Today 16 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

ভালোবাসার নিদর্শন মাথিনের কূপ

লিখেছেন: শাম্মী শিল্পী তুলতুল | তারিখ: ২৬/০৯/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 503বার পড়া হয়েছে।

1

ভালোবাসার প্রিয় মানুষটির জন্য দীর্ঘসময় অপেক্ষা করে অনিদ্রা আর অনাহারে নিজের জীবনকে চিরদিনের জন্য বিসর্জন দিয়েছে এক রাখাইন জমিদার কন্যা। নাম তার মাথিন। প্রেমের বহুল আলোচিত সেই ঘটনার কালজয়ী সাক্ষী আজকের ঐতিহাসিক মাথিনের কূপ। যা রয়েছে সীমান্ত উপজেলার টেকনাফ থানা কম্পাউন্ডে। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে সীমান্ত এলাকা টেকনাফ থানায় বদল হয়ে আসেন ধীরাজ ভট্টাচার্য নামের এক সুদর্শন পুলিশ অফিসার। তিনি চাকরি করতে আসেন সুদূর কলকাতা থেকে। ধীরাজ খুবই একাকী সময় কাটাতেন। ধীরাজ তার কর্মের ফাঁকে প্রায় সময় থানার বারান্দায় চেয়ার নিয়ে বসে থাকতেন। টেকনাফ থাকা কম্পাউন্ডে ছিল বিশাল একটি পানির কূপ। রংবেরঙের পোশাক পড়ে পাতকুয়া থেকে কলসী হাতে পানি নিতে আসত আশপাশের রাখাইন যুবতীরা। এখানে রাখাইন এক যুবতীর মৃদু কণ্ঠে ভেসে আসা সুরলা গান শুনে মুগ্ধ হয় প্রেমিক দারোগা ধীরাজ। লোকজনের কাছ থেকে জানা যায় পুরো টেকনাফ জুড়ে এটি ছিল একমাত্র পাতকুয়া। তাই সেখানে ১৪-১৫ বছর বয়সী রাখাইন কন্যারা আড্ডা দিত সবসময়। একদিন আসা-যাওয়ার পথে স্থানীয় জমিদার ওয়াংথিনের একমাত্র রূপবতী কন্যা মাথিনকে দেখে ভালোবেসে ফেলে ধীরাজ। এরপর থেকে প্রতিদিন সকালে থানার বারান্দায় মাথিনের আসা-যাওয়া দেখত। এভাবে একপর্যায়ে তাদের দু’জনের মধ্যে গড়ে উঠে ভালোবাসার সম্পর্ক। মন দেয়া নেয়ার কিছুদিন যেতে না যেতেই কলকাতা থেকে দারোগা ধীরাজের পিতার জরুরি টেলিগ্রাম আসে। খুব জরুরি বাবার টেলিগ্রাম পেয়ে ধীরাজ  চলে গেলেন। কিন্তু যাওয়ার আগে মাথিনকে ফিরে এসে বিয়ে করার প্রতিশ্র“তি দিয়ে যান। কিন্তু ধীরাজ আর ফিরে আসেনি। এদিকে ভালোবাসার মানুষের অপেক্ষা প্রহর গুনতে গুনতে অনাহার ও অনিদ্রায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে জমিদার কন্যা মাথিন। সে থেকেই পাতকুয়াটির নামকরণ করা হয় ‘মাথিনের কূপ’। ১৯৩০ সালে ধীরাজ ভট্টাচার্যের ব্যক্তিগত জীবনী নিয়ে লেখা ‘যখন পুলিশ ছিলাম গ্রন্থে’ তারই ভালোবাসার স্মৃতি মাথিনের কথা লিখেছেন। যে বইটি লাহোরের ওবাইদুল্লাহ রোডের জিলানী ইউনিক প্রেস থেকে ১৯৩০ সালে প্রকাশিত হয়। এই বইয়ের বিখ্যাত চরিত্রে মাথিনের কূপ সংশ্লিষ্ট কাহিনীটি রচিত হয়েছে। এখন বছরজুড়েই দেশ-বিদেশের অনেক পর্যটক টেকনাফের মাথিনের কূপ দেখতে আসেন।

2

৫৮০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১২ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-২৬ ০৯:০৩:০৬ মিনিটে
banner

৬ টি মন্তব্য

  1. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল একবার

    অনেক ভাল লাগা।

  2. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনাকে স্বাগতম
    চমত্‍কার লিখেছেন তো !
    ভাল লাগা জানিয়ে দিলাম ।

  3. তুষার আহসান মন্তব্যে বলেছেন:

    অজানা কথা জানলাম।

    পোস্টে ভাল লাগা

    চলন্তিকায় স্বাগতম।

  4. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    চলন্তিকায় আপনাকে স্বাগতম।

  5. ছাইফুল হুদা ছিদ্দিকী মন্তব্যে বলেছেন:

    ঐতিহাসিক মাথিনের কূপ যা রয়েছে সীমান্ত উপজেলার টেকনাফ থানায়। এটা চট্রগ্রাম বিভাগে। আপনার লেখায় ভালো লাগা রইলো।ধন্যবাদ।

  6. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল বিষয়টি জেনে

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top