Today 24 Sep 2018
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

হ্যারিটেজ পার্ক ভ্রমণ…….

লিখেছেন: এই মেঘ এই রোদ্দুর | তারিখ: ১৭/০২/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 472বার পড়া হয়েছে।

কয়েকদিন আগে ঘুরে এলাম ফ্যান্টাসি কিংডম, হ্যারিটেজ পার্ক আর ওয়াটার কিংডম। বাচ্চাদের নিয়ে এই প্রথম বেড়ালাম ফ্যান্টাসিতে। সকালে রওয়ানা দেই সিএনজি যোগে। বেলা প্রায় একটার দিকে গিয়ে পৌঁছি সেখানে। টিকেট কেটে ঢুকি। প্রথমেই সবাই মিলে পুরো ফ্যান্টাসি এলাকা ঘুরলাম।

http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/51827_8755_71420.jpg

তারপর ট্রেনে চড়লাম সবাই মিলে । ফ্যান্টাসিতে বড়দের রাইডই বেশী। বাচ্চারা এসবে উঠতে ভয় পাবে তাই আর কোন রাইডেই চড়া হয়ে উঠেনি।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/23529_72781_23437.jpg

কিছুক্ষণ ঘুরে একটা রেস্তোরাতে চারজন মিলে দুপুরের খাবার সেড়ে নিলাম। কড়া রোদ থাকাতে বেশ কষ্ট হয়েছে। বিকেলে গেলে হয়তো মজা একটু বেশী হতো। কিন্তু আমরা দুরের যাত্রি তাই সকালে রওয়ানা হয়ে যাতে সন্ধ্যার আগে বাসায় আসতে পারি সে চিন্তা ছিল মাথায়।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/70057_378_79794.jpg

ফ্যান্টাসি ঘুরাঘুরি শেষে গিয়ে ঢুকলাম ওয়াটার কিংডমে। সেখানে গিয়ে তো দেখি এলাহি কান্ড। হিন্দি গানের সাথে পানির মাঝে থেকেই ছেলেমেয়েরা ডান্স করছে। যদিও আরামদায়ক জায়গা কিন্তু বেশ লজ্জাজনকও বটে। সেখানে ছেলে মেয়েরা উচ্ছৃঙ্খলতা চরম পর্যায়ে ছিল। যাইহোক সে বিষয়ে আর গেলাম না। আমাদের মা বাবারা অত্যাধুনিক তো তাই হয়তো সন্তানদেরকে ছেড়ে দিয়েছেন সে পথে, যে পথে আছে কাটা বিছানো।

ওয়াটার কিংডম ঘুরা শেষে চলে গেলাম হ্যারিটেজ পার্কে। সেখানে গিয়েই বেশী ভাল লাগছে। সুন্দর পরিবেশ। যেমন আছে বাচ্চাদের রাইড তেমনি বড়দেরও । একসাথে চড়া যায় সব রাইডগুলোতেই। ঘুরতে গিয়ে আমি চমকে উঠি। আরে একি! এখানে দেখি সব ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা। একটা একটা করে দেখতে লাগলাম । একদম হুবুহু কার্বন কপি। তবে ছোট ছোট যার ভিতের প্রবেশ করা যাবে না। সংসদ ভবন, স্মৃতিসৌধ, আহসান মঞ্জিল, ষাট গম্বুজ মসজিদ এগুলো দেখে মনটা যারপর নাই আনন্দে ভরে গেল।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/38083_97129_23804.jpg

ভ্রমন পর্বটি মূলত হ্যারিটেজ পার্ককেই ঘিরে…………
তাহলে জেনে নেই হ্যারিটেজ পার্কের কিছু ইতিহাসবৃত্তান্ত:
আমাদের দেশ গৌরবময় ইতিহাস ঐতিহ্য সমৃদ্ধ দেশ।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/55260_74217_5674.jpg
আমাদের প্রাকৃতিক পরিবেশ, পাহাড়, নদী, উপত্যকা ও সমতল, শহর ও গ্রামাঞ্চল জীবনশৈলী, লোকপ্রথা, প্রত্নতাত্ত্বিক বস্তু এবং পুরো দেশ জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে হস্তনির্মিত ঐতিহাসিক নির্দশন। আর এসব ইতিহাস ও ঐতিহ্যের  নির্দশন আমাদের দেশে অবস্থিত, যা পেয়ে সত্যিই আমরা গর্বিত ।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/65976_84842_60049.jpg

এসব ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কে জানা, চোখে দেখা আমাদের বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/45869_73473_63345.jpg

