Today 23 Aug 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

নরকের দরজা

লিখেছেন: মোস্তাক চৌধুরী | তারিখ: ০৪/০৯/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 703বার পড়া হয়েছে।

তুর্কমেনিস্তানের ড্রাভা শহরে রয়েছে একটি জ্বলন্ত গর্ত। সবার কাছেই এই জ্বলন্ত জায়গাটি ‘ডোর টু হেল’ নামে পরিচিত। রাতের বেলা নরকের এই দরজাটি খুবই সুন্দর লাগে। তখন অনেক দূর থেকেই জায়গাটা তো দেখা যায়ই, এর শিখার উজ্জ্বলতাও ভালোমতো বোঝা যায়। সেখানকার উত্তাপ এত বেশি যে, কেউ চাইলেও ৫ মিনিটের বেশি সেখানে থাকতে পারে না।

১৯৭১ সাল থেকে জায়গাটি অবিরত দাউদাউ করে জ্বলছে। কারাকুম মরুভূমিতে অবস্থিত অগ্নিমুখটির ব্যাস ৭০ মিটার ও গর্ত ২০ মিটার দীর্ঘ, যদিও এটি প্রাকৃতিক কোনো গর্ত নয়। ১৯৭১ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে প্রাকৃতিক গ্যাসসমৃদ্ধ দারউয়িজি এলাকায় গ্যাস অনুসন্ধানের সময় অনুসন্ধানকারীরা গ্যাসবহুল গুহার মধ্যে মৃদু স্পর্শ করলে দুর্ঘটনাক্রমে মাটি ধসে পুরো ড্রিলিং রিগসহ পড়ে যায়। পরিবেশে বিষাক্ত গ্যাস প্রতিরোধ করার জন্য ভূতত্ত্ববিদরা তখন গ্যাস উদ্গিরণ মুখটি জ্বালিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নেন। তারা আশা করেছিলেন, এর ফলে কয়েকদিনের মধ্যে গ্যাস উদ্গিরণ বন্ধ হবে, কিন্তু তা আর হয়নি। ৪০ বছর ধরে অগ্নিমুখটি অনবরত জ্বলছে। ১৯৭১ সালে এখানে গ্যাস খনির সন্ধান মেলে। প্রাথমিকভাবে গবেষণা করে বিষাক্ত গ্যাসের ব্যাপারে গবেষকরা নিশ্চিত হন, যার পরিমাণ ছিল সীমিত। সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, এই গ্যাস জ্বালিয়ে শেষ করা হবে। ফলে এর বিষাক্ততা ছড়ানোর সুযোগ পাবে না। এরপর এখানে গর্ত করে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু গবেষকদের অবাক করে দিয়ে তা এখনো অর্থাৎ ৪০ বছর ধরে একাধারে জ্বলছে অথচ গবেষকরা নিশ্চিত ছিলেন যে, অল্প কয়েক দিনের মধ্যে এই গ্যাস শেষ হবে এবং আগুন নিভে যাবে।

1

2

3

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

5

6

8

9

৮২০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
লেখালেখি করতে ভালবাসি। মাঝে মাঝে পত্রপত্রিকাতে কিছু লেখার চেষ্টা করি। আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন দেখার ভরসা পাই না। আমার বন্ধুও কম। কিন্তু যারা আছে তাদের জন্য সবকিছু করার মানসিকতা আমার আছে।
সর্বমোট পোস্ট: ৩৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৫-১৯ ১২:৫৮:৫৪ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. মৌনী রোম্মান মন্তব্যে বলেছেন:

    পোষ্টটি খুব্বি ভাল লেগেছে, সাথে ছবিগুলোও অসাধারণ !
    পৃথিবীর এমন অদ্ভুতুরে ঘটনা ও জায়গাগুলো সম্পর্কে জানায় আগ্রহ খুব । আশা করি এমন পোষ্ট আরো পাব ।

  2. এ টি এম মোস্তফা কামাল মন্তব্যে বলেছেন:

    কত অজানা রে ! ভিন্নধর্মী এ ঘটনাটি শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। ছবি থাকায় বুঝতে বেশী সুবিধা হয়েছে।

  3. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    বেহেশতের দরজাটা ও দেখান ভাই
    অসংখ্য ভাল লাগা

  4. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক কিছু দেখলাম।

  5. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    শুনলেই তো ভয় লাগে

    <<<<<<<<<<<<<<<<<<<<ভাবনা ভালো

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top