Today 25 Sep 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

সৌন্দয্য বনাম চরিত্র

লিখেছেন: আরজু মূন জারিন | তারিখ: ০৫/০৯/২০১৩

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1119বার পড়া হয়েছে।

Beauty Vs Quality (সৌন্দয্য বনাম চরিত্র ) আমাদের সব মেয়েদের জন্য

আমি লিখতে চাচ্ছি বিউটি নিয়ে আমাদের কোয়ালিটি নিয়ে .প্রথমে আমরা বিউটি কি সেটা নিয়ে কথা বলি . প্রচলিত রীতি নীতিতে বিউটি এর সজ্ঞা দেই জীবনানন্দ সেন এর বনলতার মত হবে .পাখির নীড় এর মত চোখ, দুধে আলতা গায়ের রং পটল চেরা আখি ..সৌন্দর্যের যত defination আমাদের কবি সাহিত্যিকরা দিয়ে গিয়েছেন আর কোয়ালিটি যা প্রতি মুহুর্তে আমরা অর্জন করছি সমাজ থেকে পরিবার থেকে পরিপাশিক থেকে আমার নলেজ ,শিখ্খা. চরিত্র

আমি খুব ই সাধারণ এক মধ্যবিত্ত ফ্যামিলি থেকে এসেছি খুব ই সাধারণ একটা চেহারা নিয়ে জন্মেছি আমি .একেবারে বিশেসত্তহীন সাদামাটা চেহারা এখন এটা নিয়ে আমার আর দুখ্খ নেই অন্ততপক্ষে আমি ব্লাইন্ড না , বোবা ডেফ কোনটা না .প্রতি অর্গান আমার প্রপার ওয়েতে কাজ করছে, যদিও ছোটবেলায় আয়নায় চেহারা দেখতাম আর sad হয়ে ভাবতাম ইশ আমার চেহারা কি আরেকটু সুন্দর হতে পারতনা . সারাদিন সুধু স্কিন কেয়ার করতাম .কাচা হলুদ এর রস খেতাম স্কিন ব্রাইট করার জন্য , সকালে উঠে সবুজ গাছপালার দিকে তাকিয়ে থাকতাম চোখটাকে ব্রাইট করার জন্য , চুলে প্রতি সপ্তাহে লাগাতাম এগ আর হেনা মিশানো প্যাক..আরো করতাম অনেক যোগ অনেক exercise ..however কোয়ালিটি এর চেয়ে আসলে বিউটি নিয়ে বেশি মাথা গামিয়েছি অল্প বয়সে থেকে ..

আজকে আমার সেসব স্কিন কেয়ার করা এত সুন্দর থাকা র চেষ্টা সব ফানি বলে মনে হছে . আজকে বুজি কোয়ালিটি টা যে কত বড় বিউটি র চেয়ে অমিত চাই যুগ যুগ ধরে সব সময়ে সবাই আমাকে আমার সততা , নলেজ, আমার education দিয়ে ই চিনবে আমার বিউটি দিয়ে না .এখন থেকে আপ্রাণ চেষ্টা হবে সুধু আপগ্রেড , কোয়ালিটি adopt ..

১,১৮৫ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
নিজের সম্পর্কে কিছু বলতে বললে সবসময় বিব্রত বোধ করি। ঠিক কতটুকু বললে শোভন হবে তা বুঝতে পারিনা । আমার স্বভাব চরিত্র নিয়ে বলা যায়। আমি খুব আশাবাদী একজন মানুষ জীবন, সমাজ পরিবার সম্পর্কে। কখনো হাল ছেড়ে দেইনা। কোনো কাজ শুরু করলে শত বাধা বিঘ্ন আসলেও তা থেকে বিচ্যুত হইনা। ফলাফল পসিটিভ অথবা নেগেটিভ যাই হোক শেষ পর্যন্ত কোন কাজ এ টিকে থাকি। জীবন দর্শন" যতক্ষণ শ্বাস ততক্ষণ আশ " লিখালিখির মূল উদ্দেশ্যে অন্যকে ভাল জীবনের সন্ধান পেতে সাহায্য করা। মানুষ যেন ভাবে তার জীবন সম্পর্কে ,তার কতটুকু করনীয় , সমাজ পরিবারে তার দায়বদ্ধতা নিয়ে। মানুষের মনে তৈরী করতে চাই সচেতনার বোধ ,মূল্যবোধ আধ্যাতিকতার বোধ। লিখালিখি দিয়ে সমাজে বিপ্লব ঘটাতে চাই। আমি লিখি এ যেমন এখন আমার কাছে অবাস্তব ,আপনজনের কাছে ও তাই। দুবছর হলো লিখালিখি করছি। মূলত জব ছেড়ে যখন ঘরে বসতে বাধ্য হলাম তখন সময় কাটানোর উপকরণ হিসাবে লিখালিখি শুরু। তবে আজ লিখালিখি মনের প্রানের আত্মার খোরাকের মত হয়ে গিয়েছে। নিজে ভালবাসি যেমন লিখতে তেমনি অন্যের লিখা পড়ি সমান ভালবাসায়। শিক্ষাগত যোগ্যতা :রসায়নে স্নাতকোত্তর। বাসস্থান :টরন্টো ,কানাডা।
সর্বমোট পোস্ট: ২২৯ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৬৮৩ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৯-০৫ ০১:২০:৩৫ মিনিটে
banner

৩ টি মন্তব্য

  1. এম, এ, কাশেম মন্তব্যে বলেছেন:

    এবার কবিতা ছেড়ে প্রবন্ধ
    সবখানে পদচারণা
    ভাল লাগলো…………

  2. আরজু মন্তব্যে বলেছেন:

    thanks

  3. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    সুন্দর কথা লিখলেন ভাই।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top