Today 14 Aug 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

উপন্যাস ” পাথরের মানুষ ” পর্বঃ ২

লিখেছেন: শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত | তারিখ: ০৭/০১/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1119বার পড়া হয়েছে।

মেম্বার বলল ,
মিয়া ভাই আপনার বাড়ি ভিটা খালি করতে হবে ।
কেন ?
এ কথা শুনে মনে হচ্ছে , যেন পৃথিবী গায়েব হয়ে আকাশ ভেঙ্গে পরল । বাবার জবান বন্ধ হয়ে থ হয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন । বড় ভাই জিজ্ঞাসা করল ,
কেন আমরা এ ভিটা ছেড়ে যাব ?
মেম্বার সাহেব বিক্রির দলিল বের করে দেখিয়ে দিল তার বাবার টিপসই । স্বচোখে দেখে বাবাকে জিজ্ঞাসা করল ,
আব্বা আপনি কি টিপসই দিয়েছিলেন ?
বাবা কাঁন্নার স্বরে উত্তর দিল ,
আমি বলতে পারিনা তবে হাসপাতালে আমার একটি টিপসই নিয়েছিল ।
আইনের সীমা তো লঙ্ঘন করা সম্ভব নয় । তাই নিরুপায় হয়ে বাবা কাকুতি মিনতি করে বললো ,
আজকে আর কোথায় গিয়ে দাঁড়াব ? আমাকে তিন দিনের সময় দেন ।
একদিনও সময় হবে না , নির্দয় জ্যাঠো উত্তর দিল ।
মেম্বার সাহেব বুঝিয়ে অবশেষে একদিনের সময় দিল । আলমের বাবা চোখ বুজে এ নিঠুর অবিচার মেনে নিতে বাধ্য হলেন । পরের দিন শুক্রবার নিজের বসতভিটা ছেড়ে রিফুজী হয়ে আশ্রয় নিলেন একই এলাকার হামিদ মিয়ার বাড়িতে ।

