Today 08 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

সুকুমার রায়, ৩০ অক্টোবর তাঁর জন্মদিন স্মরণে

লিখেছেন: সৃজনী মণ্ডল | তারিখ: ৩০/১০/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 461বার পড়া হয়েছে।

1

“সাগর যেথা লুটিয়ে পড়ে নতুন মেঘের দেশে

আকাশ-ধোয়া নীল যেখানে সাগর জলে মেশে।

মেঘের শিশু ঘুমায় সেথা আকাশ-দোলায় শুয়ে-

ভোরের রবি জাগায় তারে সোনার কাঠি ছুঁয়ে।”

—সুকুমার রায় রচিত ছড়ার অংশবিশেষ।

 

আজ ৩০ অক্টোবর, বাংলার ‘ননসেন্স’ সাহিত্যের জনকের ১২৬ তম জন্মদিন। ভাগ্যিস এই দিনটা ছিল। ভাগ্যিস সুকুমার এসেছিলেন। তাইতো পাগলা দাশু, প্রফেসর হেঁসোরাম, হুঁকোমুখো হ্যাংলা, কুমড়োপটাশ, হিজবিজবিজ, গঙ্গারাম ও তাদের অবিস্মরণীয় সঙ্গী সাথীদের লিস্টিটাকে জড়িয়ে জাপ্টে ধরে বাঙালি এখনও হাসতে ভুলে যায়নি। ছোটবেলায় আবোল-তাবোল হাতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই একটা দুনিয়া খুলে যায় সবার কাছেই। মোম রঙের বাক্সে ঘুমিয়ে থাকা লাল, নীল, সবুজ, হলুদ রঙ গুলো সবার চোখ এড়িয়ে চুপিচুপি কেমন জানি মিশে যায় রোজকার জীবনে। বাস্তবের স্কুল, বাড়ি, একটু খেলা আর অনেক পড়ার মাঝে এক ঝাঁক নতুন বন্ধু। সেই যে রামগরুড়ের ছানার দনা-হাসির বাসাদ-র সঙ্গে ইস্কুলের ক্লাস রুমের মিল খোঁজা শুরু হয়, বেশ গম্ভীর বড় বেলাতেও অফিসে বসের সামনে মনের মধ্যে কিন্তু চুপচাপ উঁকিঝুঁকি মারে সেই সব মিলগুলোই।

 

আর এখানেই অনন্য সুকুমার রায়। ১৮৮৭ থেকে ১৯২৩। মাত্র ৩৬ বছরে তিনি আসলে তৈরি করে গিয়েছেন একটা ভিন্ন যুগ,একটা অন্য জগত। অনেকটা পিটার প্যানের নেভারল্যান্ডের মতন সেই জগত। যেখানে একবার ঢুকে পড়তে পারলে বয়সটা যেন এক্কেবারে থমকে যায়। খুঁড়োরকল, বুড়ির বাড়ি, হুঁকোমুখো হ্যাংলা, বোম্বাগড়ের রাজা, আহ্লাদীরা সেই যে পড়তে শেখার সঙ্গে সঙ্গে একবার ঘাড়ের উপর চেপে বসে বড় বেলাতেও মোটেও পিছু ছাড়ে না। বুদ্ধির গোড়ায় পাকামি একটু একটু করে বাসা বাঁধা শুরু করে যখন প্যান্ত ভূতের জ্যান্ত ছানাকে তার মায়ের আদরে ভরিয়ে তোলার মধ্যে বাঙালি মায়ের চিরাচরিত রূপটাই চোখের উপর ঝুপ করে ভেসে ওঠে। প্যাঁচা-প্যাঁচানীর প্রেম গাথা বড় বেশি বাঙালি প্রেমিকের প্রেমিকাকে দঢপদ প্রশংসায় ভরিয়ে দেওয়া মনে করিয়ে দেয়।

বাঙালি বড় হতভাগ্য। তাই সুকুমার রায়কে বেঁধে রাখতে চেয়েছে শিশু সাহিত্যিকের আবরণেই। আর সেই সাহিত্যের সীমাটাও ছড়াকারের বেড়াতে বেঁধে দেওয়ার ব্যর্থ চেষ্টা করে গেছে দিনের পর দিন। সেই চেষ্টায় ঢাকা পড়ে গেছে লক্ষ্ণণের শক্তিশেলের মতন অসাধারণ নাটক। বিজ্ঞান বিষয়ক তাঁর একগুচ্ছ প্রবন্ধের কথাতো কোন কালেই ভুলে বসে আছে তাঁরা। আর ছবি? চিত্রকার সুকুমারকি কোনদিনও প্রাপ্য স্বীকৃতি পেয়েছেন? তার সব সৃষ্টির নামগুলো মনে করলেই চোখের সামনে জ্যান্ত হয়ে ওঠে যে ছবিগুলো, সেই সব কিছুই কিন্তু তার নিজের আঁকা।

 

ইংরেজিতে লিয়র বা ল্যুই ক্যারল ননসেন্স সাহিত্যের যে অপূর্ব ধারা সৃষ্টি করেছিলেন বাংলায় সেই ধারাই সযত্নে  লালন করেছিলেন সুকুমার রায়। কিন্তু সুকুমার রায় সত্যিই লিয়র বা ক্যারলের মতন সমাদৃত হতে পেরেছেন কি না সেই নিয়ে বিতর্ক কিন্তু আজও চলছে।

 

মৃত্যুর আগে নিজেই সাজিয়ে দিয়ে গিয়েছিলেন তার সব সৃষ্টিকে। নিজে দেখে যেতে পারেননি সেই সব অসামান্য সৃষ্টির প্রকাশিত রূপ। তোড়ায় বাঁধা ঘোড়ার ডিমকে সঙ্গে করে গানের পালা সাঙ্গ করে মেঘ মুলুকে ভেসে গিয়েছেন সুকুমার রায় সেই ১৯২৩-এর ১০ই সেপ্টেম্বর। ভীষণ মন খারাপের দিনে যখন হঠাৎ হাতে পাওয়া তাঁর কোন লেখা পেটের মধ্যে এলোমেলো হাসির বুড়বুড়ি তৈরি করে দিয়ে যায় তখন সেই হাসির হাত ধরেই তিনি বারবার ফিরে আসেন আমদের সবার কাছে। সবাইকে হাঁসিয়ে কাঁদিয়ে রয়ে যান আমাদের মধ্যেই।

৫১৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-২৫ ১২:২৮:৪৭ মিনিটে
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    শুভ কামনা করি ।

  2. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

  3. ছাইফুল হুদা ছিদ্দিকী মন্তব্যে বলেছেন:

    ভীষণ মন খারাপের দিনে যখন হঠাৎ হাতে পাওয়া তাঁর কোন লেখা পেটের মধ্যে এলোমেলো হাসির বুড়বুড়ি তৈরি করে দিয়ে যায় তখন সেই হাসির হাত ধরেই তিনি বারবার ফিরে আসেন আমদের সবার কাছে। সবাইকে হাঁসিয়ে কাঁদিয়ে রয়ে যান আমাদের মধ্যেই।

    এটাইতো উনার বড় পাওনা। উনি আছেন এখনও আমাদের মাঝে।

  4. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর একটি বিষয় তুলে ধরেছেন
    ধন্যবাদ

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top