Today 18 Nov 2017
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

বীরঙ্গণা ক্রিকেটঃ ICC-হ্যাপোক্রিয়েট

লিখেছেন: সহিদুল ইসলাম | তারিখ: ২৪/০৩/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 266বার পড়া হয়েছে।

Cricket

১৯/০৩/২০১৫ ক্রিকেট ইতিহাসের এক কালো দিবসের নাম। এই দিনটির নাম মনে পড়লেই হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। আমার এক ফেসবুক বন্ধু, রীতা রায় মিঠু দিদির কিছু উক্তি দিয়ে শুরু করবো। রীতা রায় মিঠুদির কিছু উক্তি ফেসবুক থেকে সরাসরি কোট করছিঃ
>> “ফেসবুকে বিচরণ করার সুবাদেই ক্রিকেট নিয়ে একটু উৎসাহিত হয়েছিলাম। বেশী উচ্ছ্বসিত হয়েছিলাম ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে উঠায়। উচ্ছ্বাসে ভাটা পড়েছে যখন জেনেছি কোয়ার্টার ফাইনাল হবে ভারতের সাথে। আমি সব কিছু খুব গভীরে গিয়ে ভাবি। ভারতের সাথে বাংলাদেশের রাজনৈতিক সম্পর্ক এখন বেশ আন্তরিকতাপূর্ণ হয়ে উঠেছে, শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞার কাছে হার মেনেছে পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর একগুঁইয়েমী। মাত্রই বাংলাদেশ সফর করে গেলেন মমতা দিদি, তিস্তার জল বন্টন নিয়ে আগেকার শীতলতা কেটে বন্ধুত্বের উষ্ণতা অনুভূত হচ্ছিল। এরমধ্যে কেন বাংলাদেশ-ভারত ক্রিকেট খেলা হতে গেলো!”
>> “বাংলাদেশ পরাজিত হয়েছে তবে পরাজয়টা স্বাভাবিকভাবে হয়নি, ভারত ভাল খেলে জিতলেও এই জয়ে এবং বাংলাদেশের পরাজয়ে মাঠের আম্পায়ারের অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শের কালিমা লেগে গেছে। খেলা চলাকালীন তো এত কিছু বুঝিনি, কোথায় কী কলকাঠি নড়েছে, ভারতীয় খেলোয়ারদের খেলা ভালো লেগেছে, তাই স্ট্যাটাসে আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে যেমনি স্ট্যাটাস দিয়েছি, বিজয়ী দল হিসেবে”

>> “গোল বেঁধেছে সেখানেই, আম্পপায়ারের পক্ষপাতদুষ্টতা নিয়ে যে দুটি স্ট্যাটাস দিলাম তাতে কারো নজর পড়েনি, সমস্ত নজর গিয়ে পড়েছে বিজয়ী দল হিসেবে ভারতকে অভিনন্দন জানানো স্ট্যাটাসে”

>> মিথীলা জিজ্ঞেস করেছে, ” মা কে জিতেছে?” আমি বলেছি, ইন্ডিয়া। মিথীলা বলেছে, কেন, ইন্ডিয়া কেন?” আমি বলেছি, ” কারণ ইন্ডিয়া ভাল খেলেছে” জবাবে মিথীলা আবার বলেছে, ” আচ্ছা, নেক্সট টাইম বাংলাদেশ ভালো খেলবে, মন খারাপ করো না”

>> “আম্পায়ার যে কয়টি বিতর্কিত সিদ্ধান্ত দিয়েছে, ওগুলো যদি সঠিক সিদ্ধান্তও হতো, তবুও ইন্ডিয়ানদের ভাল বোলিং, ব্যাটিং এবং ফিল্ডিং মিথ্যে হয়ে যেত না, অবশ্যই ইন্ডিয়ার রান ৩০০ হতো না, আবার হতেও পারতো। রোহিত ৯০ করে আউট হতো, রায়না ৩০ করে আউট হতো, পরের ব্যাটসম্যানরা যদি ৩০০ তুলে ফেলতো! এতো গেল ইন্ডিয়ার কথা, বাংলাদেশের বোলিং প্রথম ২৬ ওভারে যেমন তুখোড় হয়েছিল, পরের ওভারগুলো তো তার বিপরিত হয়েছে, ব্যাট করতে এসে কেউ জুটি বাঁধতেই পারেনি, রিয়াদের ক্যাচটি যদি আম্পায়ার ভুল না করতো, তাহলেই কি ধরে নেয়া যায় রিয়াদ ১০০ করতো? করতেও পারতো নাও করতে পারতো। বাংলাদেশের ফিল্ডিং এত খারাপ হয়েছে যা থেকে ইন্ডিয়া অতিরিক্ত ৩০ পেয়েছে”

