্তবধর্মী লেখাও পোস্টিং দিয়ে যাচ্ছেন। যদিও চলন্তিকার সামগ্রিক লেখালেখির বিষয়ে আমার কাছে কোনো নির্দিষ্ট পরিসংখ্যান নেই।

ইদানিং মনে হচ্ছে চলন্তিকার খোলা প্রাণটা যেন হ্যাকিং হয়ে গেছে।একটা সময় ছিল যখন মন্তব্যের সাথে মজার আড্ডাও হতো।অসাধারণ এবং চমত্কার সব মন্তব্যর সাথে কুশল বিনিময়ও থাকত।আমার মনে পড়ে আমির হোসেন ভাই, মাহবুব ভাই, চারু মান্নান,তাপস কিরণ রায়, আব্দুর রহমান, মৌনী রোম্মান, আবদুল্লাহ আল নোমান, মনিরুল হাসান, আরজু মুন, নিঃশব্দ নাগরিক সহ আরো অনেকের মন্তব্য এবং সক্রিয় পদচারণা ছিল উত্সাহজনক। এদের অনেকেই এখনো আছেন এবং অনেক নতুন ব্লগারও এসেছেন। নতুনদের অনেকেই খুব ভালো লিখছেন। তবু কোথায় যেন একটা ভাঁটা লেগে আছে। এই বিষয়ে আমার সাথে অনেকেই একমত নাও হতে পারেন। চলন্তিকায় এখন যেভাবে পয়েন্ট ভাগাভাগি এবং পয়েন্ট কাটাকাটি নিয়ে প্রতিযোগিতা চলছে তাতে আমার মনে হয় ব্লগিং করার আসল উদ্দেশ্যটাই এক সময় নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এটা একটা সতর্ক বার্তা হিসেবেই আমি কর্তৃপক্ষের নজরে সবিনয়ে উপস্থাপন করছি। এটা আমার সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত মতামত। ব্লগিং একটি ক্রিয়েটিভ মুক্তমনা উঠোন। যে উঠোনে মুক্তমনারা আসে কিছু দিতে, পেতে নয়। যেখানে থাকবে মনের খোলা জানালা দিয়ে দেখা সৃজনশীল শিল্পের কারুকার্য। সমাজের অসঙ্গতি তুলে ধরার দীপ্ত প্রত্যয়। প্রতিটি ব্লগার এক একজন কলম যোদ্ধা। কলম যোদ্ধারা যুদ্ধ করে কলমের খোঁচায়। পয়েন্ট ভাগাভাগির মধ্য দিয়ে নয়।

হ্যা, এই কথা ঠিক যোদ্ধাদের স্বীকৃতি দেয়া কর্তৃপক্ষের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে। সেই জন্যে কর্তৃপক্ষকে আরো সৃজনশীল পদ্বতি অনুসরণ করে ব্লগারদের মধ্যে অনুপ্রেরণা জাগিয়ে তুলতে হবে। আশার কথা ইতিমধ্যেই কর্তৃপক্ষ চলন্তিকা সাহিত্য পদক, সেরা লেখক, সেরা সমালোচক ও সেরা প্রদায়ক পুরস্কার ঘোষণা করেছে। এইটা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। তবে যেভাবে ছোট-খাটো মন্তব্যের জন্যে নম্বর কাঁটার ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং পয়েন্ট বন্টনের টিপস পদ্বতি চালু করা হয়েছে তাতে বিষয়টি আমার কাছে মোটেই সৃজনশীল কর্ম বলে মনে হয়নি। এতে এই পদ্বতিকে ‘এবিউস’ করার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। এবং এতে করে মুক্ত ব্লগিং এর আসল উদ্দেশ্যটাই ব্যাহত হচ্ছে বলে আমার কাছে মনে হচ্ছে।

লেখার মন্তব্য কলাম থাকতেই হবে। একজন লেখকের ভাবনাকে আরো শানিত করে তোলে যদি তাঁর লেখার সমালোচনা করা হয়।অনেক সময় দেখা যায় মূল লেখার চেয়ে লেখার সমালোচনা ও মন্তব্য হয়ে উঠে আরো বেশি প্রানবন্ত, অনেক মজাদার, কৌতুহলী এবং কখনো কখনো রোমাঞ্চকর।লেখাটি হয়ে উঠে আরো বেশি জীবন্ত। কিন্তু সেই ভাবনাগুলোকে পিছনে ফেলে দিয়ে যদি শুধুমাত্র কর্তৃপক্ষের লোভনীয় টিপস ও বোনাস পাওয়ার উদ্দেশ্যে নিজের হালখাতা মোটাতাজা করার জন্যে কিনবা পয়েন্ট নেয়ার উদ্দশ্যে ছাইপাশ মন্তব্যে সময় নষ্ট করা হয় তাতে আর যাই হোক মুক্তমনের ব্লগিং করার উদ্দেশ্য সফল হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

