Today 20 Oct 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

প্রথাবিরোধী লেখক আহমেদ ছফার জন্মদিন আজ!

লিখেছেন: ব্যবস্থাপনা সম্পাদক | তারিখ: ৩০/০৬/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 689বার পড়া হয়েছে।

sofa

আহমদ ছফা (জুন ৩০, ১৯৪৩ – জুলাই ২৮, ২০০১) একজন বাংলাদেশী লেখক, কবি ও সমাজবিজ্ঞানী। তাঁর লেখায় বাংলাদেশী জাতিসত্তার পরিচয় নির্ধারণ প্রাধান্য পেয়েছে। তিনি ২০০২ খ্রিস্টাব্দে সাহিত্যে মরণোত্তর একুশে পদক লাভ করেন। জীবদ্দশায় আহমদ ছফা তাঁর প্রথাবিরোধী, নিমোর্হ, অকপট দৃষ্টিভঙ্গীর জন্য বুদ্ধিজীবি মহলে বিশেষ আলোচিত ছিলেন। চলন্তিকার পক্ষ ত্থেকে তার প্রতি রইল হাজারো সম্মাননা।

 

তিনি সাহিত্যের প্রায় প্রতিটি শাখায় প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। গল্প, গান, উপন্যাস, কবিতা, প্রবন্ধ, অনুবাদ, ইতিহাস, ভ্রমণকাহিনী মিলিয়ে তিরিশটির অধিক গ্রন্থ রচনা করেছেন।

 

আহমদ ছফার প্রথম গ্রন্থ একটি উপন্যাস- সূর্য তুমি সাথী। প্রকাশিত হয় ১৯৬৭ সালে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম গ্রন্থ হিসেবে মুক্তধারা থেকে প্রকাশ পায় তাঁর প্রবন্ধ গ্রন্থ জাগ্রত বাংলাদেশ। প্রকাশকাল শ্রাবণ ১৩৭৮ বা জুলাই ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দ। ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে পিএইচডি অভিসন্দর্ভের জন্য জাতীয় অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাকের সান্নিধ্যে আসেন। দীর্ঘকাল তাঁদের মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় থাকে। ১৯৭১ সালে ‘লেখক সংগ্রাম শিবির’ গঠন ও এর বিভিন্ন কার্যক্রমে সক্রিয় অংশ নেন। সাতই মার্চ ‘স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পত্রিকা’ হিসেবে প্রতিরোধ প্রকাশ করেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে এপ্রিল মাসে কলকাতা চলে যান। মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে সেখান থেকে দাবানল নামের পত্রিকা সম্পাদনা করেন। দেশ স্বাধীন হবার পর বাংলাদেশে ফিরে লেখালেখি করতে থাকেন। ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দে দৈনিক গণকণ্ঠ ধারাবাহিকভাবে ‘বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস’ রচনা প্রকাশ করেন। এর কারণে তৎকালীন সরকারের রোষে পড়তে হয় তাঁকে। ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে সিপাহী বিদ্রোহের ইতিহাস গ্রন্থ প্রকাশ পায়। ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে দৈনিক ইত্তেফাকের সাংবাদিক নাজিমুদ্দিন মোস্তানের সহায়তায় কাঁটাবন বস্তিতে ‘শিল্পী সুলতান কর্ম ও শিক্ষাকেন্দ্র’ চালু করেন। বাংলা একাডেমী থেকে বাঙালি মুসলমানের মন প্রবন্ধগ্রন্থ প্রকাশ পায় ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে ।

 

ছফা মহাকবি গ্যোতের ফাউস্ট অনুবাদ শুরু করেন ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে । মুক্তধারা থেকে ফাউস্টের অনুবাদ বের হয় ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে । ১৯৯৩ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস অলাতচক্র। স্বাধীন বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতির গোপন-রহস্য, শৌর্য মৃত্যু ও কপটতার গীতিকা এই উপন্যাস। ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে পুষ্প বৃক্ষ এবং বিহঙ্গপুরাণ এবং অর্ধেক নারী অর্ধেক ঈশ্বরী প্রকাশিত হয়। ‘অর্ধেক নারী অর্ধেক ঈশ্বরী’ পূর্বে একটা সাপ্তাহিক পত্রিকায় প্রাণপূর্ণিমার চান নামে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হচ্ছিল। জাপানী ভাষায় পুষ্প বৃক্ষ এবং বিহঙ্গপুরাণ উপন্যাসের অনুবাদ প্রকাশ পায় ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে । পুষ্প, বৃক্ষ, বিহঙ্গ ঘুরে সুশীল সমাজের ব্যবচ্ছেদ হয়েছে তাঁর এই উপন্যাসে। বাংলাদেশের জাতীয় অধ্যাপক ও সমসাময়িক কালের বিশিষ্ট পণ্ডিত অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাকের প্রসঙ্গে রচিত যদ্যপি আমার গুরু প্রকাশিত হয় ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে ।

 

তাঁর জীবদ্দশায় আহমদ ছফা রচনাবলি প্রকাশ শুরু হয়। ২০০১ খ্রিস্টাব্দে আহমদ ছফা রচনাবলি দ্বিতীয় খণ্ড প্রকাশ পায়। জীবিত থাকাকালীন আহমদ ছফা বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় কলাম লেখা অব্যাহত রেখেছেন।

 