আর এসবের কথা মাথায় রেখে আশুলিয়ার হ্যারিটেজ পার্ক কনকর্ডের পক্ষ হতে আমাদের ইতিহাস ঐতিহ্য তুলে ধরতে একটি সুন্দর প্রচেষ্টা চালিয়েছে। এখানে নির্মাণ করা হয়েছে কিছু স্থাপত্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক বস্তু এর এক একটি স্থাপনা হুবুহ নকল।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/40761_81436_73361.jpg
নিচের ছবিটা কপি করা সংসদ ভবনের চত্বরে । বাচ্চাটি পানি দিয়ে খেলছে
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/82518_6594_92350.jpg

এখানে গেলে আপনি দর্শন করতে পারবেন  আহসান মঞ্জিল, গ্রিক মেমোরিয়াল, কান্তজীর মন্দির, লালবাগ কেল্লা, জাতীয় সংসদ ভবন, জাতীয় স্মৃতিসৌধ, পাহাড়পুর বিহার, পুথিয়া প্রাসাদ, ষাট গম্বুজ মসজিদ, সিতাকট বিহার ।

http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/74577_38903_87775.jpg

আহসান মঞ্জিল হুবুহু নকল এবং অন্যান্য স্থাপত্য ঐতিহ্যও যেন অন্যটির কাপল হিসাবে এই পার্কে নির্মাণ করা হয়েছে।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/50033_47423_90451.jpg
বাংলাদেশের ইতিহাস ঐতিহ্যের (অনুমোদনক্রমে) কাঠামোকে বহাল রেখে গুরুত্বতার ভিত্তিতে নির্বাচিত করা হয় হেরিটেজ পার্কের প্রতিটি মডেল।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/77920_19396_21413.jpg

বাস্তব কাঠামো অনুরূপ ইট দ্বারা, প্রতিটি ইট এবং রং পুরো কাটামোটির স্পর্শে ছিল ঠিক একই মনোযোগ।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/14540_41700_83865.jpg
স্থাপনার প্রতিটি ফাটল, সুনিদিষ্ট অবস্থান ইত্যাদিতে পাওয়া গেছে পরিপক্কতার ছোঁয়া।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/68712_43471_54703.jpg

এই পার্কের উল্লেখ্যযোগ্য বৈশিষ্ট্য মিনি হেরিটেজ ঐতিহ্য যাদুঘর, একটি মিনি শৈল্পিক গ্রাম, স্পোর্টস জোন বাচ্চাদের জন্য, , ফ্যামিলি রাইড, রেষ্টুরেন্ট, দোকান এবং শিশুদের জন্য রয়েছে একটি ফটো গ্যালারী।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/28369_2170_39319.jpg

http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/52709_47221_81567.jpg

হ্যারিটেজের বাচ্চাদের নিয়ে কয়েকটা রাইডে চড়লাম ।

http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/21494_3966_94140.jpg

বাচ্চারা বেশ খুশি ছিল উঠতে পেরে। হ্যারিটেজ থেকে বের হয়েই দেখি একজায়গায় যাদু শেখানো হচ্ছে। বড় ছেলে তা-সীন তো যাদু একটা শিখবেই এবং যাদু দেখানোর জিনিসগুলোও সে কিনবে। অগত্যা ওদের বাবা যাদু শেখানোর জন্য নিয়ে গেল।
http://www.nokkhotro.com/asset/upload/104/original/71586_82703_30863.jpg

লোকটি চোখের পলকে কি করে না করে তাজ্জব বনে গেলাম। অনেকগুলো যাদু ফ্রিতেই দেখালো। শেষে কাগজের পাইপ দিয়ে ফুলের তোড়া বের করার যাদুটি আমার ছেলে তা-সীন শিখে নিল। এবং শেষে উপকরণটিও কিনে নিয়ে আসলাম। বাচ্চাদের আনন্দতেই আমাদের আনন্দ। সুন্দর এবং আনন্দময় একটি দিন পার করেছিলাম সেদিন। আল্লাহর কাছে শুকর আলহামদুলিল্লাহ।

একটি দিন হতে পারে আপনার পরিবারের জন্য বিশৃঙ্খলা এবং শহরের কালো ধোঁয়ামুক্ত দুরে কোথাও এমন পরিবেশে নির্মল বিনোদন। পার্কের ঐতিহ্যমন্ডিত স্থাপনাগুলো আপনাকে করে দিবে নস্টালজিক। সুন্দর পরিবেশে বেশ খানিকটা সময় কাটাতে পারেন পুরো পরিবার নিয়ে। একবার ঘুরে আসুন আশুলিয়ার হ্যারিটেজ পার্কে। আপনার বাস্তব নির্মল আনন্দের অভিজ্ঞতা আপনার আশেপাশের মানুষগুলোকে ভ্রমণের জন্য অনুপ্রাণিত করতে পারেন।