>> “বিশেষ করে খুবই খারাপ লেগেছে বঙ্গবন্ধুর সৈনিক বলে দাবীদার বন্ধুদের উগ্রতা দেখে, বঙ্গবন্ধুর সৈনিক অথচ আচারে ব্যাবহারে বঙ্গবন্ধুর গুণের ছিঁটেফোটাও নেই!”

উপরের কোট করা সব গুলি উক্তি রীতা রায় মিঠুদির। শুধু মিঠুদি কেন, আরও অনেকে এমন উক্তি করেছেন, আমি দিদির কথার রেশ ধরে কিছু কথা বলবো।

বন্ধু, রীতা দিদি,
আমি ইন্ডিয়া-পাকিস্থানের দালালি পছন্দ করিনা, যদি বাইরের দেশে না থাকতাম বুঝতে পারতাম না, আমাদের কষ্টে ইন্ডিয়ানরা কেমন উল্লাস করে। আমি দেখেছি বাংলাদেশীদের চোখর বারি-ধারা, দেখেছি হৃদয়ের রক্তক্ষরণ। দেখলাম ওরা মেকি জয়ের উল্লাসে কেমন আনন্দে মাতে! দেখলাম ওরা খেলার নামে কেমন করে কোটি কোটি দর্শকদের হৃদয় ভাঙ্গে। দেখলাম ওরা কিভাবে ICC নামের অন্তরালে স্পষ্ট দিবালোকে ক্রিকেটকে ধর্ষণ করলো। আমি মনে করি এমন জয়ে সমর্থন করা মানে নিজেই নিজের সাথে ভন্ডামি করা। দিদি, আপনি ভারতের জয়ে সমর্থন করেই ক্ষান্ত হননি, পর্বতসম যার জনপ্রিয়তা, আমার পরম শ্রদ্ধেয় নেতা , বাঙ্গালীর মুক্তির কান্ডারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রসংগও টেনেছেন। দিদি, আপনি ভারতের জয় সমর্থন করেন আমার কিছু বলার নাই, কিন্তু জেনে রাখেন, বংগবন্ধু যদি সেদিন অপরাধীদের ক্ষমা না করতেন (আমি বলবো, বঙ্গবন্ধু এখানে ভুল করেছিলেন) তাহলে সপরিবারে এমন নির্মম পরিনতির শিকার হতে হতোনা।

আমাদের এই দেশে যে শুধু ভারতের শুভাকাঙ্ক্ষী-হিতাকাঙ্ক্ষী আছে তা নয়, এর চেয়ে বেশী আছে পাকিস্থানের শুভাকাঙ্ক্ষী। আমি যেখানে বর্তমানে বাস করছি এখানে এমন কিছু পতঙ্গ আছে যে, বাংলাদেশ-পাকিস্থান খেলার দিন এমন কথা উচ্চারণ করল যে, বুঝলাম না, সে কি বাংলার না পাকিস্থানের রক্তে তৈরী। বাংলাদেশ-পাকিস্থান খেলার দিন যখন বাংলাদেশ হারে পতঙ্গগুলি হাত তুলে মোনাজাত করে, আল্লাহ তুমি সম্মান বাঁচিয়েছ, নইলে শেখ হাসিনার কথার তোরে থাকা যেত না।

এসব পতঙ্গ যদি কোন দেশে থাকে তাহলে কি করে সেই দেশ উন্নতি করবে? কি করে সেই দেশে শান্তি বজায় থাকবে?এইসব পতঙ্গদের কারণেই তো আজো আমার স্বাধীন বাংলায় নিরপরাধ মানুষ পুরিয়ে মারে।ওইসব পতঙ্গদের কারণেই তো আজো আমার স্বাধীন মায়ের বুকে গুম-খুনকারীরা মানুষ গুম করে ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকে।

