Today 16 Jun 2021
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner

১১২, ওশান এ্ভিনিউ

লিখেছেন: রুবাইয়া নাসরীন মিলি | তারিখ: ০৯/০৯/২০১৪

এই লেখাটি ইতিমধ্যে 1609বার পড়া হয়েছে।

১১২ ওশান এভিনিউ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক এর লং আইল্যান্ড এর অ্যামিটিভিল শহরের একটি বাড়ি। তবে এই বাড়িটা পৃথিবীর বা খোদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য শহরের আর পাচ/দশটা বাড়ির মত না। এই বাড়িটি পৃথিবীর অন্যতম আলোচিত ভৌতিক বাড়ি।

 

 

download

 

সুরম্য  এই তিনতলা বাড়িটির সাথে জড়িয়ে আছে পিতা মাতা সহ আপন ভাই বোন কে হত্যার জঘন্য ইতিহাস  আর কিছু আধিভৌতিক ঘটনাবলী ।

এই বাড়িটি প্রথম আলোচনায় আসে ১৯৭৪ সালে যখন তেইশ বছর বয়সি রনি ডিফেও তার পরিবারের সকল সদস্য কে রাইফেলের গুলিতে নির্মম ভাবে হত্যা করে। ১৯৭৪ সালের নভেম্বর এর সকাল আনুমানিক সাড়ে ছয়টার দিকে রনি ডিফেও অ্যামিটিভিল বারে যায় এবন সেখানে গিয়ে সবার সাহায্য চায় এই বলে যে আমার বাবা মাকে গুলি করা হয়েছে।  তাৎক্ষনিক ভাবে ওখানে উপস্থিত জো ইয়েস্মিত নামক এক ব্যাক্তি সাফোক কাউন্টি পুলিশ কে খবর দেয়।

পুলিশ এসে তল্লাশি করে ওই বাড়ির ছয় সদস্যকে নিজ নিজ বিছানায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পায়।  এরা হলেন রোনাল্ড ডিফেও (৪৩) , লুইস ডিফেও (৪২) এবং তাদের চার সন্তান ডন(১৮), আলিসন (১৩), মার্ক (১২) এবং জন ম্যাথিউ (৯)।

এদের মাঝে বাবা আর মাকে দুই বার আর বাকি চারজন কে একবার করে গুলি করে হত্যা করা হয়। পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী এদের সবাই উপুরউহয়ে শুয়ে ছিল শুধু লুইস ডিফেও (৪২)  চিৎ হয়ে শুয়ে ছিল।

 

family

পুলিশ বাড়ির বড় ছেলে এবং একমাত্র জীবিত সদস্য রনি ডিফেও কে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায় আর পার্শ্ববর্তী সেন্ট চার্লস সিমেট্রি তে নিহত সবাইকে দাফন করা হয়।

১৯৭৫ এর ১৪ অক্টোবর রনির বিচার কাজ শুরু হয় আর বিচারক তাকে ২য় ডিগ্রী হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে প্রতিটি মৃত্যুর জন্য পঁচিশ বছর করে কারাদণ্ড প্রদান করেন । যদিও রনি ও তার আইনজীবী রনিকে সে সময় অপ্রকিতস্থ হিসাবে দাবি করে আসছিল। রনির ভাষ্যমতে  সে সময় তার উপর কিছু একটা ভর করেছিল। পুলিশের তদন্তে বের হয়ে আসে  যে মাদক গ্রহন করত। তবে যে বিসয়টির কোন সুরাহা পুলিশ করতে পারে নাই তা হল হত্যাকাণ্ডে বাবহৃত  রাইফেলে সাইলেন্সার লাগান ছিল না আর না তো নিহত কাউকে ঘুমের ওষুধ বা নেশা জাতীয় কিছু খাওয়ানো হয়েছিল তাহলে কেন একজনকে হত্যার পর পরই অন্যরা গুলির শব্দ শুনল না?

