Today 30 Oct 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

দি ওল্ড ম্যান এন্ড দি সী – আর্নেস্ট হেমিংওয়ে – ১৩

লিখেছেন: হামি্দ | তারিখ: ০৪/০৮/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1039বার পড়া হয়েছে।

বাংলা রূপান্তর © হামিদ

এই মুহূর্তে সূর্যটা আকাশে অনেক উপরে অবস্থান করছে। সূর্যের তীক্ষ্ণ আলোকরশ্মি সমুদ্রের পানিতে পড়ে কেমন এক অদ্ভূত আলক আভা তৈরী হয়েছে সমুদ্রপৃষ্ঠে । অন্যদিকে আকাশের মেঘমালার ধরন দেখে মনে হচ্ছে আজ আবহাওয়া ভালই থাকবে।

সেই পাখিটা ইতোমধ্যে দৃষ্টির আড়ালে চলে গেছে। বেশকিছু শ্যাওলা জাতীয় জলজ উদ্ভিদ আশপাশের পানিতে ভাসছে। বুড়োর নৌকা থেকে গজ খানিক পিছনে ভেসে চলছে একটি জেলি মাছ। থলথলে বহুরঙা রক্তাভ শরীর জেলিটির । মনে হচ্ছে মহানন্দে আছে জেলিটি । হঠাৎ হঠাৎ ডানে বামে দিক পরিবর্তন করে চলছে। জেলিটি দেখে চিৎকার করে গাল দিল বুড়ো, ‘বেশ্যা মাগি কোথাকার।’

পানিতে উঁকি দিয়ে বুড়ো দেখল অনেক ছোট ছোট মাছ জেলি মাছটির নিচ দিয়ে এবং আশপাশ দিয়েজেলিটির ছড়িয়ে দেওয়া বিষাক্ত আঠালো পদার্থের পাশ দিয়েই বুদ বুদ তৈরী করে সাঁতরে চলে যাচ্ছে। জেলি মাছের বিষ ওদের কোনো ক্ষতি করতে পারে না। ওদের কাছে সে বিষ প্রতিরোধের ক্ষমতা আছে। কিন্তু মানুষের সে ক্ষমতা নেই। জেলি মাছের ঐ আঁশ যদি বড়শির রশিতে লেগে যায় তবে বিপদ আছে । কারণ ঐ আঁশ লাগানো রশি যদি তার হাতে লাগে তবে হাতে দগদগে ঘা হয়ে যাবে । এই ধরণের ঘায়ে খুব যন্ত্রনা হয় । তাই জেলি মাছ দেখলে বুড়ো এরকম রেগে গিয়ে গালাগাল করতে থাকে।

বুদবুদগুলো অবশ্য খুব সুন্দর লাগে। রামধনুর মতো নানা রঙ ধারণ করে এগুলো । এগুলো সত্যিই বড় বিভ্রম সৃষ্ট করে । কচ্ছপেরা ওদের দেখলেই সামনের দিক থেকে আক্রমণ করে। তারপর চোখ বন্ধ করে আঁশ সহ গিলে খায় । এদৃশ্যটি বুড়ো খুবই পছন্দ করে ।

ঝরের পরে সৈকতের বালুচরে হাঁটার সময় কচ্ছপের উপর পা পড়লে তারা যে শব্দ করে তাও বুড়োর অনেক পছন্দের । সবুজ কচ্ছপ বুড়ো খুব পছন্দ করে । এরা যেমন সুন্দর তেমনি এদর গতি । বাজারে তাদের দামও বেশি । হাগ জাতীয় কচ্ছপগুলোও বুড়োর খুব পছন্দের । নির্বোধ হলুদ ধরনের এসব কচ্ছপের রতিক্রিয়া দেখতে ভালো লাগে বুড়োর । তবে সবচেয়ে ভাল লাগে কচ্ছপগুলো যখন মহানন্দে চোখ বন্ধ করে জেলি মাছগুলোকে গিলে খায় তখনকার দৃশ্য ।

……………………চলবে ।

১,০২৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
ভবের এই খেলাঘরে খেলে সব পুতুল খেলা/ জানি না এমন খেলা ভাঙে কখন কে জানে................. খেলা ভাঙার অপেক্ষায় এই আমি এক অদক্ষ খেলোয়ার ............
সর্বমোট পোস্ট: ৫০ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২২৭ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-১০-২৯ ০৯:২৩:৫৯ মিনিটে
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. সোহেল আহমেদ পরান মন্তব্যে বলেছেন:

    চলুক…।

    শুভেচ্ছা নিরন্তর , হামিদ ভাই

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    বুদবুদগুলো অবশ্য খুব সুন্দর লাগে। রামধনুর মতো নানা রঙ ধারণ করে এগুলো । এগুলো সত্যিই বড় বিভ্রম সৃষ্ট করে । কচ্ছপেরা ওদের দেখলেই সামনের দিক থেকে আক্রমণ করে। তারপর চোখ বন্ধ করে আঁশ সহ গিলে খায় । এদৃশ্যটি বুড়ো খুবই পছন্দ করে ।

    ঝরের পরে সৈকতের বালুচরে হাঁটার সময় কচ্ছপের উপর পা পড়লে তারা যে শব্দ করে তাও বুড়োর অনেক পছন্দের । সবুজ কচ্ছপ বুড়ো খুব পছন্দ করে । এরা যেমন সুন্দর তেমনি এদর গতি । বাজারে তাদের দামও বেশি । হাগ জাতীয় কচ্ছপগুলোও বুড়োর খুব পছন্দের । নির্বোধ হলুদ ধরনের এসব কচ্ছপের রতিক্রিয়া দেখতে ভালো লাগে বুড়োর

    চমৎকার করে বর্ননা করেছেন।মূল বই থেকে আপনার লেখা পড়তে বেশী ভাল লাগছে।আপনি তো ভাল অনুবাদ করবেন বোঝা যাচ্ছে।আনোয়ার ভাই কিছু বই অনুবাদ করতে চাচ্ছেন।ওনার সাথে কথা বলুন ….।

  3. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    আচ্ছা উল্টাটা করিনা কেন আমরা ।আমরা আমাদের বাংলা বিখ্যাত উপন্যাস কে ইংলিশ করি বহির্বিশ্বে আমাদের বইকে পরিচিত করি।বিশেষ করে আমাদের দেশে থাকা বিদেশীদের জন্য আমাদের বই যদি ইংরেজীতে ট্রানস্লেট করি তবে তারা পড়বে।বাংলা বই বাংলাদেশের লেখকদের চাহিদা তৈরী হবে।

  4. হামি্দ মন্তব্যে বলেছেন:

    hmm, that is a point .

  5. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    এখান থেকে পড়া শুরু করলাম
    চেষ্টা করবে অন্য গুলো পড়ার
    ভাল লাগল

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top