আল্লাহ হাফেজ………. সুন্দর থাকুন,ভাল থাকুন এবং সর্বাবস্থায় নিরাপদে আর সুস্থ থাকুন…….. কষ্ট করে পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

৪৭০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি খুবই সাধারণ একজন মানুষ । জব করি বাংলাদেশ ব্যাংকে । নেটে আগমন ২০১০ সালে । তখন থেকেই বিশ্ব ঘুরে বেড়াই । যেন মনে হয় বিশ্ব আমার হাতের মুঠোয় । আমার দুই ছেলে তা-সীন+তা-মীম ==================== আমি আসলে লেখিকা নই, হতেও চাই না আমি জানি আমার লেখাগুলোও তেমন মানসম্মত না তবুও লিখে যাই শুধু সবার সাথে থাকার জন্য । আর আমার ভিতরে এত শব্দের ভান্ডারও নেই সহজ সরল ভাষায় দৈনন্দিন ঘটনা বা নিজের অনুভূতি অথবা কল্পনার জাল বুনে লিখে ফেলি যা তা । যা হয়ে যায় অকবিতা । তবুও আপনাদের ভাল লাগলে আমার কাছে এটা অনেক বড় পাওয়া । আমি মানুষ ভালবাসি । মানুষকে দেখে যাই । তাদের অনুভূতিগুলো বুঝতে চেষ্টা করি । সব কিছুতেই সুন্দর খুঁজি । ভয়ংকরে সুন্দর খুঁজি । পেয়েও যাই । আমি বৃষ্টি ভালবাসি.........প্রকৃতি ভালবাসি, গান শুনতে ভালবাসি........ ছবি তুলতে ভালবাসি........ ক্যামেরা অলটাইম সাথেই থাকে । ক্লিকাই ক্লিকাই ক্লিকাইয়া যাই যা দেখি বা যা সুন্দর লাগে আমার চোখে । কবিতা শুনতে দারুন লাগে........নদীর পাড়, সমুদ্রের ঢেউ (যদিও সমুদ্র দেখিনি), সবুজ..........প্রকৃতি, আমাকে অনেক টানে,,,,,,,,,আমি সব কিছুতেই সুন্দর খুজি.........পৃথিবীর সব মানুষকে বিশ্বাস করি, ভালবাসি । লিখি........লিখতেই থাকি লিখতেই থাকি কিন্তু কোন আগামাথা নাই..........সহজ শব্দে সব এলোমেলো লেখা..........আমি আউলা ঝাউলা আমার লেখাও আউলা ঝাউলা ...................... ======================== এটা হলো ফেইসবুকের কথা........ ========================== কেউ এড বা চ্যাট করার সময় ইনফো দেখে নিবেন এবং কথা বলবেন...........আর আইস্যাই খালাম্মা বলে ডাকবেন না । পোলার মা হইছি বইল্যা খালাম্মা নট এলাউড......... ================ এই পৃথিবী যেমন আছে ঠিক তেমনি রবে সুন্দর এই পৃথিবী ছেড়ে একদিন চলে যেতে হবে ======================= কিছু মুহূর্ত একটু ভালোবাসার স্পর্শ চিত্তে পিয়াসা জাগায় বারবার এই নিদারুণ হর্ষ ....... ছB ========================= এই হলাম আমি........ =================
সর্বমোট পোস্ট: ৬৩৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮৯৯৭ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-১৫ ০৪:৫২:৪০ মিনিটে
banner

৬ টি মন্তব্য

  1. সুমন সাহা মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো।

    চমৎকার সব ছবি।

    শুভেচ্ছা রইলো।

  2. হাসান ইমতি মন্তব্যে বলেছেন:

    সচিত্র লেখা আরও ভালো লাগতে পারতো যদি তাতে পার্কার সাথে সাথে লেখিকার ছবিও থাকতো …

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    লেখিকা ত ফটওগ্রাফার

    লেখিরার ছবি কে উঠায়ে দেবে বলুন

    ধন্যবাদ ভাইয়া

  4. সহিদুল ইসলাম মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব সুন্দর পোস্ট, মন ভরে গেল।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top