Today 20 Oct 2017
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

পুনে (ইন্ডিয়া)…… ভ্রমন (৫ম পর্ব)

লিখেছেন: এই মেঘ এই রোদ্দুর | তারিখ: ০১/১০/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 384বার পড়া হয়েছে।

১৪ তারিখে ট্রেনিং ইনস্টিউট থেকে আমাদেরকে পুনে দেখানোর সুযোগ করে দিয়েছিল……. সেই দিনের ক্লাস ১ টায় শেষ করে আমরা একটা বাসে করে রওয়ানা হলাম (ওদের ভাড়া করা এসি গাড়ি) । ইনস্টিটিউটের ম্যাডাম ছিলেন আমাদের গাইড । তিনিই আমাদেরকে প্রথমে নিয়ে গেলে শিন্ডে ছত্রী মন্দির (আমাদের ভাষায় হলো ছাতা মন্দির)……. কিছুটা দুরে হওয়াতে বাস জার্নিটা ছিল একটু বেশী সময় । আমরা বসে না থেকে বাসেই মজা করলাম অনেক এক আপা আমাদেরকে কৌতুক শুনালেন সবাই অনেক হাসাহাসি করলাম । তারপর ছেলেদেরকে ধরলাম গান শুনানোর জন্য তো আমাদের টিম লিডার স্যার গান ধরলেন

গ্রামের নওজোয়ান হিন্দু মুসলমান
মিলিয়া বাউলা গান আর মুর্শিদি গাইতাম
আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম
আমরা আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম ………..

অবশ্য আমরা সবাই একসাথে গেয়েছি মিলে মিশে । বাস জার্নিটাও বেশ আনন্দদায়ক ও মজাদার ছিল আমার কাছে ।
অবশেষে পৌঁছলাম ছাতা মন্দিরে…… সময় ছিল ২০ মিনিট ঘুরে দেখার

১। গেইটে যেয়েই দেখি সুন্দর একটা কারুকার্য মন্ডিত মন্দির………
https://farm8.staticflickr.com/7358/9994422774_b7ca0de6a8_z.jpg

২। শিন্ডে ছাত্রী  পুনে, ভারতের একটি সুপরিচিত স্থানে অবস্থিত  ।
https://farm4.staticflickr.com/3699/9994474146_a3c978a5c0_z.jpg

আমি ঢুকেই কয়েকটা ক্লিক দিলাম ক্যামেরায়….. সবাই সবার ছবি উঠাতে ব্যস্ত ………. আমার ক্যামেরাও অন্য ভাইদের হাতে দিয়ে অনেকগুলো ছবি উঠাইছিলাম তয় আমার ছবি সুন্দর আসে নাই sad sad

৩।  মহান সৈনিক মাহাদজি শিন্ডে স্মরণে ঐতিহাসিক স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মাণ করা হয়  । এটি ওয়ারিওর  এ অবস্থিত
এটি একটি ঐতিহাসিক স্মৃতিস্তম্ভ যা জনপ্রিয় পর্যটক আকর্ষণ ।  প্রাথমিক ভাবে ১৭৬০-১৭৮০ এর মধ্যে সময়কালে শ্রিমান্ত রামোজি রাও শিন্ডে, মাহাদজি শিন্ডে পঞ্চম পুত্র পেশওয়া এর রাজত্বের সময় শক্তিশালী মারাঠার সেনাবাহিনীর কমান্ডার চিফ হিসেবে কাজ করছিল তারাই এই স্মৃতিস্তম্ভটি তৈরীৱ কাজ শুরু করেন।

মন্দিরের প্রবেশ গেইট ……… কি সুন্দর কারুকাজ……
https://farm4.staticflickr.com/3756/9994550263_3d9d392801_z.jpg

৪। স্মৃতিস্তম্ভটি মাহাদজিকে উৎসর্গ এবং রাজস্থানী স্থাপত্যের একটি মাস্টারপিস হিসেবে গণ্য করা হয় ।  এটা ছিল তার সারা জীবন কাল্পনিক অনুষঙ্গী যে ছাতা তুলে দাঁড়িয়ে আছে এজন্যই হয়তো এটিকে শিন্ডে এর ছাতা বলা হয় এবং এর কাঠামোগত দর্শনে আপনি ওয়ারিয়রের মহৎ অতীতের আভাস পাবেন ।

