Today 01 Jul 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

কানা কে কানা, খোঁড়াকে খোঁড়া বলি ও না!

লিখেছেন: গোলাম মাওলা আকাশ | তারিখ: ১৭/০৯/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1150বার পড়া হয়েছে।

তখন ৫ম শ্রেণীতে পড়ি। আমাদের গ্রাম হতে আমাদের প্রাইমারি স্কুল প্রয় ১.২ কিমি দূরে। আমরা তখন ৭-৮ জন একসাথে স্কুলে যাওয়া আসা করতাম। আবার ছুটির সময় একসাথে বাড়ি ফিরতাম।

তো একদিন স্কুল ছুটির পর সকলে হৈ হুল্ল করতে করতে বাড়ি ফিরছি। তো রাস্তার ধারে একটি আম বাগান ছিল। সেই ছায়ায় একজন লোক বসে জিরচ্ছিল( আরাম করা, বিশ্রাম করা)। আমাদের দেখে উনি কাছে ডাকলেন। আমরা ভয় পেলাম ছেলে ধরা নয়তো। ( তখন আমাদের অঞ্চলে ছেলে ধরার একটা ভয় কাজ করছিল। যদিও ব্যাপারটা ভুয়া। কিন্তু আমরা ছোট মানুষ আমাদের মাঝে ছেলে ধরা নিয়ে একটা ভয় ছিল। যে , ছেলে ধরারা ছোট পোলাপান কে একা পেলে ধরে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করে দেয়।)
কারণ লোকটির পরনে বিদঘুটে পোশাক (এ রকম পোশাক আগে আমরা দেখিনি,আসলে ওটি ছিল কোট । যা অনেক পরে বড় হয়ে শহরে এসে বুজেছিলাম) কেমন মলিন, চুল বড় বড় অবিন্যস্ত, হাতে একটা লাঠি। ঠিক যেন বাংলাদেশি হেমিলনের বাঁশি ওলা। আমরা ভয় ভয়ে কাছে গেলাম। উনি উঠে দাঁড়ালেন লাঠি ভর দিয়ে। এগিয়ে এলেন, তখন বুঝলাম লোকটির পায়ে সমস্যা আছে। এক কথায় তিনি খোঁড়া। এই সময় আমাদের মধ্য থেকে জুয়েল নামে আমার এক চাচাতো ভাই আমাকে বলে উঠল, দেখ লোকটা তো খোঁড়া। এমনই আস্তে বলল যে ঐ লোকটা পর্যন্ত পষ্ট শুনতে পেলেন।আমরা দুই পক্ষই পরস্পরকে দেখলাম এক মহুরতো ।
এর পর উনি কোমল গলায় জিঙ্গেস করলেন আমরা স্কুল হতে এলাম না কি ?
আমরা মাথা নড়ালাম। এর পর উনি জুয়েলর দিকে তাকিয়ে খুব মোলায়েম গলায় প্রশ্ন করলেন।
তোমার নাম কি বাছা?
ও তখন বেশ ঘাবড়ে গেছে, চুপ করে আছে, ওর হয়ে আমি উত্তর দিলাম ওর নাম জুয়েল।
উনি এর পর গলা পরিষ্কার করে নিয়ে আমাদের সকলকে উদ্দেশ্য করে বললেন , শোন বাবারা, আমাদের পৃথিবীতে বিভিন্ন রকম মানুষ আছে। কেউ কানা, কেউ খোঁড়া, কেউ বোবা, কেউ ঠসা( বধির)। এরকম বিভিন্ন রকম মানুষ আছে, আছে না?
আমরা আবার সকলে মাথা ঝোকালাম।( আমাদের সকলের মনে তখন ভয় এই বুঝি তিনি আমাদের মারলেন, জুয়েলের উপর খুব রাগ হচ্ছিল, কেন বাবা অত জোরে বলতে গেলি।) এটি তাদের শরীরের একটা ত্রুটি, এই ত্রুটি নিয়ে কিছু বললে বা উপহাস করলে, বা তাঁকে ঐ কানা, ঐ খোঁড়া করে ডাকলে হয়তো যাকে ডাকলে সে মনে কষ্ট পেতে পারে। তাই কোন কানা কে কানা এবং খোঁড়া কে খোঁড়া বলিও না।
আমরা সকলে মাথা ঝুঁকিয়ে সায় জানালাম। এর পর তিনি ভারত বর্ডার এখান হতে কত দুর তা জিঙ্গেস করলেন। আমরা বললাম ১০-১২ মাইল। এর পর তিনি অন্যমনস্ক হয়ে দূরে তাকিয়ে থাকলেন, আমরা শুঁড় শুঁড় করে চলে আসার জন্য পেছনে ফিরলাম। কিছুক্ষণ পর পেছনে ফিরে দেখলাম তিনি লাঠিতে ভর দিয়ে আমাদের অনেক পিছে আস্তে আস্তে হেটে আসছেন। আর তখন আমি মনে মনে আওড়ালাম( বললাম) কানাকে কানা , খোঁড়া কে খোঁড়া বলি ও না।

বিঃদ্রঃ যা আজ পর্যন্ত আমি মেনে চলি।

১,১৩৯ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি খুব সাধারণ।
সর্বমোট পোস্ট: ১৩৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৯৭৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৮-২২ ১৬:৩০:৪৭ মিনিটে
banner

৩ টি মন্তব্য

  1. কামাল উদ্দিন মন্তব্যে বলেছেন:

    উপদেশ মূলক, আমাদের সবারই এটা মেনে চলা উচিৎ, লেখক কে শুভেচ্ছা :rose:

  2. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    তাই তো হওয়া উচিত

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top