Today 01 Dec 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

রাত যখন বারটা

লিখেছেন: তাপসকিরণ রায় | তারিখ: ২১/০৮/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1531বার পড়া হয়েছে।

একটা গন্ধ পাচ্ছিলাম আমি । সুন্দর,ঠিক যেন চাঁপা ফুলের গন্ধ ! হঠাৎ এমন গন্ধ কোথা থেকে আসছিল বুঝতে পারছিলাম না । আকাশের দিকে তাকালাম । মাথার ঠিক ওপরে না,দূরের ডাল পালা,জটাজুট বট গাছের ফাঁক দিয়ে তৃতীয়ার চাঁদ দেখা যাচ্ছিল । গন্ধ আমায় ক্রমশ মোহিত করে তুলছিল । এ কি রকম, চারিদিকে তাকিয়ে দেখলাম । মনে হচ্ছিল আমি ঠিক আমাতেই আছি তো ! কে আমি ?

আমি নিজেকে হারিয়ে ফেলছিলাম । কেমন নিস্তেজ মনে হচ্ছিল !

নিজেকে একবার ঝাঁকিয়ে নিলাম–না,তাও শরীরের ঝিম ঝিম ভাব সরছিল না । কোন স্বপ্ন দেখছিলাম না তো ? নিজের গায়ে চিমটি দিতে চেষ্টা করলাম–খুব হালকা ভাবে যেন আমার নখ আমার গায়ে ঠেকল । আমার মনে হল আমি ঘুমিয়ে আছি । তবে কি এই গন্ধ—যা আমার নাকে আসছে তা স্বপ্ন–সত্য নয় !

মনে মনে বললাম–ঠিক আছে তবে স্বপ্নই দেখিনা ! স্বপ্ন তো জীবনের অনেক খানি অংশ জুড়ে থাকে । ঠিক তক্ষনি আমার মনে হতে থাকলো আমায় কেউ যেন ডাকছে–তাই নাকে পাচ্ছি চাঁপার গন্ধ ! আমি এগিয়ে গেলাম ধোঁয়ার ঠিকানা ধরে।

কেউ জেগে নেই–রাত অনেক হবে–নিশ্চয় রাত বারোটা হবে–আমি এগিয়ে যাচ্ছি ।

অনেকটা এগিয়ে গেছি আমি । তা প্রায় হাজার গজের ওপর পথ হবে । কে যেন আমায় আরও এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে । আমাদের বাড়ির শেষ সীমানার পুকুরের কাছাকাছি এসে গেলাম । আঁধার কাটিয়ে চাঁদের আলো আগে থকে আরও একটু বেশী প্রস্ফুট লাগছিল । কিন্তু সেটা যেন রহস্যময়তা আরও বাড়িয়ে দিচ্ছিল ! পুকুর ছাড়িয়ে আমি আরও এগিয়ে গেলাম,দূরে ছাতিম গাছের ঝাপড়ানো মাথা আবছা দেখতে পাচ্ছিলাম । দেখলাম ছাতিম গাছের নীচের কিছুটা জাগা আবছা আলোকিত । আলো তত জোরালো নয়,তবে কেন্দ্রিত–কোনও এক মনুষ্য দেহ ঘিরে ছিল মনে হল সেটা !

আমি এগিয়ে যাচ্ছিলাম,মনে হচ্ছিল ওই ছাতিম তলা আমার লক্ষ্য স্থল । ছাতিম গাছের অনেকটা কাছে এসে গেলাম । দেখলাম একটি মেয়ে–কখনো উজ্জ্বল,কখনো অনুজ্জ্বল চেহারা নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে–কে ? চেনা চেনা লাগছিল । আরও এগিয়ে গেলাম–এ কি ! এ যে নিশি ! আমাদের কলেজের মেয়ে নিশি,কিন্তু ও ত তিন মাস আগেই মারা গেছে!

–কেমন আছ তপন দা ? স্পষ্ট মেয়েলি গলা,হ্যাঁ,নিশির গলার মতই লাগছিল ।

আমি স্পষ্ট শুনতে পেলাম,যদিও শব্দটা যেন প্রতিধ্বনি হোয়ে আসার মত লাগছিল—কে ? বলে আমি চমকে উঠলাম ।

–আমি–নিশি বলছি,তপন দা ! নিশি ম্লান হাসছিল,আমায় ভয় পাবেন না তপন দা,আমার একটা কথা রাখবেন ?

