Today 16 Dec 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

মনমোহনী বৃক্ষ-অংশ ২৯

লিখেছেন: রাজিব সরকার | তারিখ: ১৭/১২/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 297বার পড়া হয়েছে।

এই বলে তারা একটু দূরে গিয়ে পলিথিন পাতল।কিছুক্ষণ পর ঘুমিয়ে পড়ল।ঘুম ভাঙ্গল প্রচণ্ড বৃষ্টিতে।নিহাতের মনে হচ্ছিল,কে যে পানি ঢেলে দিচ্ছে।চোখ মেলে তাকিয়ে দেখে অঝোর ধারায় বর্ষণ হচ্ছে।সবাই বসে আছে।শরীরে কাঁপন শুরু হয়েছে।কিছু দিয়ে মুছবে সে জো নেই।কিছুক্ষণ পর বৃষ্টি থামল।নীলিত বলল-বাবা ভোরের সূর্য,দেখ কি সুন্দর?চারদিকে আলোক রাশি ছড়িয়ে পড়ছে।
নীলিন তাকাল।ভোরের প্রথম আলো যে কবে দেখেছে তা ঠিক মনে পড়ে না।তাদের সবাই ভোরের প্রথম আলো দেখছে।মোহনী বলল-কী সুন্দর,কী সুন্দর!
এরপর নীলিন তিনটা রিক্সা ডাকল।চিত্রা বলল-রিক্সা ডাকছ কেন?
-কেন আবার,সারাজীবন এখানে পড়ে থাকব নাকি?আমাদের থাকার একটা বাড়ি আছে নাকি?
চিত্রা কি বলবে ভেবে পেল না।তবে তার খুব আনন্দ হচ্ছে।মনে হচ্ছ খুব হইচই করতে।রুপা বাবাকে জড়িয়ে ধরে বলল-থ্যাংক ইউ বাবা।
নীলিন বলল-তোদের অনেক কষ্ট দিয়েছি।আর না।
রুপা,নীলিত,নিহাত,মোহনী একসাথে হুররে হু করে উঠল।চিত্রা ও নীলিন তাদের আনন্দ দিচ্ছে।তাদের খুব ভাল লাগছে।
কয়েকদিন পর।নীলিন অফিস হতে ফিরেই নিহাতকে ডাকল।
-তোমার জন্য একটা মেয়ে দেখছি।সামনে রবিবার তোমার বিয়ে।
-বাবা আমার এখনও পড়া শেষ হয় নি।
-সে আমি জানি।মেয়েকে তোমার মাও দেখেছে।আমাদের দুজনের খুব পছন্দ।
-বিয়ে করে খাওয়াব কি?
-সে নিয়ে তোমার চিন্তা করতে হবে না।তোমার খাওয়া যেহেতু চলছে সেহেতু তোমার ওয়াইফের খাওয়াও চলবে।মোহনীকে ডাক।
নিহাত ডাকল-মোহনী মোহনী?
মোহনী আসল।
নীলিন বলল-মোহনী আমি মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে খোজ নিয়েছি।এ নামে কেউ নেই।আজিমপুরে বাসার যে ঠিকানা দিয়েছিলে সেটাও ভুল।সে নামে কোন বাসা নেই।সত্য কথা বল।হু আর ইউ?
মোহনী বলল-খালু আমি মিথ্যা কথা বলেছি।আমি সরি।
-তোমার যে বিয়ে ঠিক হয়েছিল,সেটাও কি বানানো?
-না খালু।আমার চাচা চাচী এক চরিত্রহীন ছেলের সাথে আমার বিয়ে ঠিক করেছিল।
-তোমার বাড়ি কোথায়?
-টাংগাইল,আকুরটাকুর পাড়া।
-কি করতে?
-কম্পিউটার সায়েন্সে পড়তাম।মাওলানা ভাসানীতে।
-নিহাতের সাথে আগে পরিচয় ছিল?
-না খালু।
-তাহলে ওর সাথে এখানে আসলে কিভাবে?
-নিহাত আমার অসহাত্ব দেখে বাসায় নিয়ে এসেছিল।রমনা পার্কে আমাদের দেখা হয়েছিল।
-তার মানে বলতে চাইছ নিহাতের সাথে কোন রিলেশন তোমার ছিল না এখনও নেই।
-হু।
-নিহাতের জন্য একটা মেয়ে ঠিক করে ফেলেছি।ছবিটা দেখ।আর তোমার বিয়ের ঝামেলাটা যেহেতু শেষ হয়েছে।এলাকায় যেয়ে পড়াশুনা সম্পন্ন কর।চাচার বাসায় থাকতে হবে না।আমি তোমাকে হোস্টেলে তুলে দিব।মাস মাস টাকা পাঠাব।
-হু।

২৮৬ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১৭১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-৩০ ১৬:১৭:৫০ মিনিটে
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. আব্দুল হাকিম চাকলাদার মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল।

  2. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো আপনার ধারাবাহিক পোস্ট মনমোহনী বৃক্ষ। সাধুবাদ ভালো থাকবেন।

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগছে এই পর্বও। লিখে যান সাথেই আছি।

  4. রাজিব সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ সবাইকে…

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top