প্রবন্ধ

জাগ্রত বাংলাদেশ, ১৯৭১

বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস, ১৯৭২

বাংলা ভাষা: রাজনীতির আলোকে, ১৯৭৫

বাংলাদেশের রাজনৈতিক জটিলতা, ১৯৭৭

বাঙালি মুসলমানের মন, ১৯৮১

শেখ মুজিবুর রহমান ও অন্যান্য প্রবন্ধ, ১৯৮৯

Aspect of Social Harmony in Bangla Culture and Peace Song, ১৯৯১

রাজনীতির লেখা, ১৯৯৩

আনুপূর্বিক তসলিমা ও অন্যান্য স্পর্শকাতর প্রসঙ্গ, ১৯৯৪

নিকট ও দূরের প্রসঙ্গ, ১৯৯৫

সঙ্কটের নানা চেহারা, ১৯৯৬

সাম্প্রতিক বিবেচনা: বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস, ১৯৯৭

শরবর্ষের ফেরারী: বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, ১৯৯৭

শান্তিচুক্তি ও নির্বাচিত প্রবন্ধ, ১৯৯৮

বাঙালি জাতি এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্র, ২০০১

উপলক্ষের লেখা, ২০০১

আমার কথা ও অন্যান্য প্রবন্ধ, ২০০২

সেইসব লেখা, ২০০৮

 

অনুবাদ

তানিয়া (মূল: পি. লিডভ), ১৯৬৭

সংশয়ী রচনা: বার্টাণ্ড রাসেল, ১৯৮২

ফাউস্ট (মূল: ইয়োহান ভোলফ্‌ গাঙ ফন গ্যোতে), ১৯৮৬

 

কবিতা

জল্লাদ সময়, ১৯৭৫

দুঃখের দিনের দোহা,১৯৭৫

একটি প্রবীণ বটের কাছে প্রার্থনা, ১৯৭৭

লেনিন ঘুমোবে এবার, ১৯৯৯

 

উপন্যাস

সূর্য তুমি সাথী, ১৯৬৭

ওংকার, ১৯৭৫

একজন আলী কেনানের উত্থান-পতন, ১৯৮৮

মরণবিলাস, ১৯৮৯

অলাতচক্র, ১৯৯৩

গাভী বিত্তান্ত, ১৯৯৫

অর্ধেক নারী অর্ধেক ঈশ্বরী, ১৯৯৬

পুষ্প বৃক্ষ এবং বিহঙ্গ পুরাণ, ১৯৯৬

 

গল্পসংগ্রহ

নিহত নক্ষত্র,১৯৬৯

 

ইতিহাসগ্রন্থ

সিপাহী যুদ্ধের ইতিহাস, ১৯৭৯

 

সৃজনশীল জীবনী

যদ্যপি আমার গুরু, ১৯৮৮

 

কিশোর গল্প

দোলো আমার কনকচাঁপা, ১৯৬৮

 

শিশুতোষ ছড়াগ্রন্থ

গো-হাকিম, ১৯৭৭

 

পুরস্কার

তিনি লেখক শিবির পুরস্কার ও বাংলা একাডেমী কর্তৃক সাদত আলী আখন্দ পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছেন।  ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে ইতিহাস পরিষদ পুরস্কার গ্রহণ করেছেন বলে জানা যায়। তাঁকে ২০০২ খ্রিস্টাব্দে সাহিত্যে (মরণোত্তর) একুশে পদক প্রদান করা হয় ।

Joddopi_amar_guru_cover

মৃত্যু

২০০১ খ্রিস্টাব্দের আটাশে জুলাই অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতালে নেয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। পরদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদে জানাজা শেষে মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবি গোরস্থানে তাঁর দাফন হয়।

 

 

 

 

তথ্যসূত্র

সলিমুল্লাহ খান, আহমদ ছফা সঞ্জীবনী ; আগামী প্রকাশনী। বাংলাবাজার , ঢাকা। ফেব্রুয়ারি, ২০১০,পৃষ্ঠা ২১।

আহমদ ছফা রচনাবলি; অষ্টম খণ্ড। নূরুল আনোয়ার সম্পাদিত। খান ব্রাদার্স এন্ড কোম্পানি, বাংলাবাজার , ঢাকা। ফেব্রুয়ারি, ২০০৮। [পৃষ্ঠা ৪৮৩]

আহমদ ছফা, যদ্যপি আমার গুরু; মাওলা ব্রাদার্স, বাংলা বাজার, ঢাকা। মে, ২০০০। [পৃষ্ঠা ১২]

সলিমুল্লাহ খান, আহমদ ছফা সঞ্জীবনী; আগামী প্রকাশনী। বাংলাবাজার , ঢাকা। ফেব্রুয়ারি, ২০১০। [পৃষ্ঠা ২৪৩]

৮৯০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ৭৫ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৪৫৬ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৪-২০ ০৫:০৫:২৮ মিনিটে
Visit ব্যবস্থাপনা সম্পাদক Website.
banner

৬ টি মন্তব্য

  1. এ হুসাইন মিন্টু মন্তব্যে বলেছেন:

    বিনম্র শ্রদ্ধা

  2. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    আহমেদ ছফা সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম।

  3. কাউছার আলম মন্তব্যে বলেছেন:

    আমি তেমন একটা বই পড়ি না। তবে আপনার লেখা থেকে আহমেদ ছফা সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম

  4. Arifur Rahman মন্তব্যে বলেছেন:

    আহমেদ ছফা সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম|

  5. Arifur Rahman মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার লেখা থেকে অনেক কিছু জানতে পারলাম। ধন্যবাদ!

  6. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    আহমদ ছফাকে আগে চিনতাম না । আজই চিনলাম ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top