Today 26 Aug 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

দি ওল্ড ম্যান এন্ড দি সী – আর্নেস্ট হেমিংওয়ে – ১৪

লিখেছেন: হামি্দ | তারিখ: ০৫/০৮/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 764বার পড়া হয়েছে।

বাংলা রূপান্তর © হামিদ 

তবে কচ্ছপের ব্যাপারে তার কোনো আলাদা অনুভুতি নেই । যদিও সে কয়েক বছর কচ্ছপ শিকারের কাজ করেছে। তবে কেমন একধরণের বেদনা বোধ আছ । এমনকি নৌকার সমান বড় বড় কচ্ছপগুলোর ব্যাপারেও তার এই বেদনাবোধ কাজ করে । কারণটা কী তা সে জানে না। হতে পারে এজন্য যে মানুষ কচ্ছপের সাথে অনেক নির্দয় আচরণ করে । জবাই করার পরও কচ্ছপের হৃদস্পন্দন সহজে থামে না ।কয়েক ঘন্টা পর্যন্ত স্পন্দন চলতে থাকে । প্রাণটা সহজে বের হয় না। বুড়োর মনে হয় তার নিজের হৃদপিন্ডটিও কচ্ছপের মতো। এমনকি হাত পাগুলোও । 

শরীরের শক্তি বাড়ানোর জন্য বুড়ো ডিমের সাদা অংশটা খায় । সারা মে মাস ধরে সে এরকম ডিম খেয়ে থাকে যাতে করে সেপ্টেম্বর অক্টোবর মাসে বড় বড় মাছ কাবু করার মতো যথেষ্ট শক্তি তার শরীরে থাকে। তাছাড়া এসময় প্রতিদিন এক কাপ করে হাঙরের কলিজার তেলও খায় সে। ঘাটের কাছটায় যেখানে জেলেরা মালপত্র রাখে সেখানেই ড্রাম ভর্তি করে রাখা থাকে এই তেল । তবে এর স্বাদটা সবার ভাল লাগে না। তাই সবাই এটা খায় না। তার কাছেও এই জিনিসটা খুব মজাদার তা না। তবে সে বিষয়টা অন্য ভাবে দেখে । তাকে তো জীবেন অনেক অপ্রিয় কাজই করেত হয় । যেমন অতো ভোরে ঘুম থেকে উঠতে কার ভালো লাগে । তারপরও দিনের পর দিন সে কাজটাই করে যাচ্ছে । তাই এই তেলের স্বাদ ভালো না হলেও যদি শরীরে জন্য উপকারী হয় তবে খেতে সমস্যা কী ? মজাদার না হলেও এই তেল ঠান্ডা এবং সর্দির জন্য মহৌষধ হিসেবে কাজ করে । তাছাড়া চোখের জন্যও খুব উপকারী । 

পাখিটি দৃষ্টির আড়ালে চলে গিয়েছিল । কিন্তু এখন আবার দেখা যাচ্ছে পাখিটিকে। আগের মতোই চক্কর দিচ্ছে । ‘ও নিশ্চয়ই মাছ পেয়েছ ! ‘ চিৎকার করে উঠল বুড়ো । 

না, কোনো উড়ুক্কু মাছ সেখানে ছিল না। কিংবা টোপের মাছের কোনো আভাসও না । তবে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে বুড়ো দেখল একটা টুনা মাছ বাতাসে ভেসে উঠেই আবার মাথা নিচের দিকে দিয়ে পানিতো ঝাঁপ দিল । সুর্যের আলোয় রূপালী টোনা মাছটি চকচক করে উঠল । প্রথমটি পানিতে ঝাঁপ দেয়ার সাথে সাথেই লাফিয়ে উঠল আরেকটা টুনা মাছ । তারপর আরেকটা । তারা যেন মনের আনন্দে টোপের চারপাশে পানি ছিটিয়ে লাফ ঝাঁপ শুরু করল আর নাক দিয়ে টোপটি ঠেলতে লাগল । ‘এগুলো যদি খুব বেশি দ্রুত না চলে তবে আমি তাদের নিকট পৌঁছে যেতে পারব’ – ভাবে বুড়ো । 

মাছের ঝাঁকটি সাদা ফেনা তুলছে পানিতে। টুনাগুলোর ঝাপাঝাপিতে আতঙ্কগ্রস্ত কিছু টোপের মাছ ভেসে উঠছে পানিতে । আর পাখিটা বার বার ঝাঁপিয়ে পড়ছে মাছগুলোর উপর । 

‘পাখিটা বেশ উপকার করছে ‘- ভাবছিল বুড়ো । ঠিক তখনই পায়ের নিচে চেপে রাখা পেছনের বড়শির রশিতে টান পড়ল । বৈঠা রেখে রশি হাতে নিল সে । রশিটা হাতে নিয়েই বুঝতে পারল যে, মাছটা রশি ছেড়ার জন্য প্রানান্তকর চেষ্টা করে যাচ্ছে । রশি টেনে মাছটাকে পানির উপর নিয়ে এলো বুড়ো । রোদের ঝলকে চকচক করে উঠলো মাছটির সোনালী পেট আর নীল পিঠ । নৌকার পিছন দিকটায় জায়গা হল মাছটার। ভারী আর বুলেটের মতো সূঁচালো আকৃতির মাছটা । নির্বোধের মত দৃষ্টি মেলে চকিতে দেখল । তারপর লেজটা একবার আছড়ে ফেলে নিস্তেজ হয়ে গেল মাছটা । বুড়ো মাছটির জন্য মায়া অনুভব করল। যেন তারাতারি দম বের হয়ে যায় তার জন্য মাথায় আঘাত করল এবং একটা লাথিও মারল । পাটাতনের উপর মাছটা কথনও তির তির করে কাঁপছে। 

………………………..চলবে । 

৭৫১ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
ভবের এই খেলাঘরে খেলে সব পুতুল খেলা/ জানি না এমন খেলা ভাঙে কখন কে জানে................. খেলা ভাঙার অপেক্ষায় এই আমি এক অদক্ষ খেলোয়ার ............
সর্বমোট পোস্ট: ৫০ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২২৭ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-১০-২৯ ০৯:২৩:৫৯ মিনিটে
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    লেখা ভাল লাগল । চালিয়ে যান । শুভ কামনা ।

  2. আহমেদ রব্বানী মন্তব্যে বলেছেন:

    এই সিরিজটা বেশ সুন্দর।শুভেচ্ছা প্রিয়।

  3. ছাইফুল হুদা ছিদ্দিকী মন্তব্যে বলেছেন:

    অসাধারন সুন্দর ভালো লাগা রইলো আপনার অনুবাদ লেখায়।ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top