Today 14 Nov 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

ভিক্ষাবৃত্তিকে রোধ করার জন্য সরকারিভাবে পদক্ষেপ নেয়া দরকার

লিখেছেন: আমির ইশতিয়াক | তারিখ: ০৩/১১/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 852বার পড়া হয়েছে।

1379258075.

ভিক্ষাবৃত্তি আমাদের সমাজের একটি অন্যতম সমস্যা। সমস্যাটির ব্যাপকতা ও গভীরতা বুঝতে আমাদের বেগ পেতে হয় না। কেননা আমরা যেদিকে তাকাই সেদিকেই এর চিত্র দেখতে পাই। যেমন- রেলস্টেশন, ট্রেনের ভিতর, বাসস্টেশন, বাসের ভিতর, লঞ্চঘাট, লঞ্চের ভিতর, হাট-বাজার, রাস্তা-ঘাট, ওভার ব্রিজ, ফুটপাত, মসজিদ-মাদ্রাসা, দোকানপাট, স্কুল-কলেজ, মাজার, ওরশ, ঈদগাহ ও ধর্মীয় ওয়াজ মাহফিলসহ যেকোন সাধারণ জনসমাবেশে ভিক্ষুকদেরকে দেখা যায়। আবার অনেক ভিক্ষুক আছে তারা মানুষের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে তাদের উপস্থিতির কথা জানান দেয়। তারা কেবল তাদের উপস্থিতির খবর জানিয়েই ক্ষান্ত হয় না তারা তাদের শারীরিক অক্ষমতার পরিচয় দিয়ে জনগণনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে থাকে। বিভিন্ন সুরে তারা কাকুতি মিনতি করে তাদের অসহায়ত্বের পরিচয় তুলে ধরে। বিভিন্ন অভাব অভিযোগের কথা করুণ সুরে বর্ণনা করে। পাশাপাশি অর্থ পাওয়ার জন্য হাত পাততে একটুও দ্বিধাবোধ করে না। তাদের এহেন কার্যকলাপে অনেকে হয়তো বিরক্তভাব প্রকাশ করে। আবার অনেকে ভিক্ষুকের কাছে ক্ষমা চায়। পারলে কেউ সাহায্য করে। না পারলে তাড়িয়ে দেয়। অনেকে আবার ভিক্ষুকদের সাথে যা তা ব্যবহার করে। এভাবে ভিক্ষুকরা অন্যের করুণার উপর বেঁচে থাকে।
পৃথিবীতে যত প্রকার পেশা আছে তার মধ্যে সবচেয়ে নিকৃষ্ট পেশা হচ্ছে ভিক্ষাবৃত্তি। তারপরও আমাদের দেশে হাজার লোক এ পেশায় নিয়োজিত। এখন আমাদের তলিয়ে দেখা দরকার কেন এমন একটি নিকৃষ্ট পেশা বেচে নেয় মানুষ? আমাদের জানা দরকার আমাদের দেশে প্রকৃত ভিক্ষুক কয় জন? ভিক্ষুকদেরকে কারা ব্যবহার করে? ভিক্ষাবৃত্তির প্রকৃত কারণ কি? এর সমাধান কিভাবে করা যায়? ইত্যাদি।
ভিক্ষাবৃত্তি শুধু মাত্র একটি সামাজিক কারণই নয়। এটি অন্যান্য সমস্যারও কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ভিক্ষুকরা নির্ভরশীল জনসংখ্যারই একটি অংশ। কেননা এরা কোন উৎপাদন করে না। এরা শুধু ভোগ করে আর আয় করে। এরা রাস্তা ঘাটে যাত্রীদেরকে বিরক্ত করে। এতে অনেক যাত্রী এদের প্রতি নাখোশ। ভিক্ষুকরা সাধারণত নানা ধরনের রোগ ব্যধিতে ভুগে এবং প্রকৃত চিকিৎসা করাতে তারা ব্যর্থ হয়। যার ফলে একজনের রোগ অন্যজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। অনেক অপরাধী ভিক্ষুকের ছদ্মবেশে আত্মগোপন করে থাকে। ভিক্ষাবৃত্তি শিশু অপরাধের অন্যতম কারণ। কেননা অনেক লোক আছে তারা শিশুদেরকে অপহরণ করে নিয়ে তাদেরকে পঙ্গু করে ভিক্ষার কাজে লাগিয়ে দেয়। বেঁচে থাকার জন্য যতটুকু দরকার ততটুকু তাদেরকে দেয়া হয় আর বাকীটুকু ঐসব লোক গ্রহণ করে।
চরম আর্থিক সংকট ও দারিদ্র হলো ভিক্ষাবৃত্তির প্রধান কারণ। শারীরিক অক্ষমতাও ভিক্ষবৃত্তির আরেকটি অন্যতম কারণ। যেমন- অন্ধ, খোড়া, বোবা ব্যক্তি চরম আর্থিক সংকটে পড়ে তারা ভিক্ষাবৃত্তি বেছে নেয়া ছাড়া আর কোন বিকল্প পথ খুঁজে পায় না। আমাদের সমাজে যেসব ভিক্ষুক দেখা যায় তারমধ্যে এ ধরনের ভিক্ষুকের সংখ্যা বেশি দেখা যায়। অনেকে দুরারোগ্য ব্যধির কারণে ভিক্ষাবৃত্তি অবলম্বন করে থাকে। তারা দুর্বল, অচল ও অকালে বৃদ্ধ হয়ে পড়ে। পারিবারিক কারণেও অনেকে ভিক্ষা করে। দেখা যাচ্ছে মা-বাবা ভিক্ষা করছে সে সূত্রে তার সন্তানরাও ভিক্ষা করছে। অনেক মহিলা আছে যারা বিধবা, বিবাহ বিচ্ছেদ ও এতিম হওয়ার কারণে ভিক্ষা করে। অনেকে ধর্মীয় লেবাস পড়ে ভিক্ষা করে। আমাদের গ্রামাঞ্চলে দেখছি অনেকে পাঞ্জাবি টুপি মাথায় দিয়ে দাড়ি রেখে ভিক্ষা করতে। উঠানের কোণে দাঁড়িয়ে বিভিন্ন গজল ও ওয়াজ করতে থাকে। ভিক্ষা পেলে হাত তুলে সু-দোয়া করতে থাকে। আর ভিক্ষা না পেলে বদ-দোয়া করতে থাকে। অথচ আমাদের ইসলাম ধর্মে ভিক্ষাকে সমর্থন করেনি। বরং নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। হযরত মুহাম্মদ (স.) এ ব্যাপারে অনেক দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। কথিত আছে একদা এক ভিক্ষুক হযরত মুহাম্মদ (স.) এর নিকট এসে ভিক্ষা চাইলেন। হযরত মুহাম্মদ (স.) তখন তাকে ভিক্ষা না করে কর্ম করে খাওয়ার জন্য উপদেশ দিলেন। ভিক্ষুক ব্যক্তির একমাত্র সম্ভব ছিল একটি কম্বল। আল্লাহর রাসুল (স.) তার সেই কম্বলটি বিক্রি করে অর্ধেক টাকা দিয়ে একটি কুঠার কিনে দিলেন আর বাকী অর্থেক টাকা দিয়ে খাবারের ব্যবস্থা করলেন। হযরত মুহাম্মদ (স.) এর পরামর্শ অনুযায়ী সেই ব্যক্তি কুঠার দিয়ে কাঠ কেটে বাজারে বিক্রি করে এক সময় স্বাবলম্বী হয়। একদিন তার অভাব মুছে গেল। ভিক্ষার আরেকটি কারণ এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে। সেটি হচ্ছে ভিক্ষা একটি সহজ ও লাভজনক একটি ব্যবসা। বিনাশ্রমে, বিনা পুঁজিতে এরচেয়ে সহজ ব্যবসা আর কি হতে পারে। তাছাড়া অলসতা আরেকটি কারণ। অনেকে অলসতার কারণে কোন কাজ করতে চায় না। তারা তখন সহজ ব্যবসা হিসেবে এ ভিক্ষা পেশাকে বেচে নেয়।
এতক্ষণ ভিক্ষাবৃত্তির কারণে অন্যান্য সমস্যা ও ভিক্ষাবৃত্তির কারণগুলো আলোচনা করা হলো। এখন কিভাবে এ পেশা ভিক্ষাবৃত্তিকে আমাদের সমাজ থেকে রোধ করা যায় তা নিয়ে কিছু কথা বলা দরকার। আমি মনে করি অন্ধ, পঙ্গু ও দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত দরিদ্র ব্যক্তি ছাড়া আর সবাই কাজ করতে সক্ষম। এ তিন প্রকার লোকই ভিক্ষা পাওয়ার উপযুক্ত। তবে তাদেরকে ভিক্ষা হিসেবে না দিয়ে দান করা উচিত। তারা চাওয়ার আগেই আমরা যারা সমর্থবান আছি তারা তাদেরকে সাহায্য করতে পারি। আর যারা বিভিন্ন অজুহাতে ভিক্ষা করে তারা যার যার সমর্থ অনুযায়ী কাজ করতে হবে। যে যে কাজ পারে সে সে কাজ করে জীবিকা অর্জন করবে। পাশাপাশি সরকারিভাবে এসব দরিদ্র লোকদের জন্য কাজের ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে তারা বেকার বসে না থাকে। যারা কাজ করতে পারে না তাদেরকে সরকারিভাবে ভাতা দিতে হবে। আর যারা প্রকৃতপক্ষে অলসতার কারণে কাজ করার সমর্থন ও সুযোগ থাকার পরও ভিক্ষা করে তাদেরকে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে দেশ থেকে ভিক্ষাবৃত্তি রোধ করা যাবে। আর সরকারকে এর জন্য জরুরী পদক্ষেপ নিতে হবে। তবে বিশেষ করে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় এর জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে পারে। কেননা ভিক্ষাবৃত্তি কোন একটি দেশের বা সমাজের এক বিশেষ দরিদ্র ও হতাশার চিত্র বিশ্বের কাছে তুলে ধরে।

৯০৪ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমির ইশতিয়াক ১৯৮০ সালের ৩১ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর থানার ধরাভাঙ্গা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা শরীফ হোসেন এবং মা আনোয়ারা বেগম এর বড় সন্তান তিনি। স্ত্রী ইয়াছমিন আমির। এক সন্তান আফরিন সুলতানা আনিকা। তিনি প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করেন মায়ের কাছ থেকে। মা-ই তার প্রথম পাঠশালা। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শুরু করেন মাদ্রাসা থেকে আর শেষ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নরসিংদী সরকারি কলেজ থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই লেখালেখি শুরু করেন। তিনি লেখালেখির প্রেরণা পেয়েছেন বই পড়ে। তিনি গল্প লিখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করলেও সাহিত্যের সবগুলো শাখায় তাঁর বিচরণ লক্ষ্য করা যায়। তাঁর বেশ কয়েকটি প্রকাশিত গ্রন্থ রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হলো- এ জীবন শুধু তোমার জন্য ও প্রাণের প্রিয়তমা। তাছাড়া বেশ কিছু সম্মিলিত সংকলনেও তাঁর গল্প ছাপা হয়েছে। তিনি নিয়মিতভাবে বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় গল্প, কবিতা, ছড়া ও কলাম লিখে যাচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্লগে নিজের লেখা শেয়ার করছেন। তিনি লেখালেখি করে বেশ কয়েটি পুরস্কারও পেয়েছেন। তিনি প্রথমে আমির হোসেন নামে লিখতেন। বর্তমানে আমির ইশতিয়াক নামে লিখছেন। বর্তমানে তিনি নরসিংদীতে ব্যবসা করছেন। তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা একজন সফল লেখক হওয়া।
সর্বমোট পোস্ট: ২৪১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৪৭০৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-০৫ ০৭:৪৪:৩৯ মিনিটে
Visit আমির ইশতিয়াক Website.
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ে প্রবন্ধ লিখেছেন ।

  2. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ ভাই

  3. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    ভিক্ষাবৃত্তির মত সামাজিক ব্যাধি নিয়ে লিখা প্রবন্ধটি বেশ মানবিক হয়েছে।
    সুচিন্তিত মত প্রকাশ হয়েছে কিভাবে এই ভিক্ষাবৃত্তিকে রোধ তার একটা দিকনির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।লেখককে ধন্যবাদ মতামত সহকারে সুন্দর লেখাটি পেশ করার জন্য।

  4. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ আরজু ভাই সুন্দর মতামতের জন্য।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top