Today 27 Nov 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

ভালোবাসার অথবা ছলনার গল্প (পর্ব-০৫-আনুমানিক!)

লিখেছেন: সুমন সাহা | তারিখ: ২৪/০৩/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 708বার পড়া হয়েছে।

stock-footage-sad-boy-at-park

উষশীর মনটা না, আজ খুব খারাপ।
সারা সকাল ভর সে অনেকগুলো কাগজ ছিড়েছে
দলা পাকিয়ে ছুঁড়ে দিয়েছে ড্রেনের দিকে
ফেলে দেওয়ার পর;
একবারও ফিরে তাঁকায়নি সেদিকে
ইস্!
উষশীর আজ মন ভালো নেই।

চাবুক; ঘায়েল করতে পারে খুব,
তুলে ফেলতে পারে শরীরের চামড়া
এরপরে লবন মাখিয়ে দিলে; জ্বলে-পুড়ে হয় খাক।
এক অদৃশ্য চাবুক আজ সারাদিন, খুব করে মারলো উষশীকে
আর অশ্রুরা এসে করে গেল লবনের কাজ
গলে গলে।

শ্রাবণ বসে রইলো পার্কের বেঞ্চিতে,
হাঁ করে আকাশের দিকে তাঁকিয়ে
দিনভর দেখলো;
কতগুলো মেঘ এদিক হতে চলে গেল আকাশটার ওদিকে
যেন আকাশ এক বিশাল দর্শনীয় বস্তু;
মেঘ গুণে দেখার চাকরি দেওয়া হয়েছে তাকে; মোটা বেতনে।

শ্রাবণ আর উষশীর গল্প বোধহয় এখানেই শেষ হলে ভালো হতো
কিন্তু না, তা আর হলো কৈ,
সন্ধ্যার দিকে উষশীর ফোনে একটা মেসেজ গেলো,
তাতে লেখা;
“I QUIT, O DEAR, I SHOULD BE ZERO”.
উষশী ফোন হতে দ্রুত মেসেজটি মুছে ফেললো,
যেন জঞ্জাল রাখতে নেই একদম;
দ্রুত সে পটপরিবর্তন করে;
নতুনের পথে পা বাড়ালো বা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলো।

তবে কিছুটা জল চোখের কোণে তখনও ছিলো উষশীর।

আর শ্রাবণ;
শ্রাবণের কি হলো?
শ্রাবণ কি মারা গেলো?
কই নাতো;
শ্রাবণ-কে তো দেখলাম;
মোড়ের চায়ের দোকানে বসে বসে-
সিগারেট আর চা গিলছে,
মুখ ভর্তি হাসি, নতুন শেভ করেছে
মুখে দাড়ি নেই একদম;
ক্লিনড শেভ বলা যেতে পারে।

পাশ দিয়েই যাচ্ছিলাম হেঁটে;
শুনতে পেলাম সে বলছেঃ
যা দিলাম নারে দোস্ত, একটা গাধি-কে।
মনে হয় এতোক্ষণে সুইসাইড-টুইসাইড করে ফেলেছে; বলদ, সে কি আস্ত বলদ। একেবারে রাম-বলদ!
এত বলদ মানুষ হয়, ওরে না দেখলে বিশ্বাস করতে পারবি না। হি…হি…!

(আমিও হেসে উঠলাম, একইসাথে। শ্রাবণের হাসির মধ্যে এমন একটি ব্যপার আছে, যা সংক্রমিত হয় সহজেই অন্য ঠোঁটে বা সংক্রমণ ঘটাতে ওস্তাদ অন্য অনুভূতিকে। সব দেখে-শুনে মনে হচ্ছে, দু’জনেই আসলে শ্রাবণ আর উষশী, এই মুহুর্তে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখি দুটি ছেলে আর মেয়ে।)

(চলবে…………….)