–কি কথা ? আমার মুখ দিয়ে যেন আপনি কথা কটা বেরিয়ে    এলো ।

আপনার বন্ধুকে বলবেন,সে যেন আমার সঙ্গে একটি বার দেখা করে । আর আমি তাকে বিরক্ত করবো না । শুধু একবার তাকে দেখতে চাই । তপন দা,তারপর আমি চলে যাবো,অনেক দুরে,আর আমার দেখা কেউ পাবে না । শুধু আমি প্রতীক্ষা করতে থাকবো আপনার বন্ধুর জন্যে ।

নিশি যেন হাওয়ার সঙ্গে মিলিয়ে গেলো । ওর মিলিয়ে যাবার  সঙ্গে সঙ্গে ছাতিম গাছের নীচটা কেমন যেন অন্ধকারে ছেয়ে গেলো । আমি লক্ষ্য করলাম নেই–সেই চাঁপার অলৌকিক সুগন্ধ কোথায় যেন মিলিয়ে গেছে !

আমি ঘরের কাছে আসতে আসতে আমার পূর্ণ অনুভূতি যেন ফিরে পেলাম । চার দিক নিঝুম,টু শব্দ পর্যন্ত হচ্ছিল না । তার মানে সবাই গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন । ঘরে ঢুকলাম,বিছানায় আমার স্ত্রী শুয়ে ঘুমিয়ে আছে । গভীর ঘুমে সে মগ্ন।

এই পায়রা ডাঙা মফস্বল এরিয়াতে প্রতাপ চৌধুরী অবস্থা সম্পন্ন লোক । কোনও এক সময়ে নাকি ওঁরা জমিদার ছিলেন । এখন জমিদারি প্রথা বহু দিন আগেই লুপ্ত হয়ে গেছ । কিন্তু জমিদারী আদব কায়দা এখনো প্রতাপ ধরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন । রক্তের ধারা নাকি চট করে মেটে না । প্রতাপ চৌধুরীর একমাত্র ছেলে অবিনাশ । অবিনাশ আমার বন্ধু । আমরা নৈহাটি কলেজে একই সঙ্গে পড়ছি । সে কলেজেই পড়ে নিশা নামে একটি মেয়ে ।

নিশা থাকত চাকদায় । পায়রা ডাঙা থেকে চাকদা তিন কিলোমিটারের দূরত্বে । কলেজে পড়তে পড়তে নিশার সঙ্গে অবিনাশের ভাব ভালোবাসা হোয়ে গেলো ।

আমি অবিনাশকে জিজ্ঞেস করে ছিলাম,কি রে বিয়ে করবি তো নিশাকে ?

–হ্যাঁ রে,ওকে জীবনে না পেলে মরে যাবো আমি,বড় করুণ হোয়ে বলে ছিল অবিনাশ ।

–মেসো মশাই রাজী হবেন ?

–সেখানেই তো সমস্যা রে ! তুই তো বাবাকে জানিস ! তুই একটু বাবাকে বলবি আমাদের ব্যাপারে ?

–আমি ! ভাবছিলাম এত সাহস কি আমি পাবো ? মেসোমশাই যদি আমায় বকে দেন !

–প্লিজ,তপন,আমার জন্যে এটুকু কর তুই ! আমার হাত ধরে বন্ধু অবিনাশ আমায় বলেছিল ।

নিশাকে আমার ভালো লাগতো । দেখতে শুনতে খুব ভালো ছিল ও,রঙ সামান্য চাপা ছিল ঠিকই কিন্তু মুখশ্রী,চেহারা খুব সুন্দর   ছিল । এক দেখাতেই বেশ আকর্ষণীয় বলা যায় । আমায় ও ভালো ভাবে চেনে–আমি অবিনাশের বন্ধু সেটাও তার জানা ছিল ।

