Today 09 Dec 2019
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner
লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ২২৬ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১৬০৬ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০১-২৪ ১৬:৪০:১২ মিনিটে

কে বলেছে তুমি আর নেই, কার এতো বুকের পাটা?
যে বলেছে সে হয়ত বেঁচে থাকার সংজ্ঞাই জানে না!
একটা বাঁশের খুঁটির সাথে বেঁধে রাখা পিছমোড়া সভ্যতা
একটু আগেই আমাকে বলে গেছে তুমি মরে যাওনি!
তুমি আর কোনোদিন মরতে পারবে না!!

যে সমাজ একটা

বিস্তারিত পড়ুন

এখন গাঙ্গিনাপাড় রোজই উপচে পড়ছে
দোকানে দোকানে থোকায় থোকায় সাজানো-গোছানো ঈদ
এই দুর্মূল্যের বাজারেও খরিদ্দারের কোনো অভাব নেই,
তেল আর জল একসাথে বেশ আছে!

ছমিরন বিবির হাঁটতে হাঁটতে পা ফুলে গেছে
কেউ ভিখ দেয়নি
কারো ভিখ দেওয়ার সময় নেই!

বিস্তারিত পড়ুন

আবার মুদ্রণ সুখে ঘুম হারিয়েছে চিলমারী বন্দর, সবাই
কাঁহাতক তাকিয়ে দেখলো, আগুনের গোলার মতো হাত;
এই তো সেদিনও আকাশ দেখেছিলো এমনি কবিতা রাত
একের পর এক নক্ষত্রের পতনে উদ্ভাসিত হলো সোনামুখী
সুঁইয়ে বোনা নকশী কাঁথা জলপ্রভাত!

কোনো উপসর্গ ছিলো না
কোনো অনুসর্গ ছিলো না
তবুও কার্যকারণ

বিস্তারিত পড়ুন

মর্জিনার ভেতরে একটা পাণ্ডুলিপি ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে
কেউ বলতে পারে না
সেটা কিসের পাণ্ডুলিপি!
একদিন এখানে কবিতার চর্চা ছিলো
একদিন এখানে গল্পেরও চর্চা ছিলো
ছোটগল্প, বড়গল্প সবই ছিলো!

তবুও আজকাল মর্জিনার বড়ো মনমরা থাকে; সে কিছুইতেই
বুঝতে পারে না তার জীবনের গতিপ্রকৃতি!
আজ আর কাউকেই বিশ্বাস

বিস্তারিত পড়ুন

আমার এই জল শহরে এখন নোটিশ করে ঝমঝম বৃষ্টি হয়
একেবারে রুটিন করে, সুবেহ সাদিকের একটু আগে থেকে;
যখন ঘুম পরীরা সব জাতের ঘুম নিয়ে একসাথে হাজির হয়,
ঠিক তখন; যখন কামরাঙার গতর বেঁয়ে ছুঁয়ে ছুঁয়ে পড়ে
আদুরী বৃষ্টির আদর; সে আদর নিতে

বিস্তারিত পড়ুন


বেশ কিছুদিন একটানা একসেদ্ধ গরম পিছু নেয়ার পর, এখন
আবার বৃষ্টির চোখে অঝোর ধারায় জল নেমেছে!
যে তিস্তা পাড়ের মানুষ কাঁদার জন্য চোখের জল পেতো না,
তারাই এখন জলের ভয়ে ঘর, বাড়ির মায়া কাটিয়ে
আশ্রয়কেন্দ্রের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে!
মানুষ আর প্রকৃতি মিলে তাদের সাথে

বিস্তারিত পড়ুন

কৃষ্ণপক্ষ এখন আর বাড়িয়ে দেয় না অন্ধকারের ঘনত্ব
একেবারে খাদের শেষ কিনারে দাঁড়িয়ে আছে পৌরাণিক
মানবতার গল্প, বলা যায় কোনোরকমে টিকে আছে!
বলা যায়, ইনহেলার নিয়ে নিয়ে কোনোরকমে বেঁচে আছে!

তাবৎ এই গ্রহবাসী নিরুত্তাপ চেয়ে চেয়ে দেখে
মাথার খুলি, হাড়, পিছমোড়া বাঁধা অন্ধকার
ছিন্নভিন্ন সুডৌল স্তন,

বিস্তারিত পড়ুন

এই দড়ি ছেঁড়া গরমে
দুই চরণ কবিতা পাঠিয়ে দিলাম
তোমার স্মরণে!
পুনশ্চ একটি বচন রাখিও মনে
এই খানে এখন
ভোগ্যপণ্য প্রেম মানে না!
এইখানে এখন
রিক্তের বেদন কেউ বুঝে না!

বিস্তারিত পড়ুন

ছেলেটা শখ করে সিগারেট খাওয়ার মতো প্রেম প্রেম খেলছিলো
মেয়েটা পুতুলের বিয়ের মতো ঘর বাঁধার স্বপ্ন মনে মনে বুনছিলো।
অতঃপর খান্দানি প্রেম ভেগে গেলো
অতঃপর মেয়েটির জাকান্দানি শুরু হলো
অতঃপর কালো পাহাড় সাদা হলো
অতঃপর যম-রশি টানাটানি অনেক হলো
অতঃপর আজরাইল এসেও খালি হাতে ফিরে গেলো!

কবি

বিস্তারিত পড়ুন

একটা অগ্নিবীণা এনে দাও
অথবা একটা বিষের বাঁশি!
কাশফুল চেয়ে চেয়ে দেখে
এখনও আমার মায়ের মুখে
সেই সরলা কৃতদাসের হাসি!

যে হাসিতে ছন্দ-হিন্দোল নাই
নাই গানের পাখি বুলবুলি!
কুহেলিকা রাত চেয়ে দেখে
দ্রোহের বাণী নীরবে কাঁদে
কাবিলের হাতে হাসে রংতুলি!

কোথায় গেছে দোলন চাঁপা
শিউলি মালাও

বিস্তারিত পড়ুন

কাল কবিতা মুখ ভার করে সেই যে
তিনতলায় উঠল, আমি সারাদিন পথ চেয়ে রইলাম,
একটি বারের জন্যও আর নিচে নামলো না!
শুনেছি সে নাকি বুঝতে শেখেছে, সবখানে,
সব চোখের তারায় দর্শন থাকে না;
এখন সে বুঝতে পারছে
কেনো সবাই তাকে আস্ত গিলে খেতে চায়!
রাস্তার কুকুরগুলো যেমন

বিস্তারিত পড়ুন

পিতৃ-মাতৃহীন একটা হিজড়া সময় তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেছে
হিজড়াদের যেমন কোনো সমাজ নেই
হিজড়াদের যেমন কোনো সংসার নেই
তারা যেমন করে আইনের কোনো তোয়াক্কা করে না তেমন!

খুউব জানতে ইচ্ছে করে——
প্রসব বেদনায় ছটফট করা মায়ের কান্নার রঙ কী ছিলো?
আর পাঁচটা শিশুর জন্মের মতোই তারও কী

বিস্তারিত পড়ুন
go_top