Today 06 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

শুভ জন্মদিন হুমায়ূন আহমেদ

লিখেছেন: মুহাম্মদ দিদারুল আলম | তারিখ: ১৩/১১/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 814বার পড়া হয়েছে।

মানুষ আসতেন তার জন্মদিনে ফুল নিয়ে, কেউ বই নিয়ে কেউবা শূন্যহাতে। সারাদেশে চেনা-অচেনা মানুষের এমন আগমন দেখে তিনি জীবদ্দশায় বিস্মিত হয়েছিলেন। এই তিনি আর কেউ নন, বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক, চলচ্চিত্রকার, নাট্যকার ও গীতিকার হুমায়ূন আহমেদ। বৃহস্পতিবার তার জন্মদিন। এমন দিনে তিনি সশরীরে বেঁচে নেই। এবারের জন্মদিনে তিনি নূহাশপল্লীতে, গভীরতম এক ঘুমে আচ্ছন্ন। আজও শিশিরভেজা ভোরে পাখিরা তাকে জানাবে অভিবাদন। হয়তো তিনি দেখবেন, হয়তোবা দেখবেন না।

হুমায়ূন আহমেদের জন্ম ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর মামাবাড়ি নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে। যে দিনটিকে ঘিরে পুরো দেশের হুমায়ূন ভক্তদের মধ্যে সৃষ্টি হতো উন্মাদনা। আজ সেই দিন। বরাবরের মতো এবারও বিভিন্ন আয়োজনে পালিত হবে হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন। কিন্তু তিনি তো নেই।

তবু মন মানে না। তার লেখার মতো বলতে হয়, ‘পাখি উড়ে গেলেও পালক ফেলে যায় আর মানুষ চলে গেলে ফেলে রেখে যায় স্মৃতি।’ সেই স্মৃতিকে ধারণ করে বৃহস্পতিবার রাতে তার ধানমন্ডির ‘দখিন হাওয়া’ ফ্ল্যাটে কাটা হয়েছে কেক। স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন এবং দুই ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে কেক কেটেছেন। কিন্তু খাইয়ে দিতে পারেননি হুমায়ূন আহমেদকে। আনন্দের রোশনাইয়ের বদলে হয়েছে বেদনার বিষাদসিন্ধু।

পাঠক বিবেচনায় হুমায়ূন আহমেদ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় লেখক। উপন্যাসে নিজের প্রতিভার বিস্তার ঘটলেও তার শুরুটা ছিল কবিতা দিয়ে। এর পর নাটক, শিশুসাহিত্য, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, চলচ্চিত্র পরিচালনা থেকে শিল্প-সাহিত্যের প্রতিটি ক্ষেত্রেই তিনি রেখে গেছেন নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর। আর তিনি সাহিত্যের যে ক্ষেত্রেই নিজের পদচিহ্ন এঁকেছেন, প্রতিটিতেই দেখা পেয়েছেন সাফল্যের। হুমায়ূন আহমেদ বাংলাদেশের সাহিত্যে বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর জনকও বটে। ১৯৭২ সালে প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ প্রকাশের পর পরই তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে।

উপন্যাসে ও নাটকে তার সৃষ্ট চরিত্রগুলো বিশেষ করে ‘হিমু’, ‘মিসির আলী’, ‘শুভ্র’ তরুণ-তরুণীদের কাছে হয়ে ওঠে অনুকরণীয়। বলা হয়, তার লেখা পছন্দ করেন না এমন মানুষও তার নতুন লেখাটি ‘গোপনে’ পড়ে ফেলেন। দেশে এমন মানুষের সংখ্যা খুব বেশি নয়, যারা তার অন্তত একটি নাটক দেখেননি কিংবা তার কোনো বই পড়েননি। জনপ্রিয়তার জগতে তিনি একক ও অনন্য। তিনিই তরুণ-তরুণীদের করেছেন বইমুখী। প্রতিবছর অমর একুশে গ্রন্থমেলায় হুমায়ূন আহমেদের বই কিনতে হামলে পড়ে তার ভক্ত-অনুরাগীরা।

২০১২ সালের ১৯ জুলাই বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১১টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। হুমায়ূন আহমেদের লেখা উপন্যাসের সংখ্যা দুই শতাধিক। রচনা ও পরিচালনা করেছেন বহু একক ও ধারবাহিক নাটক। পরিচালনা করেছেন চলচ্চিত্রও। তার সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘ঘেটুপুত্র কমলা’র জন্য তিনি লাভ করেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

হুমায়ূন আহমেদের দীর্ঘ চার দশকের সাহিত্যজীবনে বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে- একুশে পদক (১৯৯৪), বাংলা একাডেমী পুরস্কার (১৯৮১), হুমায়ূন কাদির স্মৃতি পুরস্কার (১৯৯০), লেখক শিবির পুরস্কার (১৯৭৩), মাইকেল মধুসূধন দত্ত পুরস্কার (১৯৮৭), জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৩ ও ১৯৯৪), বাচসাস পুরস্কার (১৯৮৮) ইত্যাদি। দেশের বাইরেও সম্মানিত হয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। জাপানের ‘এনএইচকে’ টেলিভিশন তাকে নিয়ে ‘হু ইস হু ইন এশিয়া’ শিরোনামে ১৫ মিনিটের একটি ডকুমেন্টারি প্রচার করে।

৭৯৯ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ৭৭ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১০১ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-২৮ ১১:৫৮:৪৮ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    চমৎকার
    খুব ভাল লাগল ।

  2. হরিশঙ্কর রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    দাদা, এতেই মনে হয় পাঠকের মন ভরে না । তবে সমালোচনা আরও একটু বেশী হলে ভালো লাগবে আমার কাছে, এবং পাঠকদেরও । আন্তরিক ধন্যবাদ দীপঙ্কর দা ।

  3. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    মানুষ আসতেন তার জন্মদিনে ফুল নিয়ে, কেউ বই নিয়ে কেউবা শূন্যহাতে। সারাদেশে চেনা-অচেনা মানুষের এমন আগমন দেখে তিনি জীবদ্দশায় বিস্মিত হয়েছিলেন।

    কেউবা আসে তার নিজের জীবন নিয়ে_ যেমন- শাওন আপা।

    আমি হুমায়ূন সাহেবকে তার কিছু কাজের জন্য শ্রদ্ধা করি। আবার নিজের সংসার ছেড়ে শাওন আপাকে নিয়ে লীলা করার কারণে একটু খানি অস্রদ্ধা এসে যায়।

  4. খাদিজাতুল কোবরা লুবনা মন্তব্যে বলেছেন:

    শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা এই গুণীর জন্য…

  5. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    আমার প্রিয় লেখকের জন্মদিনে শ্রদ্ধা ও ভালবাসা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top