সুতরাং আমি বলতে চাই, ভারত-পাকিস্থানের দালালেরা, বাংলার বুকে আজো তোমরা দাপিয়ে বেড়াও? এখনো সময় আছে, সাবধান-হুশিয়ার।আজকে আমি বীরঙ্গনা-ক্রিকেটকে বাঁচাতে, মুক্তিকামী বাংলাদেশ নয় শুধু বিশ্ববাসীকে আহ্বান করবো, আর ইন্টারন্যাশনাল চিটিং কাউন্সিলকে আর সময় দেয়া যাবে না।আজকে যদি আমরা সবাই ICC নামের ধর্ষকদের বিরুদ্ধে সোচ্চার না হই, তাহলে ক্রিকেট নামের বীরঙ্গণাকে বাঁচাতে পারবো না। কারণ, লজ্জা এবং অপমান সইতে না পেরে এই বীরঙ্গণা ক্রিকেট নিজেই আত্মহত্যা করবে অথবা ওই ধর্ষকরাই ধর্ষণ করে বীরঙ্গণা ক্রিকেটকে হত্যা করবে।

মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিংগাপুর
Sahidul77@gmail.com

২৫৫ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমার পরিচিতিঃ আমি, মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম, পিতাঃ ডাঃ মোঃ সফি উদ্দিন, ১৯৭৭ সালের ১লা জানুয়ারী, আমার জন্ম-ঢাকা জেলার ধামরাই থানার বেলীশ্বর গ্রামে নানা আলী আজগর মুন্সির বাড়ীতে । পৈত্রিক নিবাস, ঢাকা জেলার ধামরাই থানার অর্জ্জুন-নালাই গ্রামে, কিন্তু বাবার চাকরী জনিত কারনে আমি ছোটবেলা থেকেই মানিকগঞ্জ জেলার, সাটুরিয়া থানার বরুন্ডী গ্রামে বড় হই। বর্তমানে এই গ্রামেই আমি স্থায়ী ভাবে বসবাস করছি। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে আমি বাবা-মার প্রথম সন্তান। আমার লেখাপড়া শুরু হয় উমানন্দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এবং এই বিদ্যালয় থেকে ৪র্থ শ্রেণী ও বরুন্ডী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করি, পরে কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক মঞ্জুরীকৃত ধানকোড়া গিরীশ ইনস্টিটিউশন (হাই স্কুল) হতে ১৯৯২ সালে সাফল্যের সহিত এস,এস,সি পরীক্ষা পাশ করি । সরকারী দেবেন্দ্র কলেজ হতে ১৯৯৪ সালে আই,কম, ১৯৯৬ সালে বি,কম এবং একই কলেজ থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়_বাংলাদেশের অধীনে ১৯৯৮ সালে ব্যবস্থাপনা বিষয়ের উপর এম,কম সমাপ্ত করি। এম,কম শেষ পর্বের পরীক্ষা শেষ করার আগেই আমি ১৯৯৮ সালে একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করি এবং চাকুরীরত অবস্থায় এম,কম সমাপনী পর্ব সাফল্যের সাথে সমাপ্ত করি। ২০০৮ সাল পর্যন্ত আমি বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করি। ২০০৯ সাল হতে আগস্ট/২০১৪ সাল পর্যন্ত জুরং শিপইয়ার্ড_ সিঙ্গাপুরে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে এবং সেপ্টেম্বর/২০১৪ হতে অদ্যাবধি প্রজেক্ট সুপারভাইজার হিসেবে _ স্যাম্বক্রপ মেরিন_সিঙ্গাপুরে কাজ করছি। আমি ছোটবেলা থেকে লেখালেখি করি । মানিকগঞ্জ সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের আবহমান বাংলা ম্যাগাজিনে প্রথম লেখা শুরু। আমি গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ ( রাজনৈতিক এবং সমসাময়িক) এবং উপন্যাস লেখতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। আধুনিক বা সাম্প্রতিক পটভূমিকা নিয়ে লেখাই হল আমার অভিগমন। মানুষের দুঃখ-দুর্দশা আমার মনকে সর্বাধিক ক্ষতবিক্ষত করে। আমার প্রথম প্রকাশিত বইয়ের নাম “আবীর”। যৌথভাবে আমার প্রকাশিত বই ১০০ কবির প্রেমের কবিতা ২য় এবং ৩য় খণ্ড। আমি দেশ এবং বিদেশের বেশ কিছু অনলাইন এবং প্রিন্ট মিডিয়ায় নিয়মিত গল্প, কবিতা এবং উপন্যাস লিখছি_ এর মধ্যে রয়েছে _ বাংলারকন্ঠ (সিঙ্গাপুর), দৈনিক সিলেটের আলাপ, আমাদের কিশোরগঞ্জ, বাংলারকন্ঠ(অস্টেলিয়া), সাভার নিউজ ২৪ ডট কম, সংবাদ ২৪ ডট নেট, প্রিয় ডট কম, রাঙ্গুনিয়া ২৪ ডট কম, এবি নিউজ২৪, বিবেকবার্তা ডট কম, বাংলা কবিতা ডট কম, বিডি নিউজ ২৪ ডট কম, গল্প কবিতা ডট কম ইত্যাদি। মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম Sahidul_77@yahoo.com
সর্বমোট পোস্ট: ১৪৪ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৫৩৫ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-১০-১১ ১৭:০২:১৬ মিনিটে
Visit সহিদুল ইসলাম Website.
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. জসিম উদ্দিন জয় মন্তব্যে বলেছেন:

    ১৯/০৩/২০১৫ ক্রিকেট ইতিহাসের এক কালো দিবসের নাম। সত্যি বলেছেন । সেদিন খুব কষ্ট পেয়েছি খেলাটি দেখে । আমাদের সাথে এই রকম করা হয়েছে ।

  2. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    জসিম উদ্দিন জয়, ভাই
    অনেক ধন্যবাদ , ভালো থাকবেন

  3. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    Cricket is a mind game ! কথাটা কারো মাথায় থাকলে কিংবা ক্রিকেটীয় জ্ঞান থাকলে রীতা রায় মিঠু দির মতো কেউ বলতে পারতো না ! কারণ, একটা ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যাওয়ার পর তাঁকে ২২ গজে আবার ব্যাট করতে দেখা কতটা হতাশাজনক তা কেবল যারা মাঠে থাকে তাদের পক্ষেই বিশ্লেষণ করা সম্ভব ! তেমনি দলের একজন ইনফর্ম ব্যাটসম্যান ভালো খেলতে থাকা অবস্থায় একটা ভুল আউটের স্বীকার হয়ে মাঠ ছাড়লে দলের মনের অবস্থা কোথায় গিয়ে ঠেকে তাও কেবল ঐ দলের সদস্যরাই ভালো বলতে পারবে ।
    সত্যিকার অর্থে এখনো আমাদের বিবেক সত্যকে সত্য বলে স্বীকার করতে কিংবা মিথ্যাকে মিথ্যা বলে প্রত্যাখ্যান করতে শেখেনি ।
    লিখা ভালো লেগেছে ।

  4. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশ হারেনি
    জয়ী বাংলাদেশ
    বাট কলঙ্কিত হয়েছে ক্রিকেট ……………….

  5. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    সহিদ ভাই স্মৃতি টা আবার জাগিয়ে দিলে। মনে হপ্লেই কস্ট লাগে।

  6. সেতারা ইয়াসমিন হ্যাপি মন্তব্যে বলেছেন:

    লেখাটা খুবই ভাল লেগেছে… মনের জমে থাকা ক্ষোভগুলো প্রকাশ করতে পারছিলামনা… আপনি পেরেছেন তাই ভাল লাগলো ভাইয়া… ভালো থাকবেন!

  7. সেতারা ইয়াসমিন হ্যাপি মন্তব্যে বলেছেন:

    প্রথম আলো’তে সহিদ ভাইয়ার এই লেখাটা পড়লাম… জাতীয় একটা দৈনিকে আপনার লেখা দেখে খুব ভাল লেগেছে ভাইয়া… তাও আবার এমন প্রতিবাদী একটা লেখা… ধন্যবাদ ভাইয়া… নিয়মিত লিখুন… আপনি বাইরে থেকেও দেশের জন্য এত ভাবেন সেটা ভাবতেই ভালো লাগছে… ভাল থাকুন সবসময়…অনেক দোয়া!

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top