Today 19 Aug 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

ট্যুর ডি সিলেট

লিখেছেন: শাওন রশিদ | তারিখ: ১২/০৯/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 514বার পড়া হয়েছে।

সিলেট ট্যুরের আগে কত অনিশ্চয়তা ছিল!!! যাওয়া হয় কি হয় না। শেষ পর্যন্ত ফরহাদ সরকারের ৭ ঘণ্টা টানা যুদ্ধের কারনে একটা মাইক্রো বাস ভাড়া করা গেল। ১২ জন আগেই ঠিক করা ছিলাম। লাইন আপঃ শাওন, ফরহাদ, মিতুল, কবি শাকিল, মনির, অনি, সুমন, রোমেল, শাকিল, অনিক, নুরু,এবং আকাশ। আগের রাতে আমার বাসায় অনি এসে ছিল। আগের সন্ধ্যায় ফরহাদের বড় ভাই ১৫ খানা সাদা গেঞ্জি দিয়ে গিয়েছিলেন আমাদের যা ছিল ট্যুর এর স্পেশাল। ৩০ অগস্ট সকাল বেলা দোলাইপার এবং ততসংলগ্ন এলাকার বাচ্চারা সবাই দোলাইপাড় বাস স্ট্যান্ডে স্ট্যান্ড আপ করলাম যে ছবিখানা ইতিমধ্যে ফেসবুকেরওয়াল আলোকিত করেছে…

সকাল ৬ টায় যখন মাইক্রবাস এল বাচ্চারা সবাই হাঁসের বাচ্চার মত কলকল করে উঠে পড়ল মাইক্রবাসে। তবে বাসে উঠে সবাই একটা ব্যাপারে নিশ্চিত হল আজ কারো কারো মাঞ্জায় কিঞ্চিত ব্যাথা পাইবার সমুহ সম্ভাবনা আছে। দোলাইরপার হতে রওনা আরম্ভ করতে করতেই আরও ১৫ মিনিটের মত লাগলো। মিতুল, নুরী আল মালিকি আর অনিক খান কে তুললাম মতিঝীল আর এর আশে পাশের অঞ্চল থেকে। বাসের মধ্যে দুর্দান্ত মজা করছিলাম। ছেলেরা আজ পর্যন্ত যে সব নারীর সাথে মিশেছে তাদের নাম নিয়ে সমানে স্লোগান হচ্ছিল। সবারটা মোটামুটি সত্যই বলা যায় শুধু আমার সাথে যার নাম উচ্চারন হচ্ছিল তা ফ্লো তে এসে যাচ্ছিল তাতে সত্যতার লেশমাত্র ছিলনা। তবু এঞ্জয় করছিলাম ব্যাপারটা। তাও তো আমার নাম আসছে(!) ড্রাইভার প্রথমেই একটা চমক দিলেন হাতিরঝীলের রাস্তায় মিষ্টি বৃষ্টির মধ্যে জোরসে গাড়ি টানিয়া। বৃষ্টি আমাদের পিছনে লেগেছিল ঢাকায় থাকা অবস্থায়ই। সিলেট পৌঁছানর আগ পর্যন্ত আমাদের বৃষ্টির সাথে লুকোচুরি খেলে যেতে হয়েছে। হাউ রোমান্টিক। উত্তরা গিয়ে কবি শাকিলের বাসার সামনে থেকে কবি শাকিল কে রিসিভ করা হল। মনির উত্তরা বাস থামান মাত্র গাড়ি থেকে নেমে মুত্র বিসর্জনে যাওয়ায় কিঞ্চিত একটা সম্ভাবনা হয়েছিল যে বিরিশিরি ট্যুরে ফাতিনের পাওয়া নামটা বোধ হয় মনিরের নামের সাথে যুক্ত হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত মুতিং অফিসার হিসেবে সে সুনাম অর্জন করে। উত্তরা থেকে আরম্ভ হল আমাদের ট্যুরের প্রধান যাত্রা। দুক্ষজনক হলেও সত্য প্রথমেই গাড়ির ফাঁকা সিটটা শাকিল মাহমুদের ভাগেই পড়েছিল। ড্রাইভার ফারুক ভাইও রসিক লোক অসাধারন মজা করেছেন আমাদের সাথে।

৬০৬ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি একজন ছাত্র। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ শেষ বর্ষে অধ্যয়ন করছি। সোঁদা হাসি খুশি থাকার চেষ্টা করি। সবাইকে নিয়ে আড্ডা মারা মজা করা আমার নেশাই বলা চলে। লেখালেখি করি অনেক আগে থেকেই। একসময় নিজের লেখা কাউকে দেখাতাম না। অবশ্য এখন যাই লেখি না কেন অন্তরজালের এই জগতে পোস্ট করে দেই। যেমন ই লেখি না কেন কিছু মানুষের সাথে পরিচয় হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারছি, জানতে পারছি। একজন অতিসাধারন মানুষের এর চেয়ে বেশি পাওয়ার আর কিইবা আছে...?
সর্বমোট পোস্ট: ২৪ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১৩০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৭-২৭ ১০:১১:৩১ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    সিলেটে যাওয়ার অনেক দিনের সাধ
    কাজে লাগবে।

  2. এ টি এম মোস্তফা কামাল মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো।

  3. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    মনে হল অসমাপ্ত কিছু পড়লাম।এর আরও পর্ব আছে কি?এমনি ভাবে কোন গল্প বা কাহিনী শেষ হয় আমার জানা ছিল না।

  4. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    তাপশ কাকার সাথে একমত ।

  5. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল ভ্রমণ কাহিনী পড়ে।

  6. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    সিলেট ইজ ভেরি ফাইন প্রকৃতি
    গেছি লাম ……………………

    ভাল ভাবনার প্রকাশ

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top