Today 01 Jul 2022
banner
নোটিশ
ব্লগিং করুন আর জিতে নিন ঢাকা-কক্সবাজার রুটের রিটার্ন বিমান টিকেট! প্রত্যেক প্রদায়কই এটি জিতে নিতে পারেন। আরও আছে সম্মানী ও ক্রেস্ট!
banner
লেখক সম্পর্কে জানুন |
আমি একজন ছাত্র। কম্পিউটার আমার একটা প্রিয় বিষয়। ব্লগিং করতে আমার ভাল লাগে, ব্লগিং করে অনেক কিছু শেখা যায়।
সর্বমোট পোস্ট: ৩৫ টি
সর্বমোট মন্তব্য: ৬২১ টি
নিবন্ধন করেছেন: ২০১৩-০৬-৩০ ১৫:২৫:১৫ মিনিটে

॥ শেষ রাতের শেষ আড্ডা ॥

ভয় ও আনন্দের টানাপোড়নে, চরম উত্তেজনার মধ্য দিয়ে দিনটা কোনোরকম কেটে গেলেও ; রাতটা যেনো শাহীনের আর সহ্য হচ্ছে না। ঘুম তার চোখ থেকে যেনো চির বিদায় নিয়েছে। সকাল হবার আগেই একটা কিছু

বিস্তারিত পড়ুন

॥ পেয়ে গেলো ক্লোরোফরম ॥

পরদিন সকালে একরাশ চিন্তা মাথায় নিয়ে বিছানায় বসে ভাবতে থাকে শাহীন। শ্যামলী নাস্তা নিয়ে রুমে ঢুকে। শাহীনকে ডেকে নাস্তা খেতে বসায়। নাস্তায় মন বসে না শাহীনের। শ্যামলী তার এ অবস্থা দেখে মনে করে, হয়তো

বিস্তারিত পড়ুন

॥ বিদেশে পাচারের সিদ্ধান্ত ॥

অপহরণকারীরা পাচারের সুযোগের অপেক্ষায়, শাহীন মুক্তির পরিকল্পনায় ; আর ওর সাথীরা মৃত্যর ভয়-ভাবনায় দীশেহারা অবস্থায় কাটিয়ে দেয় দিন-রাত। এমনি করেই পাঁচ মাস পেরিয়ে, ছয় মাস হতে চলে শাহীনের বন্দী জীবনের। ষষ্ঠ মাসের এক রাতে

বিস্তারিত পড়ুন

॥ পরিকল্পিত মুক্তির পথে ॥

একদিন সকালে ঘুম ভেঙ্গে যাবার পর শাহীন বিছানায় শুয়ে মুক্তির কৌশল নিয়ে ভাবছিলো আর গড়াগড়ি খাচ্ছিলো। একসময় দরজার দিকে ল্য করে অনুভব করে, বেশ বেলা হয়ে গেছে। কিন্তু শ্যামলীর কোনো সাড়া-শব্দ নেই। কিছুণ পরই

বিস্তারিত পড়ুন

প্রথমে আমি আরিফুর রহমান, আমির ভাই এবং মিন্টু ভাইকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।
আমি সম্পাদক সাহেবের নিকট আমার কিছু অভিযোগ পেশ করছি। গত দীর্ঘ একমাস যাবত আমি চলন্তিকার সাথে ছিলাম। দীর্ঘ এক মাসে আমি চেষ্টা করেছি চলন্তিকাকে কিছু দিতে। কতটুকু দিয়েছি তা আমি

বিস্তারিত পড়ুন

॥ শ্যামলীর দুর্বলতা ॥

পাঁচ/ছয় বছর হয়, কাল্লু এবং শ্যামলী এ বাড়িতে এসেছে। ওরা দু’জন স্বামী-স্ত্রী। দশ বছর আগে ওদের বিবাহ হয়। বিয়ের আগে ওরা দু’জনই চোরাকারবারের সাথে জড়িত ছিলো। সীমান্ত এলাকা থেকে কাপড়-চিনিসহ অবৈধভাবে পাচার হয়ে আসা বিভিন্ন

বিস্তারিত পড়ুন

॥ শাহীনের অপরাধ বোধ ॥

বন্দী জীবনের হাজারো দুর্ভাবনার মাঝেও শাহীনের দৃঢ় বিশ্বাস, সে একদিন মুক্ত হবেই। সেতো কোনো অপরাধ করেনি। তাহলে এ বয়সে কেনো সে অপমৃত্যুর শিকার হবে ; অথবা আজীবন বন্দী জীবন-যাপন করবে? আবার তার মনে

বিস্তারিত পড়ুন

॥ কিভাবে অপহৃত হয় কামাল ॥

একদিন স্কুল ছুটি শেষে বাড়ির দিকে আনমনে হেঁটে যাচ্ছিলো কামাল। একটি মাইক্রো দাঁড়িয়েছিল পথের পাশে। কামাল মাইক্রোটির দিকে এক নজর দেখে পাশ কেটে চলে যাচ্ছিলো। মাইক্রোতে বসা একজন লোক তাকে ইশারায় কাছে ডেকে

বিস্তারিত পড়ুন

॥ গ্রাম ছেড়ে শহরে ॥

সানিয়া একদিন আবদূল করিমকে বলেন শহরে গিয়ে দেখতে, একটা চাকরি-টাকরি ঠিক করতে পারেন কি না। আবদুল করিমও মনে মনে এমন চিন্তাই করছিলেন। সানিয়ার মনোভাবও এমন দেখে, পরদিনই তিনি ইঞ্জিনের নৌকায় চড়ে নরসিংদী শহরের উদ্দেশ্যে

বিস্তারিত পড়ুন

সেদিন তুমি আসবে বলে
অবিন্যস্ত কচুপাতায়
হীরের টুকরো বৃষ্টি হলো…

সেদিন তুমি আসবে বলে
করলা নদী মেঘকে দেখে,
বললো চুলের বাঁধন খোলো……

বিস্তারিত পড়ুন

॥ কামালের শিক্ষা জীবন শুরু ॥

ছয় বছর বয়সে কামালকে তার বাবা আবদুল করিম পাশের গ্রামের সরকারি প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি করে দেন। এতে কামাল খুব খুশি হয়। প্রথম দিন স্কুল থেকে নতুন বই পাওয়ার পর তার আর আনন্দ ধরে না। বাড়িতে

বিস্তারিত পড়ুন

॥ কামালের সৎ মা ॥

আবদুল করিমের নতুন স্ত্রী সানিয়ারও কিছু গুণ আছে। তারপরও তিনি খালেক মাতবরের মেয়ে। একেবারে বাপের মতো না হলেও, বাপের কিছটাু মিল তো থাকবেই তাঁর স্বভাব-চরিত্রে। তিনি বাপের মুখে আবদুল করিমের সাজানো সংসারের কথা শুনেই

বিস্তারিত পড়ুন
go_top