Today 16 Oct 2021
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

শান্তির ঘুম

লিখেছেন: তুষার আহসান | তারিখ: ১৯/০৮/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1347বার পড়া হয়েছে।

বেগুনতলীর সঙ্গে পটলপুরের খুব আঁকশা-আঁকশি চলছে।অবস্থা খারাপ হতে-হতে

থানা-পুলিশ অব্দি গড়িয়েছে। থানার বড়বাবু গোঁফে তা দিচ্ছেন আর বলছেন,দুই

গাঁয়ের কুকুর-শেয়ালও রেহায় পাবে না। সবাইকে লক-আপে ভরে কাপড়-কাচা

করাব।কাকপক্ষীও টের পাবে আমি কি রকম জাঁদরেল বড়বাবু!

বেগুনতলী গ্রামের বেগুন জগৎবিখ্যাত।রং-চেহারা আর স্বাদে অতুলনীয়।

হাটে-বাজারে ফড়েরা হাঁকায়,আসুন  বেগুনতলীর বেগুন নিয়ে যান।রেঁধে খান,ভেজে

খান,পুড়িয়ে খান। এই বেগুন খেলে আর মাংস খেতে ইচ্ছে করবে না। মাংসকে

কচুপোড়া মনে হবে।

পটলপুরের পটলেরও তেমনই সুখ্যাতি।বিক্রিবাটা।থানার পুলিশ অব্দি

ঘুষের বদলে পটলপুরের পটল খেতে চায়।

বেগুনতলীর লোকজন বেগুন নিয়েই মেতে থাকে।ট্রাক্টর কেনে,পাকা

বাড়ি বানায়।অবসরে কুটুমবাড়ি গিয়ে,নিজের গাঁয়ের ফসলের সুখ্যাতি শোনে।

পটলপুরের চাষীরাও নিজেদের ফসলের সুনামে ডগমগ। তাদের ভাল লাগে

যখন দেখে,শহরের মিষ্টির দোকানে নতুন মিষ্টি চালু হয়েছে,পটলভোগ।দোকানের

বেয়ারা রাস্তায় দাঁড়িয়ে হাঁক দেয়,আসুন বাবু, নতুন মিষ্টি খেয়ে যান,পটলপুরের

পটলের মত মিষ্টি,পটলভোগ।

এ বছর সব কিছুর মতই সব্জীর দাম বেড়েছে। বেগুন কুড়ি টাকা কেজি।পটল

পঁচিশ।বাজারদর নিয়ে দুই গ্রামের চাষীদের কোন মাথাব্যথা নেই। মাথা ব্যথা হ’ল

ইঁদুরদের।বেগুনতলীর ইঁদুররা বলল,আমাদের চেয়ে ওদের দাম বেশী হয়ে গেল? চল,

ওদের সব গাছের গোঁড়া কেটে দিই।

পটলপুরের ইঁদুরদের ভয়ানক রাগ,আমাদের গাঁয়ের উপর হামলা।চল, ওদের

গাছগুলোও আস্ত রাখব না।

বেগুনতলীর চাষীরা ফসলের এই দূর্গতি দেখে হায় হায় করে। বলে,এ নিশ্চয়

পটলপুরের বদমাশ গুলোর কাজ।

পটলপুরের চাষীরাও একমত,এই সর্বনাশ বেগুনতলীর শয়তান গুলোই করেছে।

ওদের যাকে এই এলাকায় দেখবি,গোঁফ কেটে দে।

বেগুনতলীর রামু গোয়ালা পটলপুর থেকে দুধ কিনে শহরে বেচতে যায়।আজ

সে বাড়ি ফিরল কাঁদতে-কাঁদতে।পটলপুরের চাষীরা তার শখের গোঁফ মুড়িয়ে

দিয়েছে।

পটলপুরের অনাথ বৈরাগীও কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফিরল ন্যাড়া মাথায়।বলল,

বেগুনতলীর লোকরা আমার অশৌচ করে দিয়েছে।

বৃত্তান্ত শুনে  বড়বাবু তড়পান,হুকুম করেন,ধরে নিয়ে আয় দুই গাঁয়ের সকলকে।

হেড কনস্টোবল বলে,দুই গাঁয়ের লোক ধরে নিয়ে আসবেন কিসে,গাড়ির

টায়ার পাংচার।

— চলো আমরা হেঁটেই যাব। বেঁধে আনবো সবকটাকে।

— অত দড়ি পাবেন কোথায় স্যার,মুদির দোকানে হাজার টাকা বাকী।

— তা হলে উপায় কি বলো তো,দুই গাঁয়ের শান্তি বিঘ্নিত হচ্ছে।এক গাঁয়ের

লোকজন গোঁফ কামানো অবস্থায় ঘুরছে,অন্যরা ন্যাড়া মাথায়,খবরের কাগজের

লোকজন ছুটবে,আমার বদনাম,থানার বদনাম।হুম!

