Today 14 May 2021
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

রাজার ঈশ্বরসাধনা

লিখেছেন: রাজিব সরকার | তারিখ: ১৮/১২/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1272বার পড়া হয়েছে।

সে অনেক অনেক দিন আগের কথা।এক দেশে এক রাজা ছিল।রাজার ছিল পাঁচ বউ।বড় বউ মোহিতা।এরপর যথাক্রমে চন্দ্রা,নন্দিতা,নন্দিনী,মোহিনী।রাজা তাদের ডাকল।পাঁচ বউ রাজার সামনে এসে বসে।
-সংসার আর ভাল লাগছে না।রাজ্য তোমরাই চালাতে পারবে।আমি বনে চলে যাব।ঈশ্বর সাধনা করব।জীবনের অনেকটা দিন তো ভোগেই চলে গেল।
মোহিতা কাঁদ কাঁদ হয়ে হাত ধরে বলে-আমরা কি নিয়ে থাকব মহারাজ?
-আমিতো কিছু নিয়ে যাচ্ছি না।
-আমাদের রাজ্য চাই না মহারাজ।আমরা শুধু আপনাকে চাই।তোরা কি বলিস?
সবাই মাথা নাড়ে।
রাজা বলে-এ জীবন হচ্ছে বন্ধন।এ বন্ধন হতে আমি মুক্ত হতে চাই।
-যদি যাবেন,তবে আমরাও যাব।
বাকিরা মাথা নাড়ে।
-আচ্ছা যাও।আমি ভেবে দেখি।
সবাই চলে যায়।রাজা দীঘির সিড়িতে বসে।পূর্ণিমার চাঁদ জলে খেলা করছে।রাজা যত বাড়ই দেখছে ততবারই মুগ্ধ হচ্ছে।আকাশের দিকে তাকায়।অনেক তারা।সাদা সাদা মেঘ।এর মাঝে চাঁদকে লাগছে অদ্ভূত সুন্দর।ঠিক করল,আর না পরিবারের বন্ধন।এখনি বনে চলে যাবে।হাটতে হাটতে কোথায় চলে এল,নিজেই বুঝতে পারল না।ভোর হবে হবে এমন সময় একটা বন খুজে পেল।বনের ভিতর ঢুকে পড়ে কিছুটা জায়গা পরিস্কার করে।এরপর গাছের পাতা বিছিয়ে ঘুমায়।খুব ঘুম ঘুম ধরছে।কয়েক ঘন্টা ঘুমের পর বেশ ক্ষিধা লাগে।
-নন্দিনী,নন্দিনী, খাবার নিয়ে আস।
ক্ষণিকেই ঘুমের ঘোর কেটে যায়।দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে।বউগুলোর মুখ বারবার ভেসে উঠছে।একেজন একেকভাবে আনন্দ দেয়।মোহিতা বলে গল্প,চন্দ্রা গায় গান,নন্দিতা খুব সুন্দর নাচে,নন্দিনী আকে ছবি,মোহিনী শুনায় কবিতা।বনের গাছপালা হতে ফল সংগ্রহ করে খেল।এরপর ধ্যান শুরু করে।নাকের কাছে কি যেন ভনভন করছে,শুধু ভনভন না,কিসে যেন কামড়াছে?চোখ খুলে।মশা মাড়ার কয়েকটা চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে আবার ধ্যান শুরু করে।চোখ বন্ধ করার সাথে সাথেই গজ গজ করে কিসের আওয়াজ যেন হয়,যেন ভয়ানক কিছু তেড়ে আসছে।রাজা ভয়ে ভয়ে সাথে সাথেই চোখ খুলে-দেখে একটি বনমোরগ যাচ্ছে।দেখে বেশ লোভ হল।মনে হল,ধরে খেতে পারলে বেশ হত।
-এই মনু,মোরগটা ধরতো।
বলেই মনে পড়ে যায়,সেতো আর প্রাসাদে নেই।সে এখন বনে।যেই উঠে ধরতে যাবে,তখনি দেখে মুরগির হদিস নেই।রাজা এবার দৃঢ় প্রতিজ্ঞবদ্ধ হয়,যাই হোক ধ্যান হতে কিছুতেই উঠছে না।ধ্যান করা শুরু করে।মনে মনে গডকে জপতে থাকে।মশার গুণ গুণ অসহ্য হয়ে উঠছে।গড সাধনার সময়ও যদি এমন সমস্যা করে,এটা কোন কথা হল।একেবারে শয়তানগুলো হাড়ে হাড়ে অকৃতজ্ঞ।তারপর আবার কামড়।মনে হচ্ছে চামড়া চামড়া খুলে খুলে পড়ছে।এমন সময় শম শম করে বাতাস বইতে থাকে।প্রচন্ড ঝর হবে হয়তো।রাজাতো মনে মনে অস্থির।কখন মাথার উপর গাছ ভেঙ্গে পড়ে,সে চিন্তায় গডের নাম মুখে জপ করা বন্ধ হয়ে গেছে।মনে একটি ছবি ভেসে উঠে,কয়েকজন লোক তাকে কফিনে করে কবরস্থানে নিয়ে যাচ্ছে।রাজা চমকে উঠল।তবু চোখ খুলল না।এবার কিসের গর্জন যেন শুনতে পেল?এরকম ডাক শুধু হিংস্র পশুরাই ডাকে,তার রাজসভার মন্ত্রীর কাছ হতে শুনা।শব্দটা আরও জোরালো হচ্ছে।রাজা এবার আর চোখ না খুলে পারল না।পিতৃপ্রদত্ত প্রাণটা রক্ষা করা আগে দরকার।তাই এক দৌড়ে বন হতে বের হয়ে পড়ে।রাজপ্রসাদের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।তার প্রিয় বউরা কেমন আছে।তাদের কথা খুব মনে পড়ছে।

১,৩৪০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১৭১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-৩০ ১৬:১৭:৫০ মিনিটে
banner

৮ টি মন্তব্য

  1. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    রাজীব ভাল ।একবারে ইদানীং রুপকথার রাজ্যে ঘোরাফেরা শুরু করছ দেখি।রুপকথা থেকে ঈশ্বর সাধনা ।ঈশ্বর সাধনা থেকে প্রপাত ধরনীতল সবেগে পলায়ন একেবারে প্রাসাদের দৌড়গোড়ায়(লেজ গুটিয়ে পলায়ন) আহারে ঈশ্বরের সাধনা বুঝি করা সম্ভব হলনা একদিন ও।মজার লেখা ।আনন্দ পেলাম পড়ে।

    অনেক ধন্যবাদ মজার লেখাটার জন্য।ভাল থাকবে কেমন।

  2. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    লোভ থেকে মানুষের মুক্তি এত সহজ নয় । ভাল সাজেশন । ভাল লাগল । শুভ কামনা ।

  3. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর গল্প। সাধনা এত সহজ না…. অনেক ভাল লাগা রইলউ

  4. শাহ্‌ আলম শেখ শান্ত মন্তব্যে বলেছেন:

    রুপকথার মত হলেও বেশ শিক্ষা পাওয়া গেল এ গল্পে । অনেক ভাল লেগেছ ।

  5. রাজিব সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    ারজু দি,আমি সবস্ময় ভালই থাকি,আপনি ভাল থাকনেব;সবাইকে ধন্যবাদ

  6. হাসান ইমতি মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো শিক্ষামূলক রূপকথা …

  7. রাজিব সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    অসাধারণ

  8. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগলো লিখা

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top