Today 25 Jan 2020
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner
লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ২২৬ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১৬০৬ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০১-২৪ ১৬:৪০:১২ মিনিটে

কেন অমন করে সব কিছু বিনা ঝড়ে ভেঙে পড়ে
ভেঙে পড়ে অর্ধেক চাঁদ, জল নূপুর
বাজখাই গলা
আখড়ার মেলা থেকে কিনে আনা পুতুলের বিয়ে
ছোট বড় বাটকারা
কেউ থামিয়ে দিতে পারে না সূর্যের রথকলা
ভিজিয়ে দিতে পারে না রোদের মন,
অশ্রুসিক্ত নয়ন
কামরূপ কামাক্কার মায়াবিনী সেও!

আড়াল থেকে মুচকি

বিস্তারিত পড়ুন

সেই কবে তোমাকে দেখেছিলাম বুটিক সকাল
আজ আর দিন-তারিখ কিছুই মনে নেই!
তোমার দু’চোখে জল পতনের শব্দ শুনে বুঝতে
পেরেছিলাম, কানামাছি খেলার দিন আর নেই!

এরপর ভূগোল বইয়ের কোনো একটা পাতা মন্ত্রসিদ্ধ হয়েছিলো
ভাঙ্গা হাটে জোসনা দেদার বিক্রি হয়েছিলো
আমি কিনে নিতে পারিনি!

এখনও

বিস্তারিত পড়ুন

আমার এই শহরে এখন
যেখানে সেখানে খুচরো প্রেম ফেরি হয়
ক্রেতার কোনো অভাব নেই
নাকের নিচে দু’আনার মিহি চুল গজায়নি
সেও কিনতে চায়!

সস্তা জিনিসের আগে তিন অবস্থা ছিলো
এখন কতো বস্তা হয় বুঝতে পারছি না!

ওই কৃষ্ণচূড়ার তলাটা এখনো ফ্রি আছে
এই সুযোগ বারবার আসে

বিস্তারিত পড়ুন

গেলো ভোর রাতে সন্ধ্যা এসেছিলো
কিছুই বলেনি,
চুপচাপ দাঁড়িয়েছিলো;
কিছুক্ষণ পর সে চলেও গেলো, তবে
যাওয়ার আগে চোখের ভাষায় কী যেন
লিখে গেলো!
আমি পড়তে পারিনি ।

এখানে প্রেম ছিলো——!!

বিস্তারিত পড়ুন

এখানে প্রেম গদ্যরীতি
হাটতলা, বটতলা কুঁড়িয়ে পাওয়া যায়,
আসলে যুদ্ধটা শুরু হয়, প্রথম বিশ্ব যুদ্ধের পর,
গৈরিক বসন আজও কোনো প্রেমপত্র মানে না!

উঠতি কবি সমানে কবিতা লিখে
বৈয়াকরণ ব্যাকরণের ধার ধারে না!!

বিস্তারিত পড়ুন

জলজ্যান্ত দিনটা কেমন করে রাত হয়ে গেলো
নেমে এলো দু’চোখ বুজা অন্ধকার; কেউ টের পেলো না।
কেউ বিস্মিতও হলো না।
এখন সবকিছু এমনি হয়!

নীল আকাশটা দেখতে দেখতেই কালো মেঘে ছেয়ে গেলো
নিভে গেলো অলৌকিক বাতিঘরের আলো
এবারও কেউ বিস্মিতও হলো না।
এখন সবকিছু এমনি

বিস্তারিত পড়ুন

যে আচানক দিনকাল পড়েছে , শুয়ে শুয়ে হাঁটি;
চোখের সামনে চাঁদ গড়াগড়ি যায়, হেসেই হই লুটোপুটি!
অনাহুত মোহনায় অনায়স মিলে যায় পিত্তথলির রস;
উপায়ান্তর না দেখে শেষমেশ তাই ভক্ষণ করে
রাক্ষুসে পাকস্থলী!

শব্দভুক পদ্যগুলো বড় বড় চোখ করে চায়,
সেই সাথে খুনসুটি করে উপমার মা, সাবলীল

বিস্তারিত পড়ুন

কতোকাল ধরে, কতো আকণ্ঠ জলপান করে,
চেয়ে আছি শূন্যের ভেতর,
এখনও বুঝতে পারিনি কোনো কিছুই
দৈর্ঘ্য, প্রস্থ, ভেদ!
এখনও জানতে পারিনি রক্ত, মাংস, হাড়;
সবই যদি এক, তবে কেনো মানুষে মানুষে
এতো আকাশ প্রভেদ!
কেনো কুমেরু উড়ে আসে রেললাইনের
দুই পাশের বস্তি ঘর?
দিয়ে যায় বুক-পিঠ ব্যবধান
কাউকে করে নেয়

বিস্তারিত পড়ুন


একটা দ্বিরুক্ত শব্দ উচ্চারণ করেছিলাম,
এরপর
অর্থটা এমন ভাবে পরিবর্তন হয়ে গেলো যে,
আমি তাকে আর চিনতেই পারলাম না!

দাঁড়ি দিলাম
কমা দিলাম
সেমিকোলন দিলাম
কোনো কিছুতেই কিছু হলো না!

অথচ এক সময় সে আমার ইতিহাসের
অংশ ছিলো!


বাক্যটা ছাইচাপা আগুন ছিলো, অনেকদিন
থেকেই ভেতরে ভেতরে সে ফুঁসে

বিস্তারিত পড়ুন

ছেঁড়াফুলটা সন্ধ্যা বাতি জ্বলার আগেই ঘরে ফিরে এসেছিলো
তাও শেষ রক্ষা হয়নি!
একবার ধর্ষিত হয়েছিলো রাতের কাছে
আর এখন ধর্ষিত হলো দিনের কাছে
তার কাছে এখন দিন-রাত সমান,কোনো ইতর-বিশেষ নেই!

অবশ্য সুখ সে পেয়েছিলো
জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণের সুখ!

তার কাছে এখন আর
আহ্নিক গতি,বার্ষিক গতি বলতে

বিস্তারিত পড়ুন

একটা অশুদ্ধ সময়ের ইঁদুর দৌড় চেয়ে চেয়ে দেখছি
বিবসনা রমণীর কারুকাজ!
গল্পে ও কবিতায় সব্যসাচী,ধরে নেয়া যায়
সর্বগ্রাসী মেঘনা!পাপ বোধ নেই, পরিতাপও নেই,
পরিণামের কোনো ভয়ও নেই!

সকাল কাঁদে, দুপুর কাঁদে,কাঁদে বিকেল সেও!
অতঃপর সন্ধ্যা এসে কোনোরকমে কপালে হাত বুলায়,
বেহুশ কেটে যায় অস্থির রাত;
গল্পের পর গল্প

বিস্তারিত পড়ুন

অনেকদিন পর আজ সকালটা সকালের মতো ছিলো
অনেকদিন পর আজ বিকেলটাকে বিকেল মনে হলো!
কেন মনে হলো?
অনেকদিন পর সকালটা মুদ্রিত হলো
অনেকদিন পর বিকেলটাও মুদ্রিত হলো
এরপর যদি হয়ে যায়
এক কাপ রঙ চা
তাহলে ধরে নেব অনেকদিন পর সন্ধ্যেটাও মুদ্রিত হলো!!

বিস্তারিত পড়ুন
go_top