Today 21 Jul 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

কবরস্থানে কিছুক্ষণ

লিখেছেন: আরজু মূন জারিন | তারিখ: ১৮/০৬/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 774বার পড়া হয়েছে।

কাজ শেষ করতে আমিন সাহেব এর আজ প্রায় রাত দশটা বেজে গিয়েছে। সব ডেস্ক কাগজ পত্র গোছাতে আর ও আধা ঘন্টা ব্যয় হল। রেগুলার বাস না থাকায় চিন্তা করলেন আজ ট্যাক্সি তে বাসায় যাবেন। অনেকক্ষণ দাড়িয়ে ট্যাক্সির দেখা পেলেন দেখে হাটতে শুরু করলেন।মাত্র বাজছে দশটা চল্লিশ। এর মধ্যে মনে হচ্ছে গভীর নিশুতি রাত। মানুষ জন কি টিভি দেখছেনা। অধিকাংশের বাড়ি ঘর এ বাতি নিভান। তাই রাস্তার বাতিকে কিছু ভৌতিক দেখা যাচ্ছে। জোরে পা চালালেন তিনি। সারা রাস্তায় কোন মানুষজন দেখা যাচ্ছেনা।একটু দুরে দেখা যাচ্ছে কে ও একজন ধীরে সুস্থে হেটে যাচ্ছে। হাটার ভঙ্গিতে শিথিলতা। মদখোর বা আয়েশী মানুষের হাটার ধরন। সাধারণত অফিস ফেরত কর্মজীবী রা এইসময় দ্রুত হাটে। বাসায় যাওয়ার তাড়া থাকে।

একা রাস্তায় হাটতে গিয়ে ওনার গা ছমছম করে উঠল। দ্রুত এসে সামনে র লোক এর পাশাপাশি আসতে চেষ্টা করল। এখন লোকটির হাটা খুব দ্রুত হয়ে গেল। চেষ্টা করে তার কাছে পৌছান যাচ্ছেনা দেখে একপর্যায়ে দৌড়ান শুরু করলেন আমিন সাহেব। অবশেষে কাছে পৌছলেন। সালাম বলে মুখ দেখার চেষ্টা করলেন। লোকটির পুরা মুখ মাফলার এ ঢাকা। শুধু চোখ টা জলজল করছে। অন্ধকার এ অস্বাভাবিক জলজলে চোখ দেখে নিজের অজান্তে আতকে উঠে এক পা পিছিয়ে গেলেন তিনি।

ওয়ালাইকুম ফ্যাসফ্যাসে গলার আওয়াজ। খুক খুক করে কাশল কিছুক্ষণ তারপর একই কন্ঠস্বরে বলে উঠল খুব ঠান্ডা লাগছে ভাইজান।

আবার ও আতকে উঠলেন আমিন সাহেব নিজের অজান্তে।

সারা রাস্তায় কেও নেই তো তাই ভাবলাম গল্প করতে করতে যাই বললেন আমিন সাহেব নিরবতা ভেঙ্গে।

অসুবিধা নাই লোকটি বলল ,আপনি কোন দিকে যাইবেন আমিত এখন এই কবরস্থান দিয়ে যাব। শর্টকাট রাস্তা আছে। আপনি আবার ভয় পাবেন না তো ? বলে অদ্ভূত জলজলে চোখে তাকাল আবার।

না না ভয় কিসের বললে ও মনে মনে তিনি একটু ভয় পেলেন। একটু হাটার পর তারা বনানী কবরস্থানে ঢুকল।

ভাইজান সিগারেট খান নাকি ? চলেন একটু বসি পাথরটার উপর। অনেক ক্লান্ত বলে সামনের পাথরে বসলেন।

আজকে লং ডে গেল ? আমিন সাহেব জিজ্ঞাসা করেন হেসে।

না ভাই বহুকাল ঘুমাইনা। লোকটি বলল মাথা নেড়ে।

আসুন আজকে আপনাকে জীবনের গল্প শোনাব তারপর ঘুমাতে চলে যাব ভাই। আবার ও বলে উঠে লোকটি।

তিনি নিজেও পাশে বসলেন লোকটির। একটা সিগারেট ধরিয়ে লোকটির হাতে ধরিয়ে দিলেন। সিগারেট এর ধুয়া উড়াতে উড়াতে বলল লোকটি

এইযে এই জায়গা ভাই এখানে আমার বন্ধু আর স্ত্রী কত টুকরা করে কেটে মারছে। আমার পায়ের নিচে মাটি এখানে আমার লাশ আছে ভাইজান।

মানি চিত্কার দিয়ে উঠে দাড়ালেন তিনি। লাহাওলা পড়তে শুরু করলেন। আমি সব ভুল দেখছি ভুল শুনছি বিড়বিড় করে বলতে লাগলেন।

আপনি ঠিক শুনছেন ভাইজান। একটা অনুরোধ ভাইজান এখানে এই কাগজে আমার ঠিকানা আছে , আমার স্ত্রীর। কষ্ট করে বাসায় গিয়ে বলেন আমারে ঠিক মত দাফন করতে। আমার আত্মা কষ্ট পাইতাছে বলে একটা কাগজ বাড়িয়ে দিল।

