Today 17 Oct 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণের জন্য আইন নয়, চাই ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক সচেতনতা

লিখেছেন: আমির ইশতিয়াক | তারিখ: ২০/০৬/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 485বার পড়া হয়েছে।

বর্তমান সরকার ‘পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১২’ নামে একটি আইন করছে। যার কোন বাস্তব প্রয়োগ নেই। শুধু এই আইন কেন আমাদের দেশে কোন আইনেরই সঠিক প্রয়োগ নেই। যদি থাকতো তাহলে এতো অপরাধ আমাদের দেশে হতো না। যারা আইন তৈরি করে ও আইন প্রয়োগ করে তারাই আইন ভঙ্গ করে। আইন শুধু ফাইলের ভেতর বন্দী হয়ে থাকে। তাই আমি বলব বর্তমানে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ যে আইনটি আছে তার যেহেতু বাস্তব প্রয়োগ নেই, সেহেতু এই আইন দিয়ে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। এর জন্য চাই সামাজিক, পারিবারিক ও ব্যক্তিগত সচেতনতা। সচেতনতাই পারে পর্নোগ্রাফির কবল থেকে আমাদের তরুণ-তুরুণীদের রক্ষা করতে।
বর্তমানে চলচ্চিত্র, স্যাটেলাইট চ্যানেল, ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পর্নোগ্রাফি মারাত্মকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফি ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। এই সব পর্নোগ্রাফি ওয়েব সাইটগুলোতে তরুণ- তরুণীরা অবাধে প্রবেশ করতে পারছে। যার ফলে নৈতিক ও সামাজিক অবক্ষয় দিন দিন বাড়ছে। বাড়ছে সামাজিক অপরাধ। বর্তমান ডিজিটাল যুগে মোবাইল ফোন হয়ে উঠেছে পর্নোগ্রাফির এক অন্যতম মাধ্যম। এর মাধ্যমে অতি সহজে তরুণ-তরুণীরা পর্নোগ্রাফি আদান প্রদান করতে পারছে। এটি ভাইরাসের মতো আমাদের সমাজের ছড়াচ্ছে। মোবাইল পর্নোগ্রাফি তরুণ-তুরুণীদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয়। পর্নোগ্রাফির কারণে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীরা। এর ফলে তাদের মধ্যে দেখা দিচ্ছে উগ্র মানষিকতা। বর্তমানে ধর্ষণ নামক যে ব্যাধিতে আমরা ভোগছি তা এই পর্নোগ্রাফিরই অন্যতম একটি ফল। এটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে আমাদের তরুণ-তুরুণীরা অচিরেই ধবংস হয়ে যাবে। পর্নোগ্রাফিকে নিয়ন্ত্রণ করতে হলে প্রথমে দরকার পর্নোগ্রাফি বিপনন বন্ধ করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ। ইন্টারনেটে পর্নোগ্রাফি সাইটগুলো বন্ধ করে দেয়া।
পর্নোগ্রাফি আসক্তি থেকে আমাদের কোমলমতি তরুণ-তরুণীদেরকে রক্ষা করতে হলে সবার আগে অভিভাবক মহলের সচেতনতার প্রয়োজন। আমরা সবাই যদি আমাদের নিজ নিজ সন্তানদেরকে ছোট বেলা থেকে ধর্মীয় মূল্যবোধ ও নৈতিকতার শিক্ষা দেয় তাহলে দেখা যাবে কখনো এ অপরাধের সাথে তারা সম্পৃক্ত হবে না। আর সন্তান কৈশোর বয়স থেকে যৌবনে পর্দাপনের প্রতিটি ধাপে ধাপে বাবা-মাকে খেয়াল রাখতে হবে তাঁর সন্তান কোথায় যায়, কার সাথে মিশে, কম্পিউটারে কি নিয়ে সময় কাটায়, মোবাইল ফোনে কি দেখে বা কার সাথে কথা বলে। এসব পর্যবেক্ষণ করলে সন্তান কখনই পর্নোগ্রাফি অপরাধের সাথে জড়িত হতে পারে না। সামাজিক ও পারিবারিক সচেতনতার পাশাপাশি অত্যন্ত জরুরী যে বিষয়টা তা হলো ব্যক্তিগত সচেতনতা। এর কোন বিকল্প হতে পারে না। ব্যক্তিগত ইমেজ যাতে নষ্ট না যেদিকে সকলকে খেয়াল রাখতে হবে।

৫৮৭ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমির ইশতিয়াক ১৯৮০ সালের ৩১ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর থানার ধরাভাঙ্গা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা শরীফ হোসেন এবং মা আনোয়ারা বেগম এর বড় সন্তান তিনি। স্ত্রী ইয়াছমিন আমির। এক সন্তান আফরিন সুলতানা আনিকা। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করেন মায়ের কাছ থেকে। মা-ই তার প্রথম পাঠশালা। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু করেন মাদ্রাসা থেকে আর শেষ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নরসিংদী সরকারি কলেজ থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই লেখালেখি শুরু করেন। তিনি লেখালেখির প্রেরণা পেয়েছেন বই পড়ে। তিনি গল্প লিখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করলেও সাহিত্যের সবগুলো শাখায় তাঁর বিচরণ লক্ষ্য করা যায়। তাঁর বেশ কয়েকটি প্রকাশিত গ্রন্থ রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হলো- এ জীবন শুধু তোমার জন্য ও প্রাণের প্রিয়তমা। তাছাড়া বেশ কিছু সম্মিলিত সংকলনেও তাঁর গল্প ছাপা হয়েছে। তিনি নিয়মিতভাবে বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় গল্প, কবিতা, ছড়া ও কলাম লিখে যাচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্লগে নিজের লেখা শেয়ার করছেন। তিনি লেখালেখি করে বেশ কয়েটি পুরস্কারও পেয়েছেন। তিনি প্রথমে আমির হোসেন নামে লিখতেন। বর্তমানে আমির ইশতিয়াক নামে লিখছেন। বর্তমানে তিনি নরসিংদীতে ব্যবসা করছেন। তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা একজন সফল লেখক হওয়া।
সর্বমোট পোস্ট: ২৪১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৪৭০৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-০৫ ০৭:৪৪:৩৯ মিনিটে
Visit আমির ইশতিয়াক Website.
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. আজিম হোসেন আকাশ মন্তব্যে বলেছেন:

    সবাইকে সচেতন হতে হবে।

  2. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    আসুন আমরা সবাই নিজ নিজ সন্তানদেরকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করি।

  3. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    সচেতনতাই পারে আমাদের কোমলমতি ছেলে-মেয়েরেকে প্রর্ণোগ্রাফি হতে রক্ষা করতে।

  4. আসমা নজরুল মন্তব্যে বলেছেন:

    আমির ভাই ঠিক বলেছেন। সচেতনতাই পারে আমাদের কোমলমতি ছেলে-মেয়েরেকে প্রর্ণোগ্রাফি হতে রক্ষা করতে।

  5. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ আসমা নজরুল মন্তব্য করার জন্য।

  6. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    সচেতনতামূলক পোস্ট ভাল লাগল

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top