খবরের কাগজের লোকজন হৈ-হৈ করে ছুটে এল,ফটাফট ফটো তুলল।

বলল,স্যার যে দেখছি পিসি সরকারের ম্যাজিক দেখালেন।রাতারাতি দুই গাঁয়ের

জমি চাষ হয়ে গেছে। তাতেই চাষীরা খুশি।তারা ফের নতুন চারা বসাতে ব্যস্ত।

আর কোন অশান্তি নেই।

 

আলমারীর কাছে কট্-কট্ শব্দে ঘুম ভাঙল বড়বাবুর। হ্যাঁ, ধেড়ে ইঁদুরটা।রোজ

জ্বালায়।আজও এসেছে।বড়বাবু বললেন,তোকে আমি গুলি করব।তাতে যদি

জঙ্গলমহলে বদলী হতে হয়,হবে।

—আমার জাতভাইদের জন্যে আজ আপনি শান্তিতে ঘুমোচ্ছেন স্যার।হেসে বলল

ইঁদুরটা।রহস্যের গন্ধ পেয়ে তড়াক করে বিছানায় উঠে বসলেন বড়বাবু।বললেন,

তার মানে?

—দুই গাঁয়ের ইঁদুররা নিজেদের মধ্যে মিমাংসা করে নিয়েছে।রাতারাতি সব জমি

চাষ করে দিয়েছে ।নইলে কি অশান্তি মিটত?

বড়বাবু গম্ভীর গলায় বললেন,তোর জন্যে রোজ একটা পাঁউরুটি রেখে দেব।আর

জ্বালাস নে বাপু। বহুদিন পরে একটু শান্তিতে ঘুমোতে দে।

দুই গ্রামের লোক শান্তিতে ঘুমোয়। বড়বাবুও ঘুমোন। তাঁর নাক ডাকে,পায়রার

বকম বকমের মত,ঘটর- ঘ,ঘটর-ঘ।

*

১,৪৬০ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি পশ্চিমবঙ্গ,ভারবর্ষের মানুষ। ছোট বেলা থেকেই লেখালেখি করি। দৈনিক আনন্দবাহজার সহ বিভিন্ন শীর্ষস্থানীয় পত্রপত্রিকায় আমার লেখা প্রকাশ পায়। ইন্টারনেটের নেশা এখন এমন ভাবে ধরেছে, ব্লগ ছাড়া আর কোথাও লিখতে ইচ্ছে করে না।
সর্বমোট পোস্ট: ৫১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৮৪২ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৭-১০ ১২:৪৪:৪৯ মিনিটে
Visit তুষার আহসান Website.
banner

১৬ টি মন্তব্য

  1. এ টি এম মোস্তফা কামাল মন্তব্যে বলেছেন:

    গল্পটি ভালো লেগেছে।
    তবে লেখার ভঙ্গিতে ওপার বাংলার একটা ছাপ লক্ষ করলাম।

  2. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    গল্পটি কবিতার স্টাইলে সাজানো।

  3. শাওন রশিদ মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লেগেছে গল্পটা।

  4. এ হুসাইন মিন্টু মন্তব্যে বলেছেন:

    আপনি ভারতীয়, বিনদেশী(কলকার কাউকে আমি নিজে যদিও বিনদেশী ভাবি না। কিন্তু বাস্তবতা আলোকে বলছি) একজন লেখক বন্ধুকে পেয়ে আমার ব্যক্তিগত ভাবে অনেক ভালো লাগছে। আশা করি আপনি আমাদের সাথে অর্থাত চলন্তিকার সঙ্গেই থাকবেন। আপনার শিশুতোষ গল্পটিও অনেক ভালো লেগেছে। ধন্যবাদ আপনাকে।

    কলকাতার কোথায় আপনার বাড়ি ?(জানাতে যদি আপত্তি না থাকে)
    আমার ফেইসবুক..https://www.facebook.com/ahussain.mintu.7

  5. বিএম বরকতউল্লাহ্ মন্তব্যে বলেছেন:

    ভালো লেগে গেলো! ধন্যবাদ নিন।

  6. মিলন বনিক মন্তব্যে বলেছেন:

    খুব সুন্দর একটা শিশুতোষ গল্প পড়লাম…ভালো লাগলো…সবচেয়ে বড় কথা একজন লিখিয়ে বন্ধু পেলাম…আমার লেখাগুলো পড়ার অনুরোধ থাকলো…

  7. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    শান্তির ঘুম
    সে তো মরণ

    আপাতত মরতে চাই না ।

  8. সবুজ আহমেদ কক্স মন্তব্যে বলেছেন:

    মুগ্ধকর লিখনী

    ভেরি নাইস লিখনী

    পড়ে ভাল লাগলো

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top