Today 25 May 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

বাঘ, সে তখনই বাঘ, যখন সে প্রেমিক ও বিদ্রোহী…

লিখেছেন: সুমন সাহা | তারিখ: ০৪/০১/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 933বার পড়া হয়েছে।

10896874_987848577911481_7472640915739746196_n

এই বাস-কক্ষে একটিও জীবিত প্রাণী বেঁচে নেই আর
প্রাণ নেই যার, নেই যার দুঃখ সম আর্তনাদ খুশি-ভার
বেঁচে থেকে তার যে আর ছিলো না নিস্তার
এ প্রাণ-ভুঁইয়ে রহস্যাবৃত ছিন্ন কোন মন্দারমনির চরে
বিলাপ ধ্বনি শুনি এ কোন চিন্তামণির
বিশ্ব-বিধাত্রির এ কোন বিস্রস্ত পাপ জলাঞ্জলি দিলো কারা
বোসে বোসে এ কাদের, দেখে নাও, দিন কেটে শেষ হয় রাত্রি নিবিড় হলে।

আঁধার কেটে কেটে সাঁকো তৈরী করে
কেরাম ঘরের দিকে যাত্রা করেই ফিরে আসে ওই দ্যাখো
কার ছায়া, কারা আবার ফিরে আসে জীবিত নামতার পাঠে
সাঁকোর শেষ গন্তব্যে পৌছেই পা ফসকে যায় ওই দ্যাখো নরক-মাকড়সাদের
এ আঁধারে, এ বাস-কক্ষে একটিও জীবিত প্রাণী আর বেঁচে-বর্তে নেই।

হাত থেকে খসে পড়েছিলো যেদিন শেষ পূর্নিমার আগ্রহ
যাত্রা করেছিলো বাঘের গর্জনে, ইতস্তত বর্জনে, বাঘ-বাসিত খাঁচার দিকে
মৃত্যু এসে দাঁড়ালো হয়তো, হয়তো জানতো না মৃত্যু
মৃত্যুও আমাকে কখনো পূর্ণতর মৃত্যুর স্বাদ দিয়ে যেতে পারে নি।

দুরে কোথাও কোন এক মন্দিরে কারো অশরীরি প্রবেশ-ঘন্টা-ধ্বনি শুনি…

তুমি বা তোমরা কি জানো?

“বাঘ সে তখনই বাঘ
যখন সে প্রেমিক ও বিদ্রোহী।”

ছবিঃ ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত।

৯২০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
কর্মজীবনে আমি একজন সফটওয়্যার প্রকৌশলী। শ্রমিক হিসাবে কাজ করছি পূবালী ব্যাংক লিমিটেডের জন্য। লেখালেখি করছি ১২ বছর যাবৎ। প্রথম ছাপার অক্ষরে লেখা প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে প্রথম আলোর "ছুটির দিনে" নামক একটি সাপ্তাহিকীতে "বেপরোয়া" ছদ্মনামে। অনলাইন লেখালেখিতে পদার্পণ করি ২০০৯ সালে "প্রথম আলো ব্লগ" এর হাত ধরে। সেখানেও আমি লেখালেখি করেছি "বেপরোয়া" নামে। একই সাথে লিখতে থাকি ফেসবুকে আমার পাতাতে ওই একই সময়ে। এরপর যুক্ত হই "মুক্ত ব্লগে" ২০১০ সালে "সুমনাস'শ" নাম ধারণ করে। সর্বশেষ যুক্ত হই "ঘুড়ি ব্লগ"-এ ২০১৪ সালে "সুমন সাহা" নামে এবং এখন থেকে চলন্তিকার সাথে যুক্ত হলাম ওই একই নামে। বেশ আগে একজন বলেছিলো, টেক পাবলিক হয়েও কিভাবে এমন লিখতে পারেন আপনি। আমি বলেছিলাম, "লেখারা নিজে থেকে এসে শব্দোৎপাত করলে কি করবো বলুন । অন্য কেউ হয়তো তাঁর কথাগুলো আমাকে দিয়ে লিখিয়ে নিচ্ছে। আমি লিখছি না, আমাকে দিয়ে খোদাই করানো হচ্ছে এই যা।" এই দেখুন লিখে দিলাম, "এ আমার আপন সত্ত্বা, মিলেমিশে একাকার হয়ে তোমার প্রাচীন নিশ্বাস মিশে, অন্ধকারের মাঝে এ আমি কাকে খুঁজি?..." অবশেষে এই অলেখক অবলেখনে বলছে, এই হিজিবিজি অংশখানি পুরোটুকু সময় দিয়ে পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। পাশে থাকুন, ভালো থাকুন, ভালো রাখুন।
সর্বমোট পোস্ট: ৭৬ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৯৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৫-০১-০৩ ০২:৫৪:৩১ মিনিটে
banner

৯ টি মন্তব্য

  1. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব সুন্দর উপস্থাপনা

    খুব ভাল লাগল ।

  2. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    হাসির জায়গায় দিলে ফাঁসি
    ফাঁসির জায়গায় হাসি ,
    সে তো সবার সর্বনাশ
    শান্তি সর্বগ্রাসী।

    • সুমন সাহা মন্তব্যে বলেছেন:

      //হাসির জায়গায় দিলে ফাঁসি
      ফাঁসির জায়গায় হাসি ,
      সে তো সবার সর্বনাশ
      শান্তি সর্বগ্রাসী।//

      বেশতো।

      উপস্থিতি ভালো লাগলো।

      কল্প-বাস্তব, কিছু বিদেহী শোক এবং একমুঠো প্রেম এই কবিতার মূল উপজীব্য উপকরণ।

      আমার কবিতায় আপনার আগমন বার্তা, আমাকে অনেক ভালো লাগা বহন করে দিয়ে গেলো।

      ভালো থাকুন, সহিদুল ইসলাম, নিরন্তর…

      পাশে থাকুন, এভাবেই। যেমনটি ছিলেন এই যে এইমাত্র।

  3. মিলি মন্তব্যে বলেছেন:

    যখন সে প্রেমিক ও বিদ্রোহী না তখন কি ??
    ভাল লিখেছেন :-)

  4. সুমন সাহা মন্তব্যে বলেছেন:

    বেশতো।

    আমার লেখাতে আপনার উপস্থিতি ভালো লাগলো।

    কল্প-বাস্তব, কিছু বিদেহী শোক এবং একমুঠো প্রেম এই কবিতার মূল উপজীব্য উপকরণ।

    ভালো থাকুন, মিলি, নিরন্তর…

    পাশে থাকুন, এভাবেই। যেমনটি ছিলেন এই যে এইমাত্র।

  5. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক ভাল লাগল কবিতা। লিখতে থাকুন দাদা।

  6. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো পড়ে বেশ

    দারুন লিখা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top