পরক্ষণে প্রবল বাতাসে কাপন ধরে গেল আমিন সাহেব এর। লোকটির ভোজভাজির মত উধাও। তার বসে যাওয়া স্থানে একটুকরা কাগজ পরে আছে যাতে লিখা কোন ঠিকানা। কাগজ নিয়ে কাপতে কাপতে বাসায় এসে পৌছলেন রাত এগারটায়।

পরিশিস্ট : আমিন সাহেব এর ও মাস খানিক পরে নির্ধারিত ঠিকানায় গিয়ে পেলেন এক মধ্যবয়সী ভদ্রলোক তার স্ত্রী এবং তাদের দুই ছেলে মেয়ে।

ভদ্র মহিলা প্রথমে তার নাম বলে বিস্মিত ঠিক চিনতে পারছিনা আপনি কে ?

আমাকে চেনার দরকার নেই একটু রুড ভাবে বললেন তিনি। আমি পুলিশ এ ইনফর্ম করবনা। তবে আমি চাই আপনারা অনেক বছর আগে যে ব্যক্তিকে মেরে এলোপাথাড়ি কবর দিয়ে এসেছেন তার যথাযথ সমাধির ব্যবস্থা করবেন। তার আগে মিলাদ মাহফিল পরিয়ে হতভাগ্য লোকটির আত্মার মাগফেরাত কামনা করবেন। আমি মাপ করে দিয়েছি আপনাদের। প্রার্থনা আল্লাহ যেন আপনাদের মাপ করে দেয়।

বলে তাদের হতভম্ব বিপর্যস্ত মুখের সামনে বেরিয়ে এলেন ঘর থেকে এবং ঠিকানা টি কুচি কুচি করে ছিড়ে ফেললেন।

সমাপ্ত

 

৮৮৪ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
নিজের সম্পর্কে কিছু বলতে বললে সবসময় বিব্রত বোধ করি। ঠিক কতটুকু বললে শোভন হবে তা বুঝতে পারিনা । আমার স্বভাব চরিত্র নিয়ে বলা যায়। আমি খুব আশাবাদী একজন মানুষ জীবন, সমাজ পরিবার সম্পর্কে। কখনো হাল ছেড়ে দেইনা। কোনো কাজ শুরু করলে শত বাধা বিঘ্ন আসলেও তা থেকে বিচ্যুত হইনা। ফলাফল পসিটিভ অথবা নেগেটিভ যাই হোক শেষ পর্যন্ত কোন কাজ এ টিকে থাকি। জীবন দর্শন" যতক্ষণ শ্বাস ততক্ষণ আশ " লিখালিখির মূল উদ্দেশ্যে অন্যকে ভাল জীবনের সন্ধান পেতে সাহায্য করা। মানুষ যেন ভাবে তার জীবন সম্পর্কে ,তার কতটুকু করনীয় , সমাজ পরিবারে তার দায়বদ্ধতা নিয়ে। মানুষের মনে তৈরী করতে চাই সচেতনার বোধ ,মূল্যবোধ আধ্যাতিকতার বোধ। লিখালিখি দিয়ে সমাজে বিপ্লব ঘটাতে চাই। আমি লিখি এ যেমন এখন আমার কাছে অবাস্তব ,আপনজনের কাছে ও তাই। দুবছর হলো লিখালিখি করছি। মূলত জব ছেড়ে যখন ঘরে বসতে বাধ্য হলাম তখন সময় কাটানোর উপকরণ হিসাবে লিখালিখি শুরু। তবে আজ লিখালিখি মনের প্রানের আত্মার খোরাকের মত হয়ে গিয়েছে। নিজে ভালবাসি যেমন লিখতে তেমনি অন্যের লিখা পড়ি সমান ভালবাসায়। শিক্ষাগত যোগ্যতা :রসায়নে স্নাতকোত্তর। বাসস্থান :টরন্টো ,কানাডা।
সর্বমোট পোস্ট: ২২৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৬৮৩ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-০৫ ০১:২০:৩৫ মিনিটে
banner

৩ টি মন্তব্য

  1. শাহ্‌ আলম বাদশা মন্তব্যে বলেছেন:

    আমি অনিয়মিত বলে সম্ভবত আপনার এ ধারাবাহিকের শেষ পর্বই পড়লাম;আগের পর্বের লিঙ্ক এ লেখায় থাকলে সময় করে পড়তে পারতাম

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    না এ গল্প প্রথম পর্ব। তবে এ পর্ব গুছিয়ে লিখা হয়নি। আমি পরে এডিট করে নুতুন পর্ব সহ আসব। কমেন্টসের জন্য ধন্যবাদ বাদশা ভাই। শুভেচ্ছা রইল।

  3. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    কাল্পনিক ! আত্মার চিন্তা ভালোই ঝেকে বসেছিল দেখছি আপু !
    ভালো লাগলো কল্পকথার গল্প ।
    শুভেচ্ছা জানবেন ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top