 

amity1b

যাইহোক রনি ডিফেও আজও তার কৃতকর্মের সাজা ভোগ করছে কিন্তু বাড়িটি এখনও আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে আছে এই হত্যাকাণ্ড পরবর্তী কিছু আধিভৌতিক ঘটনার কারনে।

 

defoe02

রনি ডিফেও এখনঃ

 

১৯৭৫ সালের ডিসেম্বর মাসে জর্জ আর ক্যাথি লুটজ দম্পতি তাদের তিন সন্তান ড্যানিয়েল ,ক্রিস্টোফার আর মেলিসা এবং পোষা কুকুরকে নিয়ে ১১২ ওশান এভিনিউ এর বাসায় উঠে । এই বাড়িতে বসবাস শুরু করার সাথে সাথে তারা বুঝতে পারে এখানে অশুভ একটা কিছু আছে । প্রতিদিন নানা রকম ভৌতিক ঘটনার কবলে পরে মাত্র আঠাশ দিনের মাথায় তারা সেই বাড়ি থেকে জীবন নিয়ে পালিয়ে বাচে ।

সাংবাদিক যে অ্যানসন  জর্জ আর ক্যাথি লুটজ এর ভাষ্য মতে ঘটিত  ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে লিখেন দি অ্যামিটিভিল হরর। ১৯৭৭ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয় সত্য ঘটনা অবলম্বনে লিখা এই বই । প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথে এই বই জনপ্রিয়তা পয়ায় এবং সাথে কিছু বিতর্কেরও জন্ম দেয় ।তবে সাংবাদিক লেখক জে অ্যানসন  একটি কথাই বলেছেন যে হয়ত জর্জ আর ক্যাথি লুটজ এর কথায় সত্য আছে সাথে কিছু মিথ্যাও আছে তবে তাদের বিশ্বাস করার বড় কারন হল কেন তারা এত দাম দিয়ে কেনা বাড়ি ছেড়ে আঠাশ দিনের মাথায় পালিয়ে এলেন।

এই কাহিনি নিয়ে হলিউড এ ১৯৭৯ আর ২০০৫ এ মুভি বের হয়। শুধু তাই না এর উপর ভিত্তি করে আরও অনেক বই ও লেখা হয়।

th_boxartamityville_w146

১,৫৭১ বার পড়া হয়েছে

লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি মিলি ,ভাল লাগে বই পড়তে,ঘুরে বেড়াতে আর বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে ।
সর্বমোট পোস্ট: ৩৮ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৩৯৩ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৪-০৯-০৩ ১৫:৫৪:৫০ মিনিটে
banner

১২ টি মন্তব্য

  1. গোলাম মাওলা আকাশ মন্তব্যে বলেছেন:

    বাহ নতুন অনেক কিছু জানতে পারলাম আর উপস্থাপন ভঙ্গি খুব সুন্দর।

  2. দীপঙ্কর বেরা মন্তব্যে বলেছেন:

    .kichu voutik biboron dile aro bhalo lagto
    onek Jana gelo

  3. ঘাস ফড়িং মন্তব্যে বলেছেন:

    লেখা ভাল লাগলো তয় ভবিষ্যতে আৱো ভাল কৱতে চেষ্টা চালিয়ে যাবেন

  4. আরজু মূন জারিন মন্তব্যে বলেছেন:

    আমার প্রিয় কাহিনী বইটি আমার সংগ্রহে আছে। আমার খান্ভবন লেখার লেখা ওখান থেকে পাওয়া ।ভাল লাগলো লেখা।ধন্যবাদ আপনাকে । শুভেচ্ছা রইল।

  5. আরজু মূন জারিন মন্তব্যে বলেছেন:

    লেখার স্থানে প্রেরণা হবে ।বাদ পড়েছে শব্দটি।

  6. ঘাস ফড়িং মন্তব্যে বলেছেন:

    হ্যাঁ ঠিক ধৱেছেন আৱজু আপা আমিও ঠিক এটাই বলতে চাচ্ছিলাম

  7. এই মেঘ এই রোদ্দুর মন্তব্যে বলেছেন:

    বাপরে কি ভয়ংকর । নিশ্চিত আরজু আপি এ নিয়া একটা গল্প লিখে ফেলবে।

    লেখা ভাল লেগেছে আপি।

  8. খাদিজাতুল কোবরা লুবনা মন্তব্যে বলেছেন:

    জানা গেলো কিছু অজানা…

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন.

go_top