মন্দিরের ঝাঁকজমকপূর্ণ কারুকাজগুলো দেখলে মন ভরে যায়…..
https://farm6.staticflickr.com/5478/9994472516_10842d874c_z.jpg

৫।  এটা সাইডের একটা গেইট মন্দিরের
https://farm4.staticflickr.com/3833/9994471186_3f42a933e5_z.jpg

৬। ১৭৯৪ সালের ১২ ফেব্রুয়ারী মাহাদজি শিন্ডের শব এখানে দাহ করা হয় ।  তিন তলা বিশিষ্ট স্মৃতিসৌধটি সে যুগের সমৃদ্ধ ঐতিহ্য এবং প্রতিনিধিত্বমূলক স্মৃতি বহন করে । জাঁকজমক রাজকীয় অনুপ্রবেশ গেট পর্যন্ত লোহা দিয়ে চকমক করে তৈরী করেন ।
https://farm6.staticflickr.com/5491/9994470166_4c2908ca9e_z.jpg

৭। একেবারে পিছন সাইডের মন্দিরের দৃশ্য
https://farm3.staticflickr.com/2880/9994416384_5ea8041f12_z.jpg

৮। বাহিরের দৃশ্য দেখার পর সবাই মন্দিরের ভিতর প্রবেশ করলাম । ভিতরের কারুকাজ আরো সুন্দর । উপরে সুন্দর ঝাড়বাতি…
https://farm4.staticflickr.com/3726/9994416625_e1ac1129cd_z.jpg

৯। ভিতরের দেয়ালের কারুকাজ
https://farm6.staticflickr.com/5345/9994543163_45f878cd92_z.jpg

১০। মূর্তি রাখার স্থানের উপরের অংশ…….
https://farm3.staticflickr.com/2821/9994541623_b1dc135c72_z.jpg

১১। ভিতরের অংশ এখান থেকে দোতলা পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে …..
https://farm8.staticflickr.com/7401/9994411024_b3cacaaab9_z.jpg

১২। মন্দিরের ছাদ ও ঝাড় বাতি………
https://farm8.staticflickr.com/7291/9994410264_da89c9ac71_z.jpg

১৩। গেটের বাহিরে ছোট একটি মন্দির……..
https://farm6.staticflickr.com/5451/9994409284_5bc0029443_z.jpg

শিন্ডে ছত্রী ক্যাম্পাসের  নির্মাণ কাজ ১৭৯৪ সালে মাহাদজি শুরু করেছিলেন এখানে শিব মন্দির এর চারপাশে নির্মিত হয় । কিন্তু মাহাদজি পরবর্তীতে একই বছরের মধ্যে মৃত্যুবরণ করলে নেতৃত্বের কারণে এটা সম্পূর্ণ করতে অসমর্থ হন ।

১৪। ছাতা মন্দির দর্শণ শেষে আমরা এখান থেকে বের হয়ে হলাম ….. এটা বাহিরের দৃশ্য ……. পুনের গরু
https://farm6.staticflickr.com/5321/9994460776_bed2bbe2fa_z.jpg

 

ফটো বড় করে দেখতে চাইলে এখানে ক্লিকাতে পারেন
এখান থেকে বের হয়ে আমরা গিয়েছিলাম আঁগা খাঁ প্যালেসে………. আগামী পর্বে আঁগা খাঁ প্যালেসের বর্ণনা ও ছবি থাকবে । আশাকরি আমার সঙ্গেই থাকবেন । আজ আল্লাহ হাফেজ………..

