Today 20 Oct 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

পতাকার সম্মান………

লিখেছেন: এই মেঘ এই রোদ্দুর | তারিখ: ২৯/০৬/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 757বার পড়া হয়েছে।

পতাকার সম্মান………

ভাষার জন্য একমাত্র বাঙালীরাই প্রাণ দিয়েছিল, লড়েছিল এবং ছিনিয়ে এনেছিল বাংলা মায়ের মুখের ভাষা । ৫২ এর ভাষা আন্দোলনের পর পরই শুরু হয়েছিল দেশ জয়ের যুদ্ধের প্রস্তুতি । নয় মাসের যুদ্ধে আমরা আমাদের আপন অস্তিত্ব, অধিকার, স্বাধীনতা, চেতনা, মূল্যবোধ ফিরে পেয়েছি। গোটা বিশ্ব জুড়ে সম্মান পেয়েছিল আমার দেশ । মাতৃভূমির সবুজ বন বনানী রক্তে রাঙ্গিয়ে শেষে স্বাধীনতার লাল সূর্য উঁকি দিয়েছিল বাংলার আকাশে । এত এত ত্যাগের পর লাল সবুজের পতাকা পেয়েছি আমরা। আমাদের দেশ, পতাকা আমাদের অহংকার আমাদের গর্ব । ধন্য হই মনে মনে এ দেশে জন্মেছি বলে । পতাকা হলো সম্মানের জিনিস । মাথার উপরে থাকার জিনিস । পতাকা ধূলায় লুণ্ঠিত হওয়ার জিনিস নয় । আন্দোলন বা খেলাধূলায়, আনন্দে মিছিল করি পতাকা হাতে । আশ্রয় নেই বারংবার একই পতাকার ছায়াতলে

আমি নিজে যে কোন দেশের পতাকাকেই সম্মান করি । রাস্তায় কাগজের হউক বা কাপড়ের পতাকা পড়ে থাকতে দেখলে কখনো পা মাড়িয়ে যাই না । কখনো রাস্তা থেকে তুলে রাস্তার পাশে রেখে দেই। দিন দিন যেমন মানুষের মাঝে হিংস্রতা বাড়ছে তেমনি পতাকার অবমাননা বাড়ছে দিনকে দিন। সেদিন গিনেজ রেকর্ড করার জন্য একত্রিত হয়েছিল লক্ষ লক্ষ বাঙ্গালী জাতীয় সংগীত গাওয়ার জন্য । কিন্তু অতিরিক্ত আবেগ দেখাতে গিয়ে সেখানে হাজার হাজার পায়ের নিচে পদদলিত হয়েছিল রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের জাতীয় পতাকা। টিভিতে যখন খবর দেখি তখন ভিতরটা মোছড় দিয়ে উঠে । এই বুঝি আমাদের পতাকার সম্মান। খুব কষ্ট লেগেছিল সেদিন। কিন্তু বলার কিছুই নাই। আমার বাবা ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা । তার সন্তান হয়ে কিভাবে পতাকার অবমাননা সহ্য করি। জাতীয় পতাকার অসম্মান মানে মুক্তিযুদ্ধ অস্বীকার করা। সময়ে সময়ে পতাকা পুড়ানো হয় । বিভিন্ন জাতীয় দিবস অথবা বিশেষ দিনগুলোতে যত তত্র পতাকা টানিয়ে সে পতাকা ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া হয় অথবা রাস্তায় পড়ে থাকে পদতলে । আবারো ধূলায় লুন্ঠিত হয় আমার দেশের লাল সবুজ পতাকা । জাতীয় পতাকার অবমাননা করা হলে সর্বোচ্চ ২ বছর পর্যন্ত শাস্তি এবং ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ডের বিধান রাখা হয়। না জেনে, না বুঝে আর অতি উচ্ছ্বাসে যারা পতাকা ব্যবহারবিধি লঙ্ঘন করেন, তাদের অপরাধের মাত্রা বিবেচনা করে এই শাস্তির বিধান যথাযথ হতে পারে। তবে কোনো প্রতিষ্ঠান যদি বাণিজ্যিক কোনো প্রচারণায়, বিজ্ঞাপনে জাতীয় পতাকার ব্যবহার বিধিবহির্ভূতভাবে করে থাকে, তার জন্য ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ডের বিধান আছে । সূত্র যায় যায় দিন