১৯৯৮ সাল আষাঢ় মাস গত সাত দিন ধরে মুষলধারে অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছে । তিস্তা নদী ভরে উপচে গিয়ে মাঠ ঘাট ডুবে বন্যায় প্লাবিত হয়েছে । শুধু মেম্বারের বাড়ি ছাড়া সবার ঘরে বন্যার পানি উঠেছে । কোন প্রাণির ঘরের বাইরে বেড়ানোর সুযোগ নেই । একান্ত প্রয়োজন হলে , কলা গাছের ভেলা বা ডিঙ্গি নৌকা ব্যবহৃত হয় । একটানা তিন মাস বন্যা থাকায় মানুষ কোন কাজ করতে পারেনা । তাই সারা বছরের সঞ্চয় রেখে দেয় এ দুর্দিনের জন্য ।
বড় অনুশোচনা ও কষ্টের বিষয় ৭ দিন ধরে আলমদের তোলা উনুনে কোন আগুন জ্বলার সুযোগ পায়নি । কি করে অনল জ্বলার সুযোগ পাবে ? এক পয়সাও সঞ্চয় নেই তাদের এ দুর্দিনের জন্য । আলমের বাবা ক্ষুধার চোটে বৃষ্টিতে ভিজে মেম্বারের নিকট গিয়ে বলল ,
৭ দিন ধরে সবাই অনাহারে , একটা দানাও নেই ঘরে ।
দানা নেই তো আমি কি করবো ? এক পয়সাও সাহায্য করার মত সাধ্য আমার নেই । আমার কি ধন ভাণ্ডার আছে , যা আপনাকে দিয়ে দেব । কর্কশ কণ্ঠে উত্তর দিলেন মেম্বার সাহেব ।
না ভাই আপনার সম্পদ চাচ্ছিনা । শুনলাম , দুর্দিনের জন্য সরকার থেকে রিলিফের কার্ড এসেছে ? যদি দয়া করে একটা কার্ড দিতেন আল্লাহ আপনাকে হজ্বের সওয়াব দিতো ।
তা ঠিকই শুনেছেন , এ কার্ডের জন্য এক হাজার টাকা লাগবে । এটা বার মাসি কার্ড প্রতি মাসে ত্রিশ কেজি করে চাউল পাবেন ।
আমি যতটুকু জানি , সরকার এ কার্ড বিনামূল্যে দেন ।
আরে মিয়া ভাই বেশ সুন্দর তো নীতিকথা বললেন । আমি কি মেম্বার হয়েছি বিনা পয়সায় ? লাখ লাখ টাকা ভোটের ক্যান্ভাসে খরচ করেছি । শুধু তাই না একটি করে ভোট ৫০০ টাকা দিয়ে কিনেছি । আর আপনাকে কার্ড দিব সুধা মুখে মগের মুল্লুক পেয়েছেন , তাই না ?
ভাই এখন আমার কাছে এক পয়সাও নেই । কার্ড দেন পরে আস্তে আস্তে শোধ করে দেব ।
নইলে আমার নিষ্পাপ ছেলেরা হা-ভাতে মরে যাবে ।
কার্ড বাকি দেবনা , তবে একটা বুদ্ধি দিতে পারি । বাবু ( কেডু ) সুদেরুর কাছ থেকে ১০০০ টাকা নেন পরে সুদে আসলে শোধ করবেন ।
নিরুপায় হয়ে আলমের বাবা সুদে টাকা নিয়ে মেম্বারকে দিলেন । টাকা নিয়ে সত্‍ ও সমাজ সেবক মেম্বার সাহেব বললেন ,
চলে যান আগামী কালই কার্ড পাবেন ।
বাবা ঘরে গিয়ে দেখেন নিষ্পাপ তিনটি হীরক টুকরা ক্ষুধার চোটে নয়নের জলে সিন্ধু সৃষ্টি করেছে । ওদের মাথায় হাত বুলিয়ে শান্তনা দিচ্ছে ,
তোরা কাঁদিস না কালকে রিলিফ পেলেই পেট ভরে খেতে পারবি । সপ্তাহ খানেক ভাত পেটে যায় নাই শুধু দু এক মুঠো চিড়া মুড়ি খেয়ে আছে । ক্ষুধার অসহ্য জ্বালায় বড় ও মেজো ভাই অবিরাম কাঁদছে । আলম কাঁদার কোন শক্তি পাচ্ছে না গতরে । বাবা তাঁকিয়ে দেখলেন ,
বিছানায় যেন এক টুকরো শুকনো পাট খরি অপলক দৃষ্টিতে হা করে দম নিচ্ছে । কি বেদনাদায়ক ঘটনা !

১,১৪৭ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
01912657988 অথবা 01853861342
সর্বমোট পোস্ট: ১৮৫ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৬৩৬ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-২৩ ১১:৪২:৪১ মিনিটে
banner

৪ টি মন্তব্য

  1. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    উপন্যাস ” পাথরের মানুষ ” পর্বঃ ২
    —————————-
    শিরোনামে উপন্যাস কথাটা না লিখলেই ভাল হয় কারণ ক্যাটাগরিতেতো উপন্যাস লেখা আছেই। আর ইনভাইটেট কমারও প্রয়োজন নেই।
    আপনি এভাবে লিখতে পারেন।
    পাথরের মানুষ পর্ব-১
    পাথরের মানুষ পর্ব-২

  2. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    বেদনাদায়ক ঘটনা !পাথরের মানুষ কে? অসহায় দুস্থ না খেতে পাওয়া মানুষগুলো? শান্ত তোমার লেখাটা হৃদয়স্পর্শী।ভাল লাগল।

    পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।অনেক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা শান্ত।ভাল থাকবে কেমন।

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    িআসলেই বেদনাদায়ক মানুষ কেন এতটা স্বার্থপর হয় আল্লাহ জানে
    একটা মানুষের জীবনে এত কিছু লাগে কেন ।

    সুন্দর হচ্ছে শান্ত ভাই । চালিয়ে যান সাথেই আছি

  4. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    ষ্বার্থের জন্য মানুষ অন্ধ হয়ে যায় । তখন আর মানুষ মানুষ থাকে না ।
    ভাল লাগছে লেখাটি । শুভ কামনা ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top