৪৭৯ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি খুবই সাধারণ একজন মানুষ । জব করি বাংলাদেশ ব্যাংকে । নেটে আগমন ২০১০ সালে । তখন থেকেই বিশ্ব ঘুরে বেড়াই । যেন মনে হয় বিশ্ব আমার হাতের মুঠোয় । আমার দুই ছেলে তা-সীন+তা-মীম ==================== আমি আসলে লেখিকা নই, হতেও চাই না আমি জানি আমার লেখাগুলোও তেমন মানসম্মত না তবুও লিখে যাই শুধু সবার সাথে থাকার জন্য । আর আমার ভিতরে এত শব্দের ভান্ডারও নেই সহজ সরল ভাষায় দৈনন্দিন ঘটনা বা নিজের অনুভূতি অথবা কল্পনার জাল বুনে লিখে ফেলি যা তা । যা হয়ে যায় অকবিতা । তবুও আপনাদের ভাল লাগলে আমার কাছে এটা অনেক বড় পাওয়া । আমি মানুষ ভালবাসি । মানুষকে দেখে যাই । তাদের অনুভূতিগুলো বুঝতে চেষ্টা করি । সব কিছুতেই সুন্দর খুঁজি । ভয়ংকরে সুন্দর খুঁজি । পেয়েও যাই । আমি বৃষ্টি ভালবাসি.........প্রকৃতি ভালবাসি, গান শুনতে ভালবাসি........ ছবি তুলতে ভালবাসি........ ক্যামেরা অলটাইম সাথেই থাকে । ক্লিকাই ক্লিকাই ক্লিকাইয়া যাই যা দেখি বা যা সুন্দর লাগে আমার চোখে । কবিতা শুনতে দারুন লাগে........নদীর পাড়, সমুদ্রের ঢেউ (যদিও সমুদ্র দেখিনি), সবুজ..........প্রকৃতি, আমাকে অনেক টানে,,,,,,,,,আমি সব কিছুতেই সুন্দর খুজি.........পৃথিবীর সব মানুষকে বিশ্বাস করি, ভালবাসি । লিখি........লিখতেই থাকি লিখতেই থাকি কিন্তু কোন আগামাথা নাই..........সহজ শব্দে সব এলোমেলো লেখা..........আমি আউলা ঝাউলা আমার লেখাও আউলা ঝাউলা ...................... ======================== এটা হলো ফেইসবুকের কথা........ ========================== কেউ এড বা চ্যাট করার সময় ইনফো দেখে নিবেন এবং কথা বলবেন...........আর আইস্যাই খালাম্মা বলে ডাকবেন না । পোলার মা হইছি বইল্যা খালাম্মা নট এলাউড......... ================ এই পৃথিবী যেমন আছে ঠিক তেমনি রবে সুন্দর এই পৃথিবী ছেড়ে একদিন চলে যেতে হবে ======================= কিছু মুহূর্ত একটু ভালোবাসার স্পর্শ চিত্তে পিয়াসা জাগায় বারবার এই নিদারুণ হর্ষ ....... ছB ========================= এই হলাম আমি........ =================
সর্বমোট পোস্ট: ৬৩৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮৯৯৭ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-১৫ ০৪:৫২:৪০ মিনিটে
banner

১০ টি মন্তব্য

  1. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ভ্রমণ সবসময়ই আনন্দের হয়। আপনার ভ্রমণ কাহিনীটি পড়ে অনেক কিছু জানতে পারলাম। ছবি গুলো অনেক সুন্দর হয়েছে।

  2. মিলন বনিক মন্তব্যে বলেছেন:

    ব্লগার-এর প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ জানাচ্ছি এমন একটা বিষয় পুংখানুপুংখভাবে তুলে ধরার জন্য…অনেক বিষয় জানা হলো…ছবিগুলো অসাধারন..সবশেষে মনে হচ্ছে ব্লগার একজন সুলেখিকাই শুধু নন একজন ভালো ফটোগ্রাফারও বটে…অনেক শুভকামনা…

  3. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার ভ্রমণ বর্ণনার সঙ্গে সঙ্গে ছবি গুলিও বেশ সুন্দর।ধন্যবাদ।

  4. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল আপনার ভ্রমণ কাহিনী ও ছবি ।

  5. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    দারুন সুন্দর অভিজ্ঞতা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top