Today 27 May 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি রাঙ্গামাটি

লিখেছেন: খাদিজাতুল কোবরা লুবনা | তারিখ: ৩০/১২/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 770বার পড়া হয়েছে।

নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা ২১২৫র্ থেকে ২৩৪৫র্ উত্তর অক্ষাংশ ও ৯১৫২র্ পূর্বদ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। রাঙ্গামাটির উত্তরে ভারতের ত্রিপুরা, মিজোরাম, দক্ষিণে বান্দরবান, পূর্বে মিজোরাম ওপশ্চিমে চট্রগ্রাম ও খাগড়াছড়ি। এ জেলা আয়তনের দিক থেকে দেশের সর্ববৃহৎ জেলা। দেশের এক মাত্র রিক্সা বিহীনশহর, হ্রদ পরিবেষ্টিত পর্যটন শহর এলাকা। এ জেলায় চাকমা, মারমা, তঞ্চঙ্গ্যা, ত্রিপুরা, মুরং, বোম, খুমি, খেয়াং, চাক্,পাংখোয়া, লুসাই, সুজেসাওতাল, রাখাইন সর্বোপরি বাঙ্গালীসহ ১৪টি জনগোষ্ঠি বসবাস করে।রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ওবান্দরবান- এই তিন পার্বত্য অঞ্চলকে নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলা সৃষ্টির পূর্বের নাম ছিল কার্পাস মহল। পার্বত্য চট্টগ্রামজেলা থেকে১৯৮১ সালে বান্দরবান এবং ১৯৮৩ সালে খাগড়াছড়ি পৃথক জেলা সৃষ্টি করা হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলারমূল অংশ রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। প্রথাগত রাজস্ব আদায় ব্যবস্থায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলায়রয়েছে চাক্মা সার্কেল চীফ। চাক্‌মা রাজা হলেন নিয়মতান্ত্রিক চাক্‌মা সার্কেল চীফ।বৃটিশ আমল থেকে পার্বত্য অঞ্চলেবিদ্যমান বিশেষ প্রশাসনিক কাঠামোর পাশাপাশি বিগত আওয়ামীলীগ সরকারের সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনার নেতৃত্বে ১৯৯৭সালে পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরের পর এই কাঠামোতে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে।পার্বত্য চুক্তিরআওতায় পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয় নামে একটি পৃথক মন্ত্রণালয়, তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের কার্যাবলী সমন্বয়সাধনের জন্য রাঙ্গামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ, ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী ও অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু পুনর্বাসনএর জন্য ১টি টাস্ফফোর্স এবং পার্বত্য এলাকায় ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে ভূমি কমিশন গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়াপার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড, পার্বত্য জেলা পরিষদ এবংহাট-বাজার ব্যবস্থাপনার জন্য বাজার ফান্ড নামক প্রতিষ্ঠান গঠন করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি পার্বত্যজেলায় জাতীয়সংসদের কেবল ১টি আসন রয়েছে।এজেলায় উপজাতীয় ও অ-উপজাতীয় অধিবাসীগণ বিভিন্ন ধর্মীয় বিশ্বাসে বিশ্বাসী।উপজাতীয়দের অধিকাংশ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী এবং কিছু সংখ্যক হিন্দু এবং খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বী। অ-উপজাতীয়দেরঅধিকাংশ ইসলাম ধর্মাবলম্বী।

৭৬৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ৪৪ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১০৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-০৯ ১১:২৭:২৯ মিনিটে
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. মুহাম্মদ দিদারুল আলম মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর লেখা ভালো লাগলো। ধন্যবাদ লেখিকাকে।

  2. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    তথ্য সমৃদ্ধ পোষ্ট, ভালো লাগলো , তবে আপু পোস্টটি আমার মনে হলো কপি পেস্ট করা, পোস্ট দেখেই বোঝা যাচ্ছে , আমি মনে করি , তথ্য তো কোথাও না কোথাও থেকে নিতে হবে , তবে নিজের মত সাজিয়ে লিখলে ভালো হয় , আশা করি মন্তব্য ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    শেয়ারের জন্য ধন্যবাদ

  4. আরজু মূন জারিন মন্তব্যে বলেছেন:

    রাঙ্গামাটি ,বান্দরবান শুনেছি এই দুইটি জায়গা দেখার মত।আমার ও দেখার ইচ্ছে আছে।আমি আসলে খুব ঘরকুনো মেয়ে।আমার একটা বই আমার পৃথিবী।বই হলে আমার কিছু দরকার নেই।আমার বিনোদন শুধু বই পড়া।ইদানীং অবশ্য বই পড়া কমে গেছে ব্লগে ঢোকার পর।বই এর মাধ্যমে পৃথিবী, মানুষকে দেখে নেই।আপনারা পরিব্রাজক রা যখন বিভিন্ন ভ্রমনের ছবি দেন খুব আনন্দ নিয়ে দেখি।নিজে যাওয়ার আগ্রহ কেন জানি হয়না।আমি শারীরিকভাবে দূর্বল ভঙ্গুর স্বাস্থ্যের বলে হয়ত।

    অনেক ভাল লেগেছে আপনার পোষ্টটি।ধন্যবাদ রইল অনেক অনেক।শুভেচ্ছা তার সাথে নুতুন বছরের।ভাল থাকুন।

  5. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    বেশ লেখা
    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ

  6. শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

    সাথে কিছু ছবি দিলে মন্দ হত না । ভালো লাগলো লেখা

  7. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    কবি শওকত ভাইঙয়রে সাথে সহমত

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top