Today 02 Aug 2021
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

লবণে তৈরি রেস্টুরেন্ট

লিখেছেন: সীমান্ত পারভেজ | তারিখ: ২৯/০৪/২০১৫

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1221বার পড়া হয়েছে।

কত রকমেরই তো রেস্টুরেন্ট হয়। কোনোটা পাহাড়ের চূড়ায়, কোনোটা পানির নিচে। আবার সেসব রেস্টুরেন্টের নামও হয় চমকপ্রদ। কিন্তু নাম আর নির্মাণশৈলীতে রীতিমতো চমকে দেবে ইরানের শহর সিরাজের একটি রেস্টুরেন্ট, যার নাম সল্ট রেস্টুরেন্ট। লবণ খাবারের স্বাদ বাড়ায় বলে এই নাম নয়।

Restaurant-made-of-Salt-2

বরং রেস্টুরেন্টটি আগাগোড়া লবণের তৈরি বলেই এই নাম। শুধু তাই নয়, এই রেস্টুরেন্টটি একই সঙ্গে পরিবেশবান্ধবও বটে। কারণ এটির নির্মাণকাজে যেসব উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে তা কার্বন নিঃসরণ করে না। তা ছাড়া এটি শহরের দূষিত বাতাসকে পরিশুদ্ধ করে তারপর ভেতরে প্রবেশ করায়।

আদ্যোপান্ত লবণে মোড়া এই রেস্টুরেন্টটির নির্মাতা হলো ইরানের বিখ্যাত ইমতিয়াজ ডিজাইনিং গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটি প্রথমে লবণ খনির লবণগুহাগুলো থেকে এই ধরনের একটি রেস্টুরেন্ট করার ধারণা পায়। তারপরশুরু হয় এ নিয়ে একটি দীর্ঘ গবেষণা।

Restaurant-made-of-Salt

রেস্টুরেন্টের ডিজাইনাররা প্রাথমিকভাবে পার্শ্ববর্তী লবণখনিতে গিয়ে স্থানীয় লবণের গুণাগুণ আর লবণগুহার প্রকৃতি নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করেছেন। চূড়ান্ত ডিজাইন তৈরি হয়ে যাওয়ার পর গবেষকরা লবণগুহার আদলে তৈরি করেন রেস্টুরেন্টটির দেয়াল, ছাদ, মেঝে সবকিছু। নির্মাণকাজের মূল উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে পার্শ্ববর্তী লবণখনির থেকে আনা লবণ।

সিরাজের সল্টলেক এবং পার্শ্ববর্তী লবণের খনি থেকে এর সব উপকরণ এসেছে। স্থাপনাটিকে শক্তিশালী করতে লবণের সঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে প্রাকৃতিক আঠা। রেস্টুরেন্টটির ভেতরের সব কিছুই লবণ দিয়ে তৈরি। ভেতরের চেয়ার, টেবিল এমনকি সিঁড়ির ওপরেও রয়েছে লবণের আস্তরণ দেওয়া। ছাদের প্লাস্টার এবং অন্যান্য স্থানের সজ্জাবিন্যাসও করা হয়েছে লবণ দিয়ে।

ডিজাইনার সংস্থাটির একজন মুখপাত্র জানান, লবণ প্রাকৃতিকভাবেই সংক্রমণনাশক। তাছাড়া এটি নির্মাণকাজের জন্য এমন একটি উপাদান যা বাতাসকে পরিশুদ্ধ করে এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা রাখে। এ কারণে লবণের তৈরি এই রেস্টুরেন্ট পুরোপুরি পরিবেশ বান্ধব।

তাছাড়া খুব প্রাচীনকাল থেকে শ্বাসপ্রশ্বাস সংক্রান্ত চিকিৎসায় লবণের ব্যবহার হয়ে আসছে। এ কারণে অনেক চিকিৎসকই ভগ্নস্বাস্থ্য ভালো করতে লবণগুহায় বা লবণের সরাসরি সংস্পর্শ পাওয়া যায় এমন জায়গাতে অবস্থান করার পরামর্শ দেন। এই রেস্টুরেন্টে তাই সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার খাওয়া যাবে। অডিটিসেন্ট্রাল অবলম্বনে।

১,২২০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ২৫ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-২৫ ১১:৪৬:৫১ মিনিটে
banner

৫ টি মন্তব্য

  1. টি. আই. সরকার (তৌহিদ) মন্তব্যে বলেছেন:

    দারুণ চমকপ্রদ তথ্য জানতে পেরে ভাল লাগলো ।
    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ আপনাকে ।

  2. দ্বীপ সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লাগলো।

  3. দ্বীপ সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর ও অনবদ্য।

  4. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    লবণ গলে গলে পড়বে না…কিভাবে সম্ভব

    সুন্দর তথ্য জানানোর জন্য ধন্যবাদ

  5. অনিরুদ্ধ বুলবুল মন্তব্যে বলেছেন:

    ব্যাতিক্রম উপস্থাপনা
    বেশ ভাল লাগল। ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top