Today 23 Sep 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

স্যার আর্থার কোনান ডয়েলকে নিয়ে দুটি বিখ্যাত ঘটনা

লিখেছেন: আনোয়ার জাহান ঐরি | তারিখ: ০৭/০৭/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 964বার পড়া হয়েছে।

স্যার আর্থার কোনান ডয়েল ছিলেন একাধারে একজন আত্মিকবাদী, ইতিহাসজ্ঞ, তিমি শিকারী, ক্রীড়াবিদ, যুদ্ধ-সাংবাদিক, ডাক্তার, কবি ঔপন্যাসিক, ছোট গল্পকার। শার্লক হোমস(Sherlock Holmes) ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগ ও বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগের একটি কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র। লেখক হিসেবে তার যে কেমন খ্যাতি ছিল, তার অমর চরিত্র শার্লক হোমস-ই বড় প্রমাণ। তিনি এডগার এলেন পোই, জুলিস ভেরনি, রবার্ট লুইস স্টিভেনসনের মত বিখ্যাত লেখকদের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন। এই অসামান্য প্রতিভাধর লেখক ১৯৩০ সালের ৭ই জুলাই মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুদিনে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

 

স্যার আর্থারকে নিয়ে একটা ঘটনা প্রচলিত আছে। এক সন্ধ্যায় প্যারিসের একটি ট্যাক্সিতে সবে চড়ে বসেছেন তিনি। চালক মাথা ঘুরিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, ‘কোথায় যাবেন মিস্টার ডয়েল?’ ডয়েল অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, ‘যতদূর মনে হয়, তোমাকে আগে কখনো দেখিনি। তা কীভাবে চিনলে আমাকে?’ মুচকি হেসে চালক বললেন, ‘এটা তো জলের মতো সোজা! সকালের কাগজে দেখলাম আপনি মার্সেইতে এসেছেন ছুটি কাটাতে। যে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডে আমি দাঁড়িয়ে ছিলাম, মার্সেইফেরত যাত্রীরা সেখান থেকেই ট্যাক্সিতে উঠেন। আপনার চামড়ার পোড়া দাগ দেখে বোঝা যাচ্ছে, কয়েকদিন ধরে বেশ ঘোরাঘুরির মধ্যে আছেন। আঙুলের কোণে লেগে থাকা কালি বলে দিচ্ছে আপনি একজন লেখক। আপনার পোশাক-আশাকও ইংরেজের মতো। সবমিলিয়ে আমি বের করে ফেললাম, আপনি আর্থার কোনান ডয়েল না হয়ে পারেন না!’

 

এটুকু শুনে ডয়েল তো অভিভূত। বললেন, ‘তুমি তো দেখি বুদ্ধিতে আমার শার্লক হোমসকেও ছাড়িয়ে গেছ!’

 

শুনে চালক বললেন, ‘অবশ্য আরো একটি ব্যাপার আমাকে খুব সাহায্য করেছে। আপনার নাম। ওটা বড় বড় করে আপনার স্যুটকেসের সামনেই লেখা আছে!’

 

আরও একটা ঘটনা শেয়ার করি। এটি তার সাথে আরও একজন বিখ্যাত মানুষকে নিয়ে।

স্যার আর্থার কোনান ডয়েল একবার বক্তৃতা দিয়ে আসছেন, তো পথের মাঝে একজন তরুণের সাথে তার দেখা, দেখে বোঝাই যায় তরুণ দরিদ্র ঘরের ছেলে, ছেঁড়া ময়লা শার্ট, উস্কো খুসকো চুল, তো তরুণ এসে লেখককে প্রস্তাব দিলো, জনাব আপনি কি দয়া করে আমাকে আপনার একদিনের রোজগার ধার দেবেন, বিনিময়ে আমি আপনাকে একদিন আমার এক বছরের রোজগার দেব, তো লেখক বালকের কথাকে পাত্তা দিলেন না, বাড়ি ফিরে সাহায্যের নামে এমনি কিছু ডলার দিলেন, দিয়ে বললেন, না পারলে ফেরত দিতে হবে না, তরুণ ধন্যবাদ দিয়ে বলল, ‘জনাব আপনার এই উপকার আমি কোনদিন ভুলবো না’ তো এভাবে অনেকদিন কেটে যায় লেখক সেই তরুণের কথা ভুলে যায়, হঠাৎ অনেক বছর পর সেই তরুণের আবির্ভাব, সে তখন যুবক, লেখকের সেই মুহূর্তে অভাব চলছে। তো তরুণ এসে তাকে কয়েক হাজার ডলার দিয়ে বলল, জনাব, আপনি একদিন আমাকে আপনার একদিনের রোজগার দিয়ে হেল্প করেছিলেন, আজকে আমার সময় এসেছে এই নিন আমার এক বছরের রোজগার। লেখকের সেই মুহূর্তে চোখে পানি চলে এল, এবং তিনি অদ্ভুত দৃষ্টিতে যুবক কে দেখতে লাগলেন। সেই যুবকের নাম ছিল চার্লি চ্যাপলিন।……

 

১,১১৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ৫৪ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮০ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৭-০২ ১১:৫৫:৩৪ মিনিটে
banner

৬ টি মন্তব্য

  1. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ঘটনা দুটো খুবই চমৎকার।

  2. এ হুসাইন মিন্টু মন্তব্যে বলেছেন:

    নীচের ঘটনাটা চোখ আদ্র করে দিলো, মানুষের জন্য এর চেয়ে সত্য নেই

  3. কাউছার আলম মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর দুটি ঘটনা দেয়ার জন্যে আপনাকে ধন্যবাদ।

  4. তুষার আহসান মন্তব্যে বলেছেন:

    প্রথম ঘটনাটি আগেই কোথাও পড়েছিলাম,

    দ্বিতীয় টি একেবারে প্রথম।

    ধন্যবাদ আপনাকে।

  5. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    দুটি ঘটনাই ভাল লাগল ।

  6. মৌনী রোম্মান মন্তব্যে বলেছেন:

    স্যার আর্থার কোনান ডয়েল প্রিয় লেখকদের একজন । এমন লেখা জানার পরিধি বাডায় । শেয়ার করলেন সে জন্য ধন্যবাদ

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top