পতাকা সম্বন্ধে লিখতে বসছি এ কারণে এই বিশ্বকাপ খেলা উপলক্ষে সারা ঢাকার ছাদ জুড়ে পতাকার সমাহার। যদিও তা গত বিশ্বকাপের চেয়ে কমই মনে হচ্ছে আমার কাছে । আমরা বাঙালীরা আবেগের জাতি। এমন আবেগীয় মানুষ মনে হয় আর পৃথিবীতে নাই। এই খেলা নিয়ে দেখছি দলাদলি রেষারেষি আবার ঝগড়া ঝাটিও হয় । আমরা যে দেশগুলোরে নিয়ে মেতে আছি বা ভালবাসি তাদের খেলা দেখতে অথচ ‍সে দেশটি আমাদের দেশটিকেও ঠিকমত চিনেও না । বাংলাদেশ নামে একটা স্বাধীন দেশ যে বিশ্ব মানচিত্রে আছে তা সে দেশগুলোর মানুষ খুঁজেনি কখনো । খেলা ভালবাসি, ফুটবল হলো সুন্দর খেলা । কিন্তু বাড়াবাড়িটাই আমার ভাল লাগে না (এই বাড়াবাড়িটা নিচে বুঝিয়ে দিচ্ছি। আমি পতাকা টানাতে অনুৎসাহিত করছি না মোটেও কিন্তু, কেউ ভুল বুঝবেন না)। ইয়া বড় বড় পতাকা বানিয়ে টানানো হয় নিজেদের বাসার ছাদে বা রাস্তায়। কোন জায়গায় জানি মনে করতে পারছি না , খবরের পাতায় দেখলাম এক লোক তার বিশ বিঘা জমি বিক্রি করে জার্মানীর পতাকা বানিয়েছে কারণ তার একদা কি রোগ হয়েছিল সে লোক কোন ওষুধ খেয়েও ভাল হয় না শেষ পর্যন্ত পশ্চিম জার্মানীর একটা ওষুধ খেয়ে নাকি উনি ভাল হয়েছিলেন । পতাকা না বানিয়ে তিনি ঐ দেশে টাকা দান করে দিলেও মনে হয় ভাল হতো আমার মতে।

গতকাল রাতে যখন কলোনীর রাস্তায় হাঁটছিলাম তখন দেখলাম মাঝ রাস্তায় আর্জেন্টিনার পতাকা রঙ দিয়ে এঁকে রেখেছে কলোনীর ছেলেরা । সে দৃশ্য দেখে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল । যারা এ কাজটি করেছে তারা শিক্ষিত পরিবারের সন্তান হয়তোবা তারা নাইন টেনের ছাত্র । আবেগের বসে রাস্তায় সেঁটে দিয়েছে অন্য দেশের সম্মানের পতাকা । আঁকা পতাকার উপর দিয়ে আমরা হেঁটে পদদলিত করবো আরেক দেশের পতাকা । আমার কাছে আমার দেশের পতাকা যেমন সম্মানের তেমনি অন্য দেশের পতাকাও সম্মানের। অন্য দেশের লোকেরা যদি আমার দেশের পতাকা এমনভাবে পদদলিত করে তখন আমার কেমন লাগবে । নিশ্চয়ই বিষয়টি মোটেও সুখকর নয়। আবেগ দিয়ে খেলা ভালবেসে লাভ কি । নিজেরাই সম্মান দিতে পারিনা অন্য দেশের পতাকাকে। তাহলে আমার দেশের পতাকার অসম্মান ঠেকাবে কে? অন্যদের সম্মান করলে নিজের সম্মান অর্জিত হয় । তেমনি অন্য দেশের পতাকাকে সম্মান করলে আমাদের দেশের পতাকা সম্মানের শিখরে আরোহণ করবে। পতাকা হোক সম্মানের হোক না কেন সেটা ভীনদেশী পতাকা। কোন পতাকাই যেন পায়ের তলায় পৃষ্ঠ না হয়, আসুন সে বিষয়ে সচেতনতা বাড়াই । আবেগী ছোট ছোট ছেলেদের বুঝাই তারা পতাকার সম্মান বিষয়ে সচেতন হয় । তাহলেই তো আর অসম্মান করা হবে না কোন দেশের পতাকা।

তাই বলে কিন্তু বিশ্বকাপের উল্লাসে যতি টানতে বলছি না । পতাকা উড়ুক পতপত করে তবে পায়ের তলায় নয় । মাথার উপর থাকুক । পতাকা থাকুক সম্মানের সহিত । রঙবেরঙের পতাকা উড়ুক ছাদে, গাছে …….. চার বছর পর পর আনন্দটা উপভোগ করুক বাংগালী ………

আমার দেশ আমার গর্ব
আমার অহংকার
বাংলা মায়ের সবুজ প্রকৃতি
আমার অলংকার ।
সবুজের বুকে লাল
বাস করবেই চিরকাল
লালের সাথে সবুজের
বন্ধন থাকবেই চিরকাল।
এই হউক আমাদর অঙ্গীকার

এ্যানিমেশন নেট কালেকটেড……..

