Today 26 Oct 2021
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

দুঃখের পরে সুখে

লিখেছেন: অনিরুদ্ধ বুলবুল | তারিখ: ১২/০৩/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1925বার পড়া হয়েছে।

যদি দুঃখটাকে কষ্ট ভাবো

করবে তুমি ভুল

দুঃখের মাঝেই লুকিয়ে আছে

তোমার সুখের ফুল।

 

দুঃখ জেনো ক্ষণস্থায়ী

আসে সুখের বারতা নিয়ে

দুঃখের পরেই সুখ হাসে ওই

হাতের কাঁকণ হয়ে!

 

দিনের শেষে রাতের কালো

তবু সেথায় তারার আলো

চাঁদ কখনো আলোর নদী

সুখের বানে ভাসায় হৃদি।

 

দুঃখ যদি নাইবা থাকে

সুখের কী দাম আছে

মেঘের পরেই রোদটা

কেমন ঝলমলিয়ে হাসে?

১,৭৭৮ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
কৈফিয়ত - তোমরা যে যা-ই ব'ল না বন্ধু; এ যেন এক - 'দায়মুক্তির অভিনব কৌশল'! যেন-বা এক শুদ্ধি অভিযান - 'উকুন মেরেই জঙ্গল সাফ'!! প্রতিঘাতের অগ্নি-শলাকা হৃদয় পাশরে দলে - শুক্তি নিকেশে মুক্তো গড়ায় ঝিনুকের দেহ গলে!! মন মুকুরের নিঃসীম তিমিরে প্রতিবিম্ব সম - মেলে যাই কটু জীর্ণ-প্রলেপ ধূলি-কণা-কাদা যত। রসনা যার ঘর্ষনে মাজা সুর তায় অসুরের দানব মানবে শুনেছ কি কভু খেলে হোলি সমীরে? কাব্য করি না বড়, নিরেট গদ্যও জানিনে যে, উষ্ণ কুসুমে ছেয়ে নিয়ো তায় - যদি বা লাগে বাজে। ব্যঙ্গ করো না বন্ধু আমারে অচ্ছুত কিছু নই, সীমানা পেরিয়ে গেলে জানি; পাবে না তো আর থৈ। যৌবন যার মৌ-বন জুড়ে ঝরা পাতা গান গায় নব্য কুঁড়ির কুসুম অধরে বোলতা-বিছুটি হুল ফুটায়!! ভাল নই, তবু বিশ্বাসী - ভালবাসার চাষবাসে, জীবন মরুতে ফুটে না কো ফুল কোন অশ্রুবারীর সিঞ্চনে। প্রাণের দায়ে এঁকে যাই কিছু নিষ্ঠুর পদাবলী: দোহাই লাগে, এ দায় যে গো; শুধুই আমার, কেউ না যেন দুঃখ পায়।
সর্বমোট পোস্ট: ১৪৩ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪২২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৫-০২-১৪ ০২:৫৯:৫৩ মিনিটে
banner

৯ টি মন্তব্য

  1. হাসান ইমতি মন্তব্যে বলেছেন:

    সুখ দুঃখ একে অপরের পরিপূরক …
    দুঃখ বিনা সুখ লাভ হয়না – ভালো লাগলো চিরন্তন ভাবনার লেখা

  2. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ কবিকে।
    ভাল থাকুন নিরন্তর –

  3. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো
    চিরন্তন ভাবনা

  4. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ কবিকে। ভাল থাকুন –

  5. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    কবিতাটি ভাল লাগলো । কিন্তু অন্ত মিলের কবিতায় মাত্রা এবং অন্ত মিলের প্রতি খেয়াল রাখা অত্যন্ত জরুরী । কবিতাটি মাত্রা বৃত্ত ছন্দে লেখা হয়েছে । এর ১ম চরণ-১২ মাত্রা, ২য় চরণ-৭ মাত্রা , ৩য় চরণ- ১২ মাত্রা, ৪র্থ চরণ-৮ মাত্রা , ৫ম চরণ-১০ মাত্রা, ৬ষ্ঠ চরণ-১০ মাত্রা, ৭ম চরণ- ১৩ মাত্রা, ৮ম চরণ- ৮ মাত্রা , এ রুপ মাত্রা বিভ্রাট আছে পুরু কবিতাতেই ।অন্ত মিলের ক্ষেত্রে–‘ নিয়ে/ হয়ে এবং আছে/ হাসে অন্ত মিল শুদ্ধ নয় । শুভেচ্ছা রইল । ভাল থাকুন সতত ।

  6. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    আমার লেখাটায় এত শ্রমসাধ্য মতামত দানের জন্য কবির নিকট অসীম কৃতজ্ঞতা জানাই।
    বস্তুত আমি কবি নই – ছন্দ ভাল লাগে। ছন্দ নিয়ে খেলা করতে করতে যা লিখি তাই ভাবি
    কবিতা হ’ল। আসলে আমি কবিতার নিয়ম-কানুন তেমন জানি না। অন্তমিল বা মাত্রাবৃত্তের কথা
    মাথায় রেখে কিছু করি নি। আধুনিক ধারার গদ্য ছন্দের কবিতা লিখতে গিয়ে যেটুকু ছন্দ এসেছে
    তাতে কোথাও হয়তো অন্তমিল হয়ে গেছে আসলে এটা ইচ্ছাকৃত নয়। মূলত ছন্দকে প্রাধ্ন্য দিয়েই লেখা।

  7. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো দারুন কাব্যতা রয়েছে মুগ্ধ হলাম

  8. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব সুন্দর হয়েছে কবিতা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top