Today 06 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

স্পেস-১৪(অংশ-২)

লিখেছেন: রাজিব সরকার | তারিখ: ১৫/০১/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 642বার পড়া হয়েছে।

শ্রাবন্তী হেসে বলে-আপনিই তাহলে টিকটিকি।
-নাম ঠিক করে বলবে।টিকটিকি নয়,টিক।তুমি বোধহয় খুব রেগে আছ।যাচ্ছি।পরে কথা হবে।
লোকটা চলে গেল।শ্রাবন্তী এদিক ওদিক হাটতে থাকে।
গণিতবিদ ফিক গুণ গুণ করে গান গাচ্ছে।গানের লাইন মনে নেই,তবে সুরটা মনে আছে।এসময় জীবাণুবিদ আফিয়া সামনে এসে দাড়ায়।দেখতে ভারি সুন্দর।এমন একটি ভারি সুন্দর মেয়ে জীবাণুবিদ হবে তা মেনে নেওয়া কষ্ট।এমন মেয়েরা পড়বে সাহিত্য নতুবা অভিনয়ের জগতে চলে যাবে।এমন কটকটে জীবাণু নিয়ে গবেষণা করে লাভ আছে?
-বসুন মিস পারফেক্ট বিউটি।
-আপনাকে কতবার বলেছি,আমার একটা নাম আছে।সে নাম ধরে ডাকতে।
-কি করব বলুন,সেটা আমার স্বভাব।সেটা কি আর একদিনে চেঞ্জ করা যায়?
-আপনার সাথে কথা বলাই বৃথা।
-তাহলে চলে যান।আমিতো আর তোমাকে ডেকে আনিনি।
-একটি দরকারি কথা বলতে এসেছিলাম।আপনাকে বলে কোন লাভ হবে বলে মনে হচ্ছে না।
-লাভ যখন হবেই না ধরেই নিয়েছ,তাহলে আর বলে লাভ কি?
আফিয়া রেগে রুম হতে বের হল।ফিকের কেন জানি মানুষকে রাগিয়ে দিতে পারলে খুব ভাল লাগে।শুনেছে,শ্রাবন্তী নামে একটা মেয়ে তাদের সাথে যাচ্ছে।মেয়েটার সাথে কথা বলতে ইচ্ছে হচ্ছে।একই সাথে যাচ্ছে,অথচ এখনো দেখাই হয় নি,তা কি ভাবা যায়?
-আসতে পারি শ্রাবন্তী?
শ্রাবন্তী কোন কথা বলল না।
-আসব শ্রাবন্তী?
-না,চলে যান।
মেয়েটার কাছে এমন উত্তর পাওয়া অপ্রত্যাশিত ছিল,তবু মেয়েটাকে বেশ লাগল।মনে হল,মেয়েটা বেশ ইন্টারেস্টিং।
-আপনাকে আমি ঢুকতে বলেছি?
-বল নি।
-তাহলে কি রুমে ঢুকা ঠিক হয়েছে?
-স্পেসের নিয়ম অনুযায়ী,আমরা সবাই সবার রুমে যেতে পারি।অনুমতি না থাকলেও।
-এটা কি ব্যক্তিস্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ করছে না?
-এ নিয়ে অভিযোগ থাকলে,স্পেস কমিটির কাছে অভিযোগ করবে।তারা যদি নিয়ম চেঞ্জ করে,তাহলে আর আসব না।
শুনে শ্রাবন্তীর হাসি পায়।যারা তাকে না বলেই ভিন গ্রহে নিয়ে যাচ্ছে,তারা তার অভিযোগ শুনে পদক্ষেপ নিবে,এতটা আশা করা বোধহয় মাত্রাতিরিক্তই হয়ে যাচ্ছে।
-তুমি যে খুব ভাগ্যবতী একজন মেয়ে,সে কি জান?
-ভাগ্য না ছাই।
-আমাদের সাথে যাওয়ার জন্য প্রায় দশহাজার জন আবেদন করেছিল।
-শুধু শুধু তাহলে আমাকে এত কষ্ট দিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন কেন?
-এটাকে কষ্ট বলা বোধহয় ঠিক হচ্ছে না।বাংলাদেশের প্রেসিডেন্টের মেয়ে পর্যন্ত যেতে চেয়েছিল,তাকেও নেওয়া হয় নি।বুঝেছ,তোমার ভাগ্য কত ভাল বলে আমাদের সাথে যেতে পারছ?
-আমাকে সিলেক্ট করার কারণ শুনতে পারি।
-কমিটি থেকে ঠিক করা হল,একজন অতি সাধারণ মানুষ নিয়ে যাওয়া হবে।সাধারণ মানুষ সমস্যা সমাধানের কথা খুব সাধারণভাবে ভাবে।যেটা মহাকাশযানে কোন সমস্যা হলে খুব দরকার।কারণ আমরা যারা আছি,আমরা ভাবব সমস্যাটা জটিল।তাই সিম্পল উপায় খুঁজব না।কিন্তু সমস্যাটা সিম্পলও হতে পারে।আর তুমি সমস্যাটা সিম্পলভাবে ভাববে-সে জন্যই তোমাকে নেওয়া।
-তাহলে যেকোনো কাউকে নিলেয় হত,আমাকে কেন?

৭০৬ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১৭১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-৩০ ১৬:১৭:৫০ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. এ হুসাইন মিন্টু মন্তব্যে বলেছেন:

    সরাকরা সাহেবের লেখা প্রথম পড়লাম, এবং আরো পড়ার আশায় রইলাম………চলুক

  2. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    সাধারণ মানুষ সমস্যা সমাধানের কথা খুব সাধারণভাবে ভাবে।যেটা মহাকাশযানে কোন সমস্যা হলে খুব দরকার।কারণ আমরা যারা আছি,আমরা ভাবব সমস্যাটা জটিল।তাই সিম্পল উপায় খুঁজব না।কিন্তু সমস্যাটা সিম্পলও হতে পারে

    সাধারন মানুষ সমস্যা দেখবে সাধারন ভাবে।কাজে সমাধান হবে সিম্পল।তাই নাকি
    ভাল লাগল বক্তব্য ।ঘটনা।ধন্যবাদ এই বিজ্ঞানকাহিনী লেখার জন্য।শুভকামনা।

  3. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    পড়লাম সাথে আছি।

  4. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল বৈজ্ঞানিক কল্প কাহিনী । শুভ কামনা । ভাল থাকুন ।

  5. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    দেখতে ভারি সুন্দর।এমন একটি ভারি সুন্দর মেয়ে জীবাণুবিদ হবে তা মেনে নেওয়া কষ্ট।

    আমার মনে হয়ে এখানে সুন্দরী হবে।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top