Today 01 Dec 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

স্পেস-১৪(অংশ-৭)

লিখেছেন: রাজিব সরকার | তারিখ: ২৪/০১/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1318বার পড়া হয়েছে।

তারা দুজনে গভীর আগ্রহ নিয়ে পৃথিবীর দিকে তাকিয়ে আছে।পৃথিবীর প্রতি যে এত ভালবাসা,এই প্রথম দুইজনে বুঝতে পারল।ক্রমেই পৃথিবী অদৃশ্য হয়ে যাচ্ছে।ফিক বলল-হাতটা নাড়া।
দুইজনে হাতটা নাড়িয়ে পৃথিবীকে বিদায় জানাচ্ছে।হাত নাড়াতে নাড়াতেই পৃথিবীকে আর দেখা যাচ্ছে না।ফিক বেশ বড় করে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে।শ্রাবন্তীর চোখ টলমল করছে।তার খুব কান্না করতে ইচ্ছে করছে।
সপ্তাহখানেক পর।মহামান্য টিক বসে বসে সিগারেট ফুঁকছে।
-স্যার আসব।
কহি-১০০০ প্রজাতির এক রোবট দরজার সামিনে দাড়িয়ে।কহি হচ্ছে কপি অফ হিউম্যান।পাশাপাশি চললে এদের আর মানুষের মধ্যে কোন পার্থক্য খুঁজে পাওয়া যায় না।সময়ের সবচেয়ে উন্নতমানের রোবট।
-এসো হিপ।
-মহামান্য টিক,আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ।
-সরাসরি বলে ফেল।এসব কিছু বলতে হবে না।
-আপনি কেমন আছেন?
-তোমাকে না বললাম যা বলার সরাসরি বল।এসব বলতে হবে না।
-স্পেস কমিটির নিয়ম অনুযায়ী…
-ওসব আমাকে শেখাতে হবে না?তুমি এখন রুম হতে যাও,যন্ত্রণা দিবে না।কোন যন্ত্রের সাথে কথা বলতে ইচ্ছে হচ্ছে না।
-না বলেতো যাওয়া যাবে না।স্পেস কমিটির নিয়ম অনুযায়ী না বলা আমার জন্য অপরাধ হবে।
-আমি এখন ব্যস্ত আছি।তোমার কথা শুনার মুড নেই।
-মহামান্য রেগে যাবেন না।রাগ করা শরীরের জন্য খুব খারাপ।এসময় শরীর ভাল থাকাটা খুব দরকার।
-তোমাকে এসব শিক্ষা দিতে হবে না।তোমাকে যেতে বলছি।তুমি যাও।
হিপ তবুও দাড়িয়ে রইল।মহামান্য টিক শুয়ে পড়ল।
-মহামান্য।
বেশ কয়েকবার হিপ ডাকল।অবশেষে বিরক্ত হয়ে উঠে বসল।
-আচ্ছা বলে তাড়াতাড়ি বিদায় হও।
-শ্রাবন্তী এদিক ওদিক ঘুরাফেরা খুব ঘন ঘন করছে।এতে যেকোনো ধরণের বিপর্যয় হতে পারে স্পেসের।
-এই সামান্য কথা বলার জন্য আর কখনো আমার রুমে আসবে না।
-এটা সামান্য কথা না মহামান্য।
-আর কিছু বলবে।
-না।
-তাহলে যাও।
হিপ রুম হতে বের হয়।বের হয়ে শ্রাবন্তীর রুমে যায়।
-আসতে পারি মহামতি শ্রাবন্তী।
-আসুন।
-আপনি দেখতে খুব সুন্দর।
হিপের ভাবসাব ভাল লাগল না।এভাবে সরাসরি তোষামোদ করার কোন কারণ আছে নিশ্চয়।
-আমি জানি।
-আপনার চোখ দুটি খুব সুন্দর।
-তুমিতো মনে হচ্ছে মেয়ে পটাতে বেশ পটীয়সী।
-আপনাকে ভাল একটা খবর দেয়।
-বলে ফেল।
-আপনার চাচা ব্যবসায় খুব ভাল করছে।কিছুদিনের মধ্যে কোটিপতি হয়ে যাবে।
-ও খুব ভাল খবর।তুমি খুব ভাল।
-মোহিত নামে যে ছেলেটাকে তুমি প্রচণ্ড ভালবাসতে,সে ছেলেটা এখন পর্যন্ত দিব্যি আরেক মেয়ের সাথে প্রেম করে যাচ্ছে।
-তোমার ভাবগতি তো ভাল মনে হচ্ছে না।
-রোবটরা মিথ্যা কথা বলে না।যা সত্য তাই বললাম।
-প্রমাণ দিতে পারবে।
-অবশ্যই।গত পহেলা বৈশাখে তুমি সেজেগুজে শাড়ি পড়ে বের হলে,কিছুক্ষণ পর মোহিত কল দিয়ে বলে,শু,আজ খুব খারাপ লাগছে।আমরা বরং অন্যদিন বের হব।পরের দিন,দুজনে ঘুরতে বের হলে। এত তাড়াতাড়ি শরীর ভাল হয়ে গেল?

১,৩৫৩ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
সর্বমোট পোস্ট: ১৭১ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ২৪৪ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৮-৩০ ১৬:১৭:৫০ মিনিটে
banner

৭ টি মন্তব্য

  1. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    এ পর্বটি ভাল লাগল । পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম । শুভ কামনা।

  2. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল হচ্ছে লেখা।ধন্যবাদ।

  3. আমির হোসেন মন্তব্যে বলেছেন:

    পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম। ততক্ষণ ভাল থাকুন।

  4. আরজু মূন মন্তব্যে বলেছেন:

    পড়লাম।ভাল হয়েছে।ধন্যবাদ।

  5. এস এম আব্দুর রহমান মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল হচ্ছে উপন্যাস । শুভ কামনা ।

  6. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    ভাল লাগল

  7. রাজিব সরকার মন্তব্যে বলেছেন:

    ধন্যবাদ সবাইকে

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top