ছবিঃ ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত।

৬৮২ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
কর্মজীবনে আমি একজন সফটওয়্যার প্রকৌশলী। শ্রমিক হিসাবে কাজ করছি পূবালী ব্যাংক লিমিটেডের জন্য। লেখালেখি করছি ১২ বছর যাবৎ। প্রথম ছাপার অক্ষরে লেখা প্রকাশিত হয় ২০০৪ সালে প্রথম আলোর "ছুটির দিনে" নামক একটি সাপ্তাহিকীতে "বেপরোয়া" ছদ্মনামে। অনলাইন লেখালেখিতে পদার্পণ করি ২০০৯ সালে "প্রথম আলো ব্লগ" এর হাত ধরে। সেখানেও আমি লেখালেখি করেছি "বেপরোয়া" নামে। একই সাথে লিখতে থাকি ফেসবুকে আমার পাতাতে ওই একই সময়ে। এরপর যুক্ত হই "মুক্ত ব্লগে" ২০১০ সালে "সুমনাস'শ" নাম ধারণ করে। সর্বশেষ যুক্ত হই "ঘুড়ি ব্লগ"-এ ২০১৪ সালে "সুমন সাহা" নামে এবং এখন থেকে চলন্তিকার সাথে যুক্ত হলাম ওই একই নামে। বেশ আগে একজন বলেছিলো, টেক পাবলিক হয়েও কিভাবে এমন লিখতে পারেন আপনি। আমি বলেছিলাম, "লেখারা নিজে থেকে এসে শব্দোৎপাত করলে কি করবো বলুন । অন্য কেউ হয়তো তাঁর কথাগুলো আমাকে দিয়ে লিখিয়ে নিচ্ছে। আমি লিখছি না, আমাকে দিয়ে খোদাই করানো হচ্ছে এই যা।" এই দেখুন লিখে দিলাম, "এ আমার আপন সত্ত্বা, মিলেমিশে একাকার হয়ে তোমার প্রাচীন নিশ্বাস মিশে, অন্ধকারের মাঝে এ আমি কাকে খুঁজি?..." অবশেষে এই অলেখক অবলেখনে বলছে, এই হিজিবিজি অংশখানি পুরোটুকু সময় দিয়ে পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। পাশে থাকুন, ভালো থাকুন, ভালো রাখুন।
সর্বমোট পোস্ট: ৭৬ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৯৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৫-০১-০৩ ০২:৫৪:৩১ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. সেতারা ইয়াসমিন হ্যাপি মন্তব্যে বলেছেন:

    আজকালকার ছেলেমেয়েদের যে রিলেশন সেটাকে আর যাই বলা হোক ভালবাসা বলে তাঁর অমর্যাদা করতে চাইনা মোটেও…! এরা এখন ড্রেস এর মত ভালবাসার মানুষ বদলায়… ধৈর্য্য সহ্য নেই মোটেও…!

    ভাল লাগলো বাস্তবসম্মত লেখা…শুভেচ্ছা…!

  2. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    দারুণ কাব্যিক প্রকাশ, ভাল লাগল বেশ।
    শুভেচ্ছা জানাই কবিকে –

  3. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    ঊষশীকে নিয়ে দারুণ উষ্ণতাপূর্ণ লিখা । সাথে আছে সামাজিক সচেতনতার বার্তাও ।
    শুভেচ্ছা নিরন্তর প্রিয় । ভালো থাকুন ।

  4. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    বেশ কাব্যিক প্রকাশ ,,,,,,,,,,,,,দারুণ উষ্ণতাপূর্ণ লিখা ….
    সাথে সামাজিক সচেতনতার বার্তা
    বেশ বেশ দারুণ
    মুগ্ধ হবার মতো

    শুভ কামনা থাকলো
    ভাল থাকুন ভাল লিখুন

  5. জসিম উদ্দিন জয় মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালোবাসার অথবা ছলনার গল্প টি । লিখাটা ভালো হয়েছে । নিয়মিত লিখাটি লিখে যান । শুভেচ্ছা রইলো ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top