Today 15 Aug 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

শ্রীমঙ্গলের পথে

লিখেছেন: মরুভূমির জলদস্যু | তারিখ: ১৮/১১/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 299বার পড়া হয়েছে।

যদিও অনেকবার গিয়েছি সিলেট তবে এই বছর বেশ কয়েকবার প্রগ্রাম ঠিক করেও যাওয়া হয়নি সিলেটে। শেষ পর্যন্ত ১৯শে অক্টোবর ২০১৪ইং তারিখে সিলেটের একটা ফ্যামেলি-ফ্রান্ড ভ্রমণের আয়োজন করেছিলাম। যাওয়ার সময় সরাসরি সিলেট না গিয়ে শ্রীমঙ্গলের লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ক হয়ে মাধপপুর লেক ঘুরে মাধপকুন্ড ঝর্ণা দেখে সিলেট যাব ঠিক করা হলো। যেহেতু ঘুরপথে যাচ্ছি আবার পথে তিনটি স্থানে থেমে বেরিয়ে যাবার ইচ্ছে আছে সেহেতু সীদ্ধান্ত নেয়া হলো ভোর ৫টায় রওনা হয়ে যাব। সেই মতে আমরা সবাই ভোরে রেডি হয়ে যখন আমাদের গাড়ি ছাড়া হলো তখন ঘড়িতে সময় ৫টা ৫০ মিনিট। অর্থাৎ অলরেডি ৫০ মিনিট পিছিয়ে পরলাম।

{ভোরে উত্তরবাড্ডা বাজারে যে এই এক্কা গাড়ি আসে সেটা আজই প্রথম দেখলাম।}

এক টানা গাড়ি চললো টঙ্গি হয়ে পূবাইল দিয়ে ঘোড়াশাল পার হয়ে শিবপুর নরসিংদী এসে পৌছলাম ৭টা ২৫ মিনিটে। এখানে রাস্তার ধারে সাতসকালের মিষ্টি রোদে বসে সকালের নাস্তা সারলাম গরম গরম পরটা ডিম ভাসি আর ডাল-ভাজি দিয়ে।

{পথের ধারে নাস্তা পর্ব}

নাস্তা শেষে ৭টা ৫০ মিনিটে আবার শুরু হলো যাত্রা। পথের ধারে তখনো পুরপুরি ব্যস্ততা শুরু হয় নি। লক্ষ্য করলাম ঢাকায় শীতের নামগন্ধ না থাকলেও ঐদিকে হালকা কুয়ার মত আছে, আসলে হয়তো ধোয়াশা। তবে সাতাস বেশ ঠান্ডই আছে তখনো।

{ধোয়া না হালকা কুয়াশা!}


যাত্রী


পথের ধারে ছড়িয়ে আছে গ্রাম বাংলার আবহমান দৃশ্যাবলী।

আড্ডা আর পথের ধারের দৃশ্যাবলি দেখতে দেখতে চললাম আমরা আমাদের পথে। ৮টা ৫০ মিনিটে হবিগঞ্জের মাধরপুর এসে গ্যাস নিতেলাম গাড়িতে, এখানে আবার ১০ মিনিটের চা বিরতী শেষে ৯টায় চলা শুরু হলো। ১০টা ১৫ মিনিটে আবার গ্যাস নিলাম শ্রীমঙ্গলের উত্তসরিতে এসে।

শ্রীমঙ্গল মানেই চা বাগান, আসলেই তাই, মিনিট দশেক গাড়ি চলার পরেই শুরু হলো চা বাগান।

এবার চায়ের দেশে প্রবেশ


শুরু হলো চায়ের রাজ্যে যাত্রা, চা বাগানের ভিতর দিয়ে চলে গেছে এই পথ।

পথে দু ধারের সবুজ চাবান, পাহারের থালে আর টিলায় ঢেউ খেলান দিগন্তবৃস্তিত সবুজের সমারহ, যেন সবুজের সমুদ্র।

চা বাগানের একটা টিলা।

চাবাগানের সিমানা পেরুতেই শুরু হবে ঘন বনের রাজি, বন বললে ভুল বলা হবে, বলাউচিত জঙ্গল।

এবার জঙ্গলের পথে ঢুকলাম


দুধার থেকে জঙ্গের ঝোপ আর গাছের ঢাল এসে মিসে গেছে রাস্তার মাথার উপরে, মনে হবে যেন সবুজ টানেল দিয়ে চলছে গাড়ি, সামনেই আমাদের প্রথম গন্তব্য শ্রীমঙ্গলের লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্কে।

এর সামনেই লাউয়াছড়া বন

২৮৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
এখনো অনেক অজানা ভাষার অচেনা শব্দের মত এই পৃথিবীর অনেক কিছুই অজানা-অচেনা রয়ে গেছে!! পৃথিবীতে কত অপূর্ব রহস্য লুকিয়ে আছে- যারা দেখতে চায় তাদের মরুভূমির জলদস্যুর নিমন্ত্রণ।
সর্বমোট পোস্ট: ৯৭ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৯৫ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৪-৩০ ১৫:৫৮:৫৮ মিনিটে
Visit মরুভূমির জলদস্যু Website.
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব সুন্দর ভাই, এবার দেশে আসলে আশা আছে সিলেট বেড়াতে যাবো।

  2. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক ভাল লাগা পোস্টে। আরো ফোটো চাই

  3. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    দৃশ্যগুলি সত্যি অসাধারণ ও সুন্দর।
    অনেক ভাল লাগা নিয়ে গেলাম।

  4. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    মুগ্ধকর দৃশ্য হাছাই মুগ্ধ হলেম ;দাদা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top