৭৬৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি খুবই সাধারণ একজন মানুষ । জব করি বাংলাদেশ ব্যাংকে । নেটে আগমন ২০১০ সালে । তখন থেকেই বিশ্ব ঘুরে বেড়াই । যেন মনে হয় বিশ্ব আমার হাতের মুঠোয় । আমার দুই ছেলে তা-সীন+তা-মীম ==================== আমি আসলে লেখিকা নই, হতেও চাই না আমি জানি আমার লেখাগুলোও তেমন মানসম্মত না তবুও লিখে যাই শুধু সবার সাথে থাকার জন্য । আর আমার ভিতরে এত শব্দের ভান্ডারও নেই সহজ সরল ভাষায় দৈনন্দিন ঘটনা বা নিজের অনুভূতি অথবা কল্পনার জাল বুনে লিখে ফেলি যা তা । যা হয়ে যায় অকবিতা । তবুও আপনাদের ভাল লাগলে আমার কাছে এটা অনেক বড় পাওয়া । আমি মানুষ ভালবাসি । মানুষকে দেখে যাই । তাদের অনুভূতিগুলো বুঝতে চেষ্টা করি । সব কিছুতেই সুন্দর খুঁজি । ভয়ংকরে সুন্দর খুঁজি । পেয়েও যাই । আমি বৃষ্টি ভালবাসি.........প্রকৃতি ভালবাসি, গান শুনতে ভালবাসি........ ছবি তুলতে ভালবাসি........ ক্যামেরা অলটাইম সাথেই থাকে । ক্লিকাই ক্লিকাই ক্লিকাইয়া যাই যা দেখি বা যা সুন্দর লাগে আমার চোখে । কবিতা শুনতে দারুন লাগে........নদীর পাড়, সমুদ্রের ঢেউ (যদিও সমুদ্র দেখিনি), সবুজ..........প্রকৃতি, আমাকে অনেক টানে,,,,,,,,,আমি সব কিছুতেই সুন্দর খুজি.........পৃথিবীর সব মানুষকে বিশ্বাস করি, ভালবাসি । লিখি........লিখতেই থাকি লিখতেই থাকি কিন্তু কোন আগামাথা নাই..........সহজ শব্দে সব এলোমেলো লেখা..........আমি আউলা ঝাউলা আমার লেখাও আউলা ঝাউলা ...................... ======================== এটা হলো ফেইসবুকের কথা........ ========================== কেউ এড বা চ্যাট করার সময় ইনফো দেখে নিবেন এবং কথা বলবেন...........আর আইস্যাই খালাম্মা বলে ডাকবেন না । পোলার মা হইছি বইল্যা খালাম্মা নট এলাউড......... ================ এই পৃথিবী যেমন আছে ঠিক তেমনি রবে সুন্দর এই পৃথিবী ছেড়ে একদিন চলে যেতে হবে ======================= কিছু মুহূর্ত একটু ভালোবাসার স্পর্শ চিত্তে পিয়াসা জাগায় বারবার এই নিদারুণ হর্ষ ....... ছB ========================= এই হলাম আমি........ =================
সর্বমোট পোস্ট: ৬৩৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮৯৯৮ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-১৫ ০৪:৫২:৪০ মিনিটে
banner

৩ টি মন্তব্য

  1. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    আমিও আশা করি মানুষের সচেতনতা বারবে ।পতাকার সম্মান করতে শিখবে । ধন্যবাদ ।

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    সবুজের বুকে লাল
    বাস করবেই চিরকাল
    লালের সাথে সবুজের
    বন্ধন থাকবেই চিরকাল।
    এই হউক আমাদর অঙ্গীকার ++++++++++++++++

    পতাকার সন্মান গৌরব নিয়ে পোস্ট টি বেশ ভাল লাগল। অনেক ধন্যবাদ এই মেঘ এই রৌদ্দুর। শুভেচ্ছা জানবেন। ভাল থাকবেন কেমন।

  3. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    পতাকার সম্মান পোষ্ট ইজ ভেরি আনকমন
    ভেরি নাইস লিখা
    বেশ ভাল লীখনী
    বেশ ভাল লাগলো
    শুভ কামনা
    শুভ বিকেল

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top