একটি লেখার পুরোটা পড়ে মন্তব্য করাই ভালো।যে লেখাটি মনে ধরে কিংবা লেখার কোনো অসঙ্গতি চোখে পড়ে তখনই ব্লগার মন্তব্য করে থাকে। এটা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ব্যাপার। হতে পারে সেই মন্তব্য খুবই ছোট। তাতে কর্তৃপক্ষের মাথা ব্যথা থাকবে কেন? কর্তৃপক্ষকে দেখতে হবে মন্তব্যটি অশালীন অথবা কাউকে আঘাত দিয়ে লেখা হয়েছে কিনা। যেমন আমার কথাই যদি বলি। ছোট একটি ছড়া-কবিতা পড়ে ভালো লাগলে বলে দেই ‘বাহ চমত্কার লিখেছেন’ ! আমাকে ওই লেখাটির উপর বর্ণনা দিয়ে গদ্য লিখতে হবে কেন? তবে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি ইদানিং আমি লেখা পোস্টিং দিয়েই খালাস ! অনেকের মন্তব্যের প্রতিউত্তরও দেয়া হয়ে উঠেনা সময়ের অভাবে।এই জন্যে আজকের এই লেখার মাধ্যমে বন্ধুদের কাছ থেকে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগটিও হাত ছাড়া করতে চাইনা।

যাক আর কথা বাড়াবো না। নিজের লেখাগুলো কেমন হয়েছে এর বিচার তো বরাবরই পাঠক করবে। প্রিয় পাঠক এবং সহ ব্লগারবৃন্দ আপনারা যদি আগের মতই সাথে থাকেন চলতে থাকবে ক্ষুদ্র ব্লগারের ক্ষুদ্র প্রয়াস এই আশ্বাস রইল। আমার লেখাগুলো যারা পড়েছেন,মন্তব্য করেছেন সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। শুভেচ্ছা জানাচ্ছি চলন্তিকার ব্যাবস্থাপনা পরিচালক সহ ব্লগের সবাইকে।

হ্যাপি ব্লগিং !! সকলের জন্যে শুভ কামনা।

৪৯৯ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
লেখালেখি করি।সংবাদিকতা ছেড়েছি আড়াই যুগ আগে।তারপর সরকারী চাকর! চলে যায় এক যুগ।টের পাইনি কী ভাবে কেটেছে।ভালই কাটছিল।দেশ বিদেশও অনেক ঘুরাফেরা হলো। জুটল একটি বৃত্তি। উচ্চ শিক্ষার আশায় দেশের বাইরে।শেষে আর বাড়ি ফিরা হয়নি। সেই থেকেই লন্ডন শহরে।সরকারের চাকর হওয়াতে লেখালেখির ছেদ ঘটে অনেক আগেই।বাইরে চলে আসায় ছন্দ পতন আরো বৃদ্বি পায়।ঝুমুরের নৃত্য তালে ডঙ্কা বাজলেও ময়ূর পেখম ধরেনি।বরফের দেশে সবই জমাট বেঁধে মস্ত আস্তরণ পরে।বছর খানেক হলো আস্তরণের ফাঁকে ফাঁকে কচি কাঁচা ঘাসেরা লুকোচুরি খেলছে।মাঝে মধ্যে ফিরে যেতে চাই পিছনের সময় গুলোতে।আর হয়ে উঠে না। লেখালেখির মধ্যে রাজনৈতিক লেখাই বেশি।ছড়া, কবিতা এক সময় হতো।সম্প্রতি প্রিয় ডট কম/বেঙ্গলিনিউস২৪ ডট কম/ আমাদেরসময় ডট কম সহ আরো কয়েকটি অনলাইন নিউস পোর্টালে লেখালেখি হয়।অনেক ভ্রমন করেছি।ভালো লাগে সৎ মানুষের সংস্পর্শ।কবিতা পড়তে। খারাপ লাগে কারো কুটচাল। যেমনটা থাকে ষ্টার জলসার বাংলা সিরিয়ালে। লেখাপড়া সংবাদিকতায়।সাথে আছে মুদ্রণ ও প্রকাশনায় পোস্ট গ্রাজুয়েশন।
সর্বমোট পোস্ট: ২০৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৫১৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-১৭ ০৯:২৪:৩১ মিনিটে
banner

১৬ টি মন্তব্য

  1. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    একদম স্বচ্ছ ভাবনার লেখা
    কর্তৃপক্ষ ভাবুক ।
    পয়েন্ট আসুক আমার ঘরে ।

  2. কল্পদেহী সুমন মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার জন্যও শুভ কামনাা । আমি মনে করি কোন লেখকের সম্পূর্ণ লেখা পড়েই মন্তব্য করা উচিৎ। তাই হয়তো কর্তৃপক্ষ মন্তব্যের বিষয়ে একটু সচেতন। আমি মনে করি ব্লগের মান উন্নত করতে ও সকলের কাছে গ্রহণীয় করতে মন্তব্য, পোস্টিং ও নতুন সদস্য নিবন্ধনে আরও সচেতন হওয়া উচিৎ।

  3. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    চলন্তিকার শুভ কামনা করছি, লেখকের মত আমিও মনে করি, কোন লেখকের সম্পূর্ণ লেখা পড়েই মন্তব্য করা উচিৎ।

    • শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

      অনেক ধন্যবাদ আপনাকেও। আমি লক্ষ্য করেছি এক একজন প্রতি ৩০ সেকেন্ড কিংবা তারও কম সময়ের মধ্যে শুধু মন্তব্য করেই যাচ্ছেন একের পর এক । এত অল্প সময়ের মধ্যে কি লেখাগুলো পড়ে শেষ করা যায় ?

  4. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    বেনু ভাই সুন্দর করে অপ্রাসঙ্গিক বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন। মোবাইলে থাকায় বেশি লিখতে পারলাম না সরি।

  5. মো: মালেক জোমাদ্দার মন্তব্যে বলেছেন:

    বেনু ভাই সালাম নিবেন। আমি আপনার মূল্যবান লেখাটি পড়েছি। আমি অনেক দিন যাবৎ নিয়মিত ব্লগে আসতে পাড়ছিনা। আপনার শততম পোষ্টের জন্যে রইল অভিনন্দন। শুভেচ্ছা।

  6. মো: মালেক জোমাদ্দার মন্তব্যে বলেছেন:

    একটি পুরাতন পোষ্ট থেকে…………।।

    চিন্তার কথা
    লিখেছেন: মো: মালেক জোমাদ্দার | তারিখ: ২৫/০২/২০১৪ | Edit this entry.

    বাড়ির মালিক নেই! শওকত আলী বেনু ভাই খুবই ‍‍চিন্তায় ফেলে দিলেন।
    বাড়ির মালিকের কি অসুখ করলো নাকি ? আমাদের দেখতে যাওয়া দরকার।
    চলেন সবাই মিলে খুঁজতে বের হই। আমাদের প্রিয় আনোয়ারুল হক ভাইকে অশেষ ধন্যবাদ চলন্তিকা পরিচালনা করার জন্য এবং নতুন আঙ্গিকে চলন্তিকা আসছে সে আশার বানী শুনানোর জন্য।
    কিন্তু বর্তমানে খুবই চিন্তায় আছি যে, সে কি “চলন্তিকা অবসরের সঙ্গী” ছাপাতে গিয়ে কোন বিপদে পরলেন কিনা। সে যত সংখ্যা ছাপাতে চেয়েছিলেন তার চেয়ে বেশি সংখ্যা কেনার কথা ব্লগার ভাই বোনেরা মত প্রকাশ করেছিলেন।
    আমরা আশা করেছিলাম তার কথা তিনি রাখবেন। তিনি তিনবার নোটিশ করেছিলেন তার পরিকল্পনা এবং প্রকাশের তারিখ এবং মূল্য নিয়ে । যাই হোক তার সুস্থতা কামনা করছি ।
    মতামত প্রকাশ না করতে পারলে মনে হয়না যে ব্লগে আছি। আর শওকত আলী বেনু ভাইকে বিশেষ ধন্য বাদ আমার নাম তার লেখায় স্থান দেয়ার জন্য

    আর ভাইকে একটু বলতে চাই অভাগার নাম : মো: মালেক জোমাদ্দার।

    সকল লেখক/কবিকে আমার শ্রদ্ধা ভালবাস রইল।

    ৬৩ বার পড়া হয়েছে

    • শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

      পুরানো স্মৃতি মনে করিয়ে দিলেন । কেমন আছেন জোমাদ্দার ভাই আপনি ? চলন্তিকায় পুরনো অনেকের সাথেই এখন আর দেখা নেই । মাঝে মাঝে মুনকে দেখি । তেমন সক্রিয় নয় বলেই মনে হলো । চলন্তিকার সেই প্রকাশনা তো আর ছাপা হয়নি বোধহয় । যাক এখন অনেক নতুন ব্লগার আসছে। সবাই শুধু কবিতা লিখে । তাই আমি এখানে শুধু কবিতা দেই। মুক্তচিন্তা ডট কম এখন আমার নিয়মিত ব্লগ । ঘুরে আসতে পারেন । ভালো থাকুন জোমাদ্দার ভাই।

  7. হামি্দ মন্তব্যে বলেছেন:

    শত তম পোস্টের শুভেচ্ছা জানবেন …………….

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top