একদিন কোন কারণে অবিনাশ কলেজে না এলে আমার কাছে এসে নিশি জেনে যেত অবিনাশের খবর ।

এমনি একদিনের ঘটনা–অবিনাশ সে দিন কলেজে কোন কারণে আসে নি । নিশি আমার কাছে এসে কেঁদে দিলো,বলল,তপন দা,আমি আপনার বন্ধুকে ভালোবাসি,আপনার বন্ধুর বাবা আমায় মেনে নেবেন তো ? প্রশ্ন করে করুণ ভাবে আমার দিকে নিশি তাকিয়ে থাকলো ।

আমি কি বলব ঠিক করতে পারলাম না ।

আমায় নীরব থাকতে দেখে নিশি বড় করুণ ভাবে বলে উঠলো,তপন দা আপনার বন্ধুকে না পেলে আমি মরে যাবো । কথা কটি বলে ও আমার হাতটা খপ করে নিজের হাতে তুলে নিলো,বলল,দাদা,আমায় বাঁচান,আমি…আর কিছু বলতে পারছিলো না নিশা । কান্নায় ওর মুখ বুজে আসছিল ।

পরে জেনে ছিলাম নিশি অন্তঃসত্ত্বা ।

মেসোমশাই আমার মুখে সমস্ত কথা শুনে কিছু সময় চুপ  থাকলেন । ওঁর দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারলাম ওঁকে স্বাভাবিক বলে মনে হচ্ছিল না । হঠাৎ তিনি গম্ভীর ভাবে আমায় বললেন,তুমি এখন যাও,আর এ বাড়িতে কোন দিন এসো না ! কথা কটা বলেই তিনি ভেতর ঘরে চলে গেলেন ।

আমি লজ্জিত ও হতভম্ব হোয়ে ঘরে ফিরে এলাম ।

এরপর একটি মাস কেটে গেছে । আমি অবিনাশের বাড়ি আর যাই নি । মনে মনে ঠিক করেছি আর কোন দিন যাবো না ওদের ঘরে । কলেজে নিশি ও অবিনাশ বেশ ক দিন ধরে আসছিল না । মেসো মশাইয়ের সঙ্গে আমার কথা হবার পর থেকে আমি অবিনাশকে অনেকটা এড়িয়ে চলছিলাম । তবু একদিন ও এসে বলে ছিল,আমার কি দোষ বল ? আমি তো তোর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করি নি রে !

আর এক সপ্তাহ পরের কথা হবে,হঠাৎ শুনলাম,নিশি নাকি বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে ! কলেজেই কথাটা শুনে আমার খুব খারাপ লাগছিল । সে দিন অবিনাশকে কলেজে দেখলাম না ।

নিশি মারা যাবার তিন দিন পরের ঘটনা । হঠাৎ দেখি উদভ্রান্তের মত অবিনাশ আমদের ঘরে এসে হাজির । চেহারায় ওকে অসুস্থ বলে মনে হল । ওকে বেশ রোগা লাগছিল,ওর চোখ দুটো লাল লাল দেখাচ্ছিল ।

–তোর সঙ্গে কথা আছে,অবিনাশ বলে ।

–কি বল,তোর শরীর ভালো তো ? অবিনাশের চেহারা দেখে আমি বলে উঠি ।

–না রে ভালো নেই । আমি পড়া শোনায় মন দিতে পারছি না । কিছু ভালো লাগছে না ।

–যা হবার তা তো হোয়ে গেছে রে ! এখন নিজেকে সামলে নে ।

–কি করে সামলাই বল ! ও তো আমায় রোজ ডাকে–আমি রোজ যাই–নিশির সঙ্গে রোজ আমার দেখা হয় ।

আমি চমকে উঠি,বলিস কি !

–হ্যাঁ রে,রোজ খেয়ে দেয়ে আমি যখন শুতে যাই তখন থেকে আমার মনে হয় আমার নিশি ডাকছে । আমি ঘুমাতে চেষ্টা করি –আমার ঘুম ভেঙে যায়–ঠিক রাত বারটায় আমি জেগে যাই । একটা গন্ধ–সুন্দর গন্ধ আমার নাকে এসে ঠেকে…এ,আর…বলে থেমে গেলো অবিনাশ । কিছু সময় চুপ করে কি যেন ভাবল,তারপর বলে উঠলো,আমায় একটু জল খাওয়াতে পারবি ?

–হ্যাঁ,হ্যাঁ,নিজেই জল এনে ওর হাতে দিলাম ।

ঢক ঢক করে পুরো গ্লাসের জল গলায় ঢেলে আমার দিকে তাকাল, কিছু যেন বলতে চাইল ও।

আমি বললাম,হ্যাঁ,তারপর কি হল বল !

–ও,হ্যাঁ,বলে পুরনো প্রসঙ্গের খেই ধরতে চেষ্টা করল,বলল,জানিস কেমন যেন ফুলের গন্ধ পাই–আমার নাকে এসে ঠেকে চাঁপা ফুলের গন্ধ ! আমি আমাতে থাকি না তখন,আমাদের বাড়ির সীমানার পুকুর পার হোয়ে চলে যাই সেখানে–যেখানে একটা মাথা বড় বট গাছ আছে! তার নিচে দাঁড়িয়ে থাকে নিশি–আমার জন্যে অপেক্ষা করে ও !

নিশি আমায় বলে,রোজ আসবে তুমি–এমনি করেই আমরা নাকি বেঁচে থাকবো । ও আমাকে সান্ত্বনা দেয়,বলে,আমার জন্যে তুমি চিন্তা করো না,আমি আছি–আমি থাকবো–তোমার অপেক্ষায় থাকবো । রোজ রাতে তুমি এসো গো !

–রোজ রাতে তুই যাস ? আশ্চর্য হোয়ে আমি প্রশ্ন করি   অবিনাশকে ।

কিছু সময় চুপ থেকে কিছু ভেবে নিয়ে অবিনাশ ধীরে ধীরে বলে ওঠে–আমি রোজ রাতে যাই । আমরা এক সঙ্গে বসে থাকি–গল্প করি–হাসি খেলি—দুজনে ছোঁয়া ছুঁয়ি খেলি ।

–বলিস কি ! তোর ভয় হয় না ?

–শুরুতে কদিন ভয় হতো–এখন আর হয় না । এখন ভালো লাগে,খুব ভালো লাগে রে । আবার খানিক থেমে আমার দিকে তাকিয়ে থেকে বলে উঠলো,জানিস ওকে ছাড়া আমি বাঁচব না !

–বলিস কি ! ও ত মানুষ না,ও ত–

আমায় থামিয়ে দেয় অবিনাশ । বলে,না রে,অমন করে বলিস না,ও আমায় খুব ভালোবাসে । ওকে ছাড়া একটা রাত আমি থাকতে পারি না !

আমি বলি,কিন্তু এটা তো স্বাভাবিক নয়–এ ভবে তো চলতে পারে না !

–কেন পারে না ? একটু বিরক্তি নিয়েই অবিনাশ বলে উঠলো,আমি ভালো আছি–আমার জীবনে ভালোবাসা আছে–আর কি চাই বল ! ও যাই হোক—আলাদা কিছু আমি তো বুঝতে পারি না ! ও আমার গা ছোঁয়–আমি ওকে ছুঁই,ভালো লাগে–ভালোবাসার কিছু ব্যতিক্রম আমি তো অনুভব করি না ! জানিস,আমি ভাবছি এটাই ভালো । ওকে নিয়েই  না হয় এ জীবনটা আমি কাটিয়ে দেবো ।

–না,এটা হতে পারে না,এমন ভাবে কারো জীবন চলতে পারে না । তুই নিজেকে সামলা ।

–না ! হঠাৎ অবিনাশ চীৎকার করে উঠলো,আমি পারবো না–ওকে ছাড়তে,আমায় ওকে ছাড়ার কথা বলবি না ! অবিনাশ আমার উপর রাগ করে উঠে দাঁড়াল ।

আমি বললাম,শোন,বস তো !

অবিনাশ আর বসলো না–আমার কথার জবাব না দিয়ে হন হন করে বেরিয়ে গেলো আমাদের ঘর থেকে ।

এ ঘটনার পর প্রায় তিন মাস কেটে গেল । একদিন কানে এলো –অবিনাশ নাকি পাগল হোয়ে গেছে । ওকে নাকি ঘরে আটকে রাখা হয়েছে । কি করি ?  ভাবছিলাম । সেটা ঠিক এমনি দিনের কথা ছিল—রাত তখন বারটা—চাঁপার গন্ধ আমার নাকে এসে ঠেকে ছিল আর আমি চলে গিয়েলাম সেই ছাতিম তলায় । দেখে ছিলাম নিশিকে । ও আমায় বলেছিল,একটি বার অবিনাশের সঙ্গে ওর দেখা করিয়ে দিতে । কিন্তু কি করে সম্ভব তা ? ও তো এখন পাগল হয়ে গেছে । আর ওর বাবার আমার প্রতি সেই খারাপ ব্যবহার করার পরে আর কোন দিন অবিনাশের বাড়ি আমি যাই  নি । এখন কি করে যাই তাই ভাব ছিলাম । কিন্তু নিশির কথা মত একবার তো আমার তাকে বলতে হবে যে শেষ বারের মত নিশি তাকে ডেকেছে !

নিশির কথা আমি যেন কোন মত ফেলতে পারছিলাম না,আমার মনের ভিতর থেকে কেমন ভাবের উদয় হচ্ছিল,মনে হচ্ছিল যে  করে হোক অবিনাশকে আমি নিশির কথাগুলি বলে  আসি । নিশি তাকে শেষ বারের মত দেখা করতে বলেছে–কথাগুলি জানিয়ে দিই অবিনাশকে ।

সকাল দশটা হবে । আমি অবিনাশদের বাড়ি পৌঁছালাম । ভয় হচ্ছিল মেসোমশাইকে নিয়ে,কি বলতে কি বলে বসবেন আমায় ! কলিংবেল চাপলাম । ঘরের চাকর হবে,দরজা খুলে দিলো । আমায় বসতে বলে সে বাবুকে ডাকতে গেলো । দু মিনিট পরেই অবিনাশের বাবা,মা এক সঙ্গে এসে হাজির । মায়ের চোখ ছল ছল করছিল । তিনি বলে উঠলেন,বাবা,আমার ছেলে পাগল হোয়ে গেছে বাবা ! কারো কথা ও শোনে না । রাত হলেই ও বন বাদাড়ে ঘুরে বেড়ায় । নিশি মেয়েটা নাকি ওকে নিয়ে ঘোরে !

মেসোমশাই অনেক নরম হয়েছেন দেখলাম,বললেন,ছেলে আমার পাগল হোয়ে গেছে । শুধু ওই মরা মেয়ের কথা বলে,ওর সঙ্গে আপন মনে কথা বলে । রাত হলেই কোথাও চলে যায় ! এখন পাগলের ট্রিটমেন্ট চলছে ওর । ঘরে আটকে রাখা হয়েছে.তুমি একবার ওর সঙ্গে দেখা করে যেও ।

আমি তাই চাইছিলাম । অবিনাশের ঘরের দিকে এগোলাম । ঘরের দরজায় বড় তালা ঝুলছে দেখলাম । ঘরের পাশের জানালা খোলা ছিল,সেখান দিয়ে উঁকি দিলাম আমি । আবছা অন্ধকার ঘর । অবিনাশ কিছু কথা বলছিল । বোঝা যাচ্ছিল না কি কথা,কাকে বলছিল ! আমি ডাক দিলাম,অবিনাশ ! তিনবারের ডাক ওর কানে গেলো,ধীরে ধীরে উঠে এলো জানলার  কাছে ।

আমি বললাম,কেমন আছিস ?

অবিনাশ কেবল,ঘাড় হেলাল,কি বলতে চাইলো বুঝলাম না ।

আমি আসতে করে বললাম,তোকে নিশি একবার যেতে বলেছে ।

ও উতলা হয়ে বলল,তিন দিন আগে নিশি এসেছিল,তারপর আর কেন আসছে না,তুই জানিস ? ও বলে ছিল রোজ আসবে–আমার সঙ্গে বসে গল্প করবে–অন্ধকার ঘরে আমরা সারা দিন গল্প করব—জানিস,আমি আর ও রাতে এক বিছানায় শুবো ! ও বলেছে, আমরা বিয়ে করবো ! নিশি বলেছে ও মালা আর সিঁদুর নিয়ে আসবে ।

আমি আবার বললাম,অবিনাশ,তোকে নিশি ডেকেছে ।

অবিনাশ নিজের মনেই বলতে লাগলো,যাবো আমি যাবো—নিশি আমায় ডেকেছে—আমরা বিয়ে করবো । ও আমার আর কোন কথা না শুনে নিজের মনে বিড়বিড় করতে করতে অন্ধকার ঘরের কোনে চলে গেল ।

আমার আর কিছু করার ছিল না । অবিনাশের জন্যে খুব দুঃখ হচ্ছিল । চুপচাপ বেরিয়ে এলাম ওদের ঘর থেকে ।

একদিন পরের কথা । খুব খারাপ সংবাদ আমার জন্যে অপেক্ষা করছিলো । জানতে পারলাম অবিনাশ গতকাল রাতে আত্মহত্যা করেছে । নিজের ঘরে ফাঁসি দিয়ে মারা গেছে !

এক প্রেমিক যুগলের অকাল মৃত্যু বড় দুঃখ দিয়ে গেলো !

সমাপ্ত

১,৬৮২ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
নাম :তাপসকিরণ রায়। পিতার নাম : স্বর্গীয় শৈলেশ চন্দ্র রায়। জন্ম স্থান: ঢাকা , বাংলা দেশ। জন্ম তারিখ:১৫ই এপ্রিল,১৯৫০. অর্থশাস্ত্রে এম.এ.ও বি.এড. পাস করি। বর্তমানে বিভিন্ন পত্র পত্রিকাতে নিয়মিত লিখছি। কোলকাতা থেকে আমার প্রকাশিত বইগুলির নামঃ (১) চৈত্রের নগ্নতায় বাঁশির আলাপ (কাব্যগ্রন্থ) (২) তবু বগলে তোমার বুনো ঘ্রাণ (কাব্যগ্রন্থ) (৩) গোপাল ও অন্য গোপালেরা (শিশু ও কিশোর গল্প সঙ্কলন) (৪) রাতের ভূত ও ভূতুড়ে গল্প (ভৌতিক গল্প সঙ্কলন) (৫) গুলাবী তার নাম (গল্প সঙ্কলন)
সর্বমোট পোস্ট: ১১২ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ১৬৬৯ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-১১ ১৫:৪৩:৫৪ মিনিটে
banner

১১ টি মন্তব্য

  1. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    ভয়ে গা ছম ছম করছে। তবুও পড়লাম। ভাল লাগল।

  2. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    গল্পটি সত্যি ঘটনা আধারিত। পড়ে ভাল লেগেছে জেনে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই।

  3. এ হুসাইন মিন্টু মন্তব্যে বলেছেন:

    ভূতের গল্প ভালো লগল।

  4. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    গল্প পড়ে ভাল লেগেছে জেনে খুশি হলাম–অনেক ধন্যবাদ রইল।

  5. তুষার আহসান মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল,আপনার লেখনীর গুন।
    ধন্যবাদ।

  6. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    গল্প ভাল লেগেছে জেনে খুশি হলাম।ধন্যবাদ।

  7. অদিতি ভট্টাচার্য্য মন্তব্যে বলেছেন:

    পড়েছিলাম গত কাল, আজ আমার ভালো লাগা জানাচ্ছি। এটাও নিশ্চয়ই সত্য ঘটনা অবলম্বনে লেখা? আপনার তো ভূতের গল্পের স্টক অফুরন্ত। আর জানেনই তো আমি ভূতের গল্প পড়তে ভালোবাসি। খুব খুব ভালো লেগেছে। এরকম আরো গল্পের অপেক্ষায় রইলাম।

  8. তাপসকিরণ রায় মন্তব্যে বলেছেন:

    অনেক ধন্যবাদ অদিতি!চেষ্টা করব এ ধরণের লেখা আরও পোস্ট করতে।

  9. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লেগেছে

  10. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনার গল্পও বেশ সুন্দর
    ভাল লাগল

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top