Today 31 Mar 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

লন্ডনেও ইলিশের বাজারে বৈশাখী উত্তাপ: চলছে বর্ষবরণের প্রস্তুতি

লিখেছেন: শওকত আলী বেনু | তারিখ: ১২/০৪/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 894বার পড়া হয়েছে।

বৈশাখ বরণে খাদ্য তালিকায় বাঙালিদের অনতম্য অনুষঙ্গ পান্তা-ইলিশ। পহেলা বৈশাখ ঘিরে পান্তা-ইলিশের রসনা বিলাসে রমরমা ইলিশের বাজার শুধু দেশেই নয়, দেশের বাইরে লন্ডনেও জাতীয় মাছ বৈশাখী ইলিশের বাজারে চলছে এখন রমরমা কারবার।

তবে বর্ষবরণ উপলক্ষে ইলিশের ব্যাপক চাহিদার ফলে বিক্রয় বৃদ্ধি পেলেও বছরের অন্য সময়ের তুলনায় পহেলা বৈশাখের কারণে এই সময়ে ইলিশের দাম মোটেই বৃদ্ধি পায়নি এমনটাই জানালেন পূর্ব লন্ডনের গ্রীনস্ট্রিট এর ‘লন্ডন ফিস বাজার’ এর বিক্রেতা মামুন মিয়া। তিনি জানান এই সময়ে মূল্য বৃদ্ধি না করে ‘বিশেষ মূল্য ছাড়ে’ বিক্রয় হচ্ছে বৈশাখী ইলিশ।

১২ এপ্রিল রোববার লন্ডনের বেশ কয়েকটি ফিস বাজার ঘুরে দেখা যায় বড় আকৃতির (১৫০০-২০০০ গ্রাম) প্রতি কেজি ইলিশ বিক্রি হছে ১৪.৯৯ পাউন্ড স্টার্লিং করে। অর্থাৎ ২ কেজি ওজনের একটি ইলিশের মূল্য ৩০ পাউন্ড স্টার্লিং। এই বৃহৎ আকৃতির ইলিশ এসেছে মায়ানমার থেকে। ৮০০ গ্রাম থেকে ১ কেজি ওজনের এক জোড়া ইলিশ বিক্রি হছে ২৫ পাউন্ড স্টার্লিং দরে।

লন্ডনে মাছের বৃহৎ বাজার হিসেবে পরিচিত ইস্ট লন্ডনের শ্যাডওয়্লের মাছ বাজারও এখন জমজমাট। এছাড়াও রয়েছে পূর্ব লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপল এবং নিউহ্যাম এলাকায় একাধিক মাছের বাজার।এই সব মাছ বাজারে এখন বিভিন্ন সাইজের ইলিশের সরবরাহ এবং ক্রেতার আধিক্য বছরের অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় অনেক বেশি। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে লন্ডনে ইলিশ মাছের চাহিদা বেড়ে যায় কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে গ্রীন স্ট্রীটের ‘লন্ডন ফিস বাজারের ওই বিক্রেতা মামুন মিয়া আরো জানান যে গত এক মাসে বছরের অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ ইলিশ মাছ বিক্রি হয়েছে তাঁদের দোকানে।

সরেজমিনে দেখা যায় বাংলাদেশের চাঁদপুর এবং চট্রগ্রাম থেকে আসা ইলিশের দাম মায়ানমারের ইলিশের দামের তুলনায় একটু বেশি। চাঁদপুরী ইলিশ (প্যাকেটের গায়ে লেখা) ৮০০ গ্রাম থেকে ১ কেজি ওজনের প্রতিটি বিক্রি হচ্ছে ১৫ পাউন্ড স্টার্লিং।তবে বাংলাদেশ থেকে আসা বৃহৎ আকৃতির কোনো ইলিশ তেমন একটা খুঁজে পাওয়া যাননি। মায়ানমার থেকে আসা ইলিশের মূল্য কিছুটা কম থাকায় ক্রেতাদের মাঝে চাহিদাও বেশি। মায়ানমারের ইলিশগুলো তুলনামূলকভাবে অনেক বড়।

১৪ এপ্রিল বাঙালি বর্ষবরণ উত্সব পালন করলেও বৈরী আবহাওয়ার কারণে ব্রিটেনে এই তারিখে উন্মুক্ত মাঠে বর্ষবরণ পালন কখনও সম্ভব হয়ে ওঠে না। উন্মুক্ত মাঠে বর্ষবরণ পালনের জন্যে বাঙালিরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন একটি উপযুক্ত রোদ্রোজ্জ্বল দিনের জন্যে।আর সেই দিনটি বেঁচে নেয়া হয় প্রতি বছর মে মাসের দ্বিতীয় বা তৃতীয় সপ্তাহের রোববারে। ১৯৯৭ সাল থেকে ব্রিটেনে বৈশাখী মেলা উদযাপন করে আসছে বাঙালি কমুনিটি।

তবে উন্মুক্ত মাঠ ছাড়াও পহেলা বৈশাখে কিছু সংগঠন প্রতি বছরই লন্ডনে বেড়ে ওঠা শিশু-কিশোরদের নিয়ে আয়োজন করে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, নৃত্যানুষ্ঠান, স্থানীয় শিল্পী কলাকুশলীদের সমন্বয়ে গানের আসর। এছাড়াও বাড়িতে বাড়িতে ব্যক্তি উদ্যোগে পান্তা-ইলিশের উত্সব এবং নাচ-গান অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

এবারও বৈশাখের প্রথম দিনে ১৪ এপ্রিল ‘বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদ যুক্তরাজ্য’ এর উদ্যোগে বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নিতে লন্ডনে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি।গত নয় বছর ধরে বিলেতে বর্ষবরণ উদযাপন করে যাচ্ছে “বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদ”।

বর্ষবরণ এই অনুষ্ঠানটি আগামী ১৪ই এপ্রিল মংগলবার, বিকাল ৫.৩০ থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত পূর্ব লন্ডনের ব্রাডি আর্টস সেন্টারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।আয়োজক সংগঠনের মধ্যে থাকছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী যুক্তরাজ্য সংসদ, সত্যেন সেন স্কুল অফ পারফর্মিং আর্টস, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র, সংহতি কবিতা পরিষদ, নারী দিগন্ত, মঞ্চ শৈলী, তানপুরা, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, বেতার বাংলা সহ চল্লিশটি সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক সংগঠন।

প্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করবেন বরেন্য সাংবাদিক এবং কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী।বিশেষ অতিথি থাকবেন ব্রিটেনের ইতিহাসে প্রথম বাঙালি এমপি এবং আসন্ন ব্রিটিশ পার্লামেন্ট নির্বাচনে লেবার পার্টির প্রার্থী রোশনারা আলী। সুচনা সংগীত দিয়ে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়ে এতে আরো থাকবে নৃত্য পরিবেশন, কবিতা আবৃতি এবং লন্ডনে বেড়ে ওঠা শিশু-কিশোরদের নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতা। মিডিয়া পার্টনার হিসাবে থাকবে বাংলা টিভি। উপস্থাপনায় থাকবে প্রবাসী কবি লিপি হালদার সহ আরো তিনজন।

 

 

৮৮১ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
লেখালেখি করি।সংবাদিকতা ছেড়েছি আড়াই যুগ আগে।তারপর সরকারী চাকর! চলে যায় এক যুগ।টের পাইনি কী ভাবে কেটেছে।ভালই কাটছিল।দেশ বিদেশও অনেক ঘুরাফেরা হলো। জুটল একটি বৃত্তি। উচ্চ শিক্ষার আশায় দেশের বাইরে।শেষে আর বাড়ি ফিরা হয়নি। সেই থেকেই লন্ডন শহরে।সরকারের চাকর হওয়াতে লেখালেখির ছেদ ঘটে অনেক আগেই।বাইরে চলে আসায় ছন্দ পতন আরো বৃদ্বি পায়।ঝুমুরের নৃত্য তালে ডঙ্কা বাজলেও ময়ূর পেখম ধরেনি।বরফের দেশে সবই জমাট বেঁধে মস্ত আস্তরণ পরে।বছর খানেক হলো আস্তরণের ফাঁকে ফাঁকে কচি কাঁচা ঘাসেরা লুকোচুরি খেলছে।মাঝে মধ্যে ফিরে যেতে চাই পিছনের সময় গুলোতে।আর হয়ে উঠে না। লেখালেখির মধ্যে রাজনৈতিক লেখাই বেশি।ছড়া, কবিতা এক সময় হতো।সম্প্রতি প্রিয় ডট কম/বেঙ্গলিনিউস২৪ ডট কম/ আমাদেরসময় ডট কম সহ আরো কয়েকটি অনলাইন নিউস পোর্টালে লেখালেখি হয়।অনেক ভ্রমন করেছি।ভালো লাগে সৎ মানুষের সংস্পর্শ।কবিতা পড়তে। খারাপ লাগে কারো কুটচাল। যেমনটা থাকে ষ্টার জলসার বাংলা সিরিয়ালে। লেখাপড়া সংবাদিকতায়।সাথে আছে মুদ্রণ ও প্রকাশনায় পোস্ট গ্রাজুয়েশন।
সর্বমোট পোস্ট: ২০৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৫১৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-১৭ ০৯:২৪:৩১ মিনিটে
banner

১০ টি মন্তব্য

  1. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    দারুন তো ,,,,,,,,,,,,,,,,
    বেশ ভাল ভাবনার প্রয়াস
    শুভ কামনা থাকলো

  2. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    কিছু জানলাম ।
    ভাল লাগল

  3. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    “লন্ডনে প্রতি কেজি ইলিশ বিক্রি হছে ১৪.৯৯ পাউন্ড স্টার্লিং” তো জাতীয় মাছের দেশ – আমাদের চেয়েও সস্তা! সেদিন মাওয়া ঘাটে ২ কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হলো ১৬ হাজার টাকা! বৈশাখী উত্তাপে আমাদের দেশে যেখানে ইলিশের বাজারে আগুন সেখানে আপনারা অন্য সময়ের চেয়ে তুলনামূলক সাশ্রয়ী দামে ইলিশ পাচ্ছেন। হায় বিধাতা – এরপর ইলিশ খেতে হলে বিদেশেই যেতে হবে দেখছি!

    • শওকত আলী বেনু মন্তব্যে বলেছেন:

      হাঃ হাঃ লন্ডনে দুই কেজি ইলিশের মূল্য ৩০X ১২৫= ৩৭৫০ টাকা । এটা অবশ্য মায়ানমারের । আর চাঁদপুরী ১ কেজি ওজনের ইলিশ ১৫x১২৫= ১৮৭৫ টাকা । মাওয়া ঘাটের ২ কেজি ইলিশ দিয়ে তো একটি গরু কিনা যাবে !! এবার চলে আসুন । নিমন্ত্রণ রইলো অনিরুদ্ধ বুলবুল ।

  4. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    কাল ইলিশ খেতে এমন কোন কথা নয়

    সস্তা হলে কিনা যাবে B|

  5. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব চমৎকার তথ্য জানতে পেরে ভালো লাগলো ।
    ধন্যবাদ লেখককে ।
    ও আরেকটা কথা, ওখান থেকে ইলিশ পার্সেল করতে খরচ কত পড়বে ?
    ভাবছি… আপনার মাধ্যমে বিদেশ থেকে ইলিশ এনেই নববর